ভারতীয় চালের তৃতীয় চালানের খালাস চলছে
jugantor
ভারতীয় চালের তৃতীয় চালানের খালাস চলছে

  চট্টগ্রাম ব্যুরো  

২৩ জানুয়ারি ২০২১, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

বাজার নিয়ন্ত্রণে ভারত থেকে আমদানি করা চালের তৃতীয় চালান জাহাজ থেকে খালাস শুরু হয়েছে। বুধবার বিকাল খেকে খালাসের কার্যক্রম শুরু হয় এবং শুক্রবার দুপুর পর্যন্ত প্রায় ৪ হাজার ৬০০ টন খালাস হয়েছে। তৃতীয় চালানের খালাস শেষ হতে আরও সপ্তাহখানিক লাগতে পারে। ভারতীয় চাল আসার পর বাজারও এখন নিুমুখী।

চট্টগ্রাম খাদ্য বিভাগের কর্মকর্তারা জানান, রোববার বিকাল ৫টা ১৫ মিনিটে ভারত থেকে আমদানি করা চালের তৃতীয় চালান ‘এমভি কেরেম’ চট্টগ্রাম বহির্নোঙ্গরে পৌঁছে। এতে চাল রয়েছে প্রায় ১৮ হাজার ৫০০ টন। বুধবার খাদ্য অধিদফতরের প্রতিনিধি, চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসকের প্রতিনিধি ও আঞ্চলিক খাদ্য নিয়ন্ত্রকসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা চালের নমুনা সংগ্রহের পর তা ল্যাবে পরীক্ষা করা হয়। মানউত্তীর্ণ হওয়ার পর খালাস শুরু হয়। এসব চাল দেশের বিভিন্ন কেন্দ্রীয় সাপ্লাই ডিপো-সিএসডি ও গুদামে পাঠানো শুরু হয়েছে।

এর আগে প্রথম ধাপে ২৪ ডিসেম্বর ৪ হাজার ৩০০ টন এবং দ্বিতীয় ধাপে ৫ হাজার ১০০ টন চাল আমদানি করা হয়। প্রথম দুই ধাপের চাল সব নিয়ম মেনে খালাসের পর তা গুদামে চলে গেছে।

ভারতীয় চালের তৃতীয় চালানের খালাস চলছে

 চট্টগ্রাম ব্যুরো 
২৩ জানুয়ারি ২০২১, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

বাজার নিয়ন্ত্রণে ভারত থেকে আমদানি করা চালের তৃতীয় চালান জাহাজ থেকে খালাস শুরু হয়েছে। বুধবার বিকাল খেকে খালাসের কার্যক্রম শুরু হয় এবং শুক্রবার দুপুর পর্যন্ত প্রায় ৪ হাজার ৬০০ টন খালাস হয়েছে। তৃতীয় চালানের খালাস শেষ হতে আরও সপ্তাহখানিক লাগতে পারে। ভারতীয় চাল আসার পর বাজারও এখন নিুমুখী।

চট্টগ্রাম খাদ্য বিভাগের কর্মকর্তারা জানান, রোববার বিকাল ৫টা ১৫ মিনিটে ভারত থেকে আমদানি করা চালের তৃতীয় চালান ‘এমভি কেরেম’ চট্টগ্রাম বহির্নোঙ্গরে পৌঁছে। এতে চাল রয়েছে প্রায় ১৮ হাজার ৫০০ টন। বুধবার খাদ্য অধিদফতরের প্রতিনিধি, চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসকের প্রতিনিধি ও আঞ্চলিক খাদ্য নিয়ন্ত্রকসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা চালের নমুনা সংগ্রহের পর তা ল্যাবে পরীক্ষা করা হয়। মানউত্তীর্ণ হওয়ার পর খালাস শুরু হয়। এসব চাল দেশের বিভিন্ন কেন্দ্রীয় সাপ্লাই ডিপো-সিএসডি ও গুদামে পাঠানো শুরু হয়েছে।

এর আগে প্রথম ধাপে ২৪ ডিসেম্বর ৪ হাজার ৩০০ টন এবং দ্বিতীয় ধাপে ৫ হাজার ১০০ টন চাল আমদানি করা হয়। প্রথম দুই ধাপের চাল সব নিয়ম মেনে খালাসের পর তা গুদামে চলে গেছে।