এনজিও র‌্যাক গ্রুপের ব্যবস্থাপক গ্রেফতার
jugantor
প্রতারণা করে অর্থ আত্মসাৎ
এনজিও র‌্যাক গ্রুপের ব্যবস্থাপক গ্রেফতার

  পাইকগাছা (খুলনা) প্রতিনিধি  

২৭ ডিসেম্বর ২০২০, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

খুলনার পাইকগাছায় প্রতারণার মাধ্যমে ৮শ’ সদস্যের কাছ থেকে ২ কোটি টাকা আত্মসাতের অভিযোগে এনজিও র‌্যাক গ্রুপের ব্যবস্থাপককে পুলিশ গ্রেফতার করেছে। সে গত ৬ মাস পলাতক ছিল। থানায় তার বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে।

মামলার বিবরণে জানা যায়, উপজেলার নোয়াকাটি গ্রামের গৌরপদ বিশ্বাসের ছেলে বরুণ বিশ্বাস নিজেই ব্যবস্থাপক সেজে ২০১১ সালে ‘র‌্যাক’ নামে একটি এনজিও প্রতিষ্ঠা করে। নিয়োগ দেয় ৩০ জন মাঠ ও ৫ জন অফিস কর্মী। যাদের মাধ্যমে ৮শ’ সদস্যের কাছ থেকে মাসিক ও সাপ্তাহিক সঞ্চয় এবং কিস্তি ও ডিপিএসের মাধ্যমে লাখ লাখ টাকা নেয়া হয়। সে এ পর্যন্ত সদস্যদের কাছ থেকে ২ কোটি টাকা আদায় করে আত্মসাতের চেষ্টা করে। সমিতির সদস্য সাজেদা বেগমের কাছ থেকে ৫৫ লাখ টাকা নেয়ায় তিনি তার বিরুদ্ধে পাইকগাছা থানায় মামলা করেন।

ভুক্তভোগীরা জানান, তারা জানতে পারেন খুব শিগগিরই সে ভারতে পালিয়ে যাবে। তাই কৌশলে তাকে এলাকায় ফিরিয়ে আনে। শুক্রবার বাড়ি এলে সদস্যরা তাকে আটকে রেখে শনিবার সকালে স্থানীয় পুলিশ ফাঁড়িতে খবর দেন। ফাঁড়ি ইনচার্জ এসআই মনিরুজ্জামান ফোর্স নিয়ে বরুণ বিশ্বাসকে তার নিজ বাড়ি থেকে গ্রেফতার করে। এ বিষয়ে বরুণ জানায়, যেসব সদস্যের ডিপিএসের মেয়াদ পূর্ণ হয়েছে তাদের টাকা দেয়া হয়েছে। ওসি এজাজ শফী জানান, বরুণকে জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে।

প্রতারণা করে অর্থ আত্মসাৎ

এনজিও র‌্যাক গ্রুপের ব্যবস্থাপক গ্রেফতার

 পাইকগাছা (খুলনা) প্রতিনিধি 
২৭ ডিসেম্বর ২০২০, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

খুলনার পাইকগাছায় প্রতারণার মাধ্যমে ৮শ’ সদস্যের কাছ থেকে ২ কোটি টাকা আত্মসাতের অভিযোগে এনজিও র‌্যাক গ্রুপের ব্যবস্থাপককে পুলিশ গ্রেফতার করেছে। সে গত ৬ মাস পলাতক ছিল। থানায় তার বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে।

মামলার বিবরণে জানা যায়, উপজেলার নোয়াকাটি গ্রামের গৌরপদ বিশ্বাসের ছেলে বরুণ বিশ্বাস নিজেই ব্যবস্থাপক সেজে ২০১১ সালে ‘র‌্যাক’ নামে একটি এনজিও প্রতিষ্ঠা করে। নিয়োগ দেয় ৩০ জন মাঠ ও ৫ জন অফিস কর্মী। যাদের মাধ্যমে ৮শ’ সদস্যের কাছ থেকে মাসিক ও সাপ্তাহিক সঞ্চয় এবং কিস্তি ও ডিপিএসের মাধ্যমে লাখ লাখ টাকা নেয়া হয়। সে এ পর্যন্ত সদস্যদের কাছ থেকে ২ কোটি টাকা আদায় করে আত্মসাতের চেষ্টা করে। সমিতির সদস্য সাজেদা বেগমের কাছ থেকে ৫৫ লাখ টাকা নেয়ায় তিনি তার বিরুদ্ধে পাইকগাছা থানায় মামলা করেন।

ভুক্তভোগীরা জানান, তারা জানতে পারেন খুব শিগগিরই সে ভারতে পালিয়ে যাবে। তাই কৌশলে তাকে এলাকায় ফিরিয়ে আনে। শুক্রবার বাড়ি এলে সদস্যরা তাকে আটকে রেখে শনিবার সকালে স্থানীয় পুলিশ ফাঁড়িতে খবর দেন। ফাঁড়ি ইনচার্জ এসআই মনিরুজ্জামান ফোর্স নিয়ে বরুণ বিশ্বাসকে তার নিজ বাড়ি থেকে গ্রেফতার করে। এ বিষয়ে বরুণ জানায়, যেসব সদস্যের ডিপিএসের মেয়াদ পূর্ণ হয়েছে তাদের টাকা দেয়া হয়েছে। ওসি এজাজ শফী জানান, বরুণকে জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন