আশুগঞ্জে ধানি জমি তলিয়ে দিশেহারা কৃষক
jugantor
বিএডিসি বাঁধে ভাঙন
আশুগঞ্জে ধানি জমি তলিয়ে দিশেহারা কৃষক

  আশুগঞ্জ (ব্রাহ্মণবাড়িয়া) প্রতিনিধি  

২৪ ফেব্রুয়ারি ২০২১, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

আশুগঞ্জের সোহাগপুরে বিএডিসির বাঁধ ভেঙে খালের পানিতে তলিয়ে গেছে প্রায় ৭০ থেকে ৮০ একর ধানের জমি। এ ছাড়া পানিতে পুকুর ভেসে যাওয়ায় ক্ষতি হয়েছে লাখ লাখ টাকার মাছ। এতে দিশেহারা হয়ে পড়েছেন শতাধিক কৃষক।

আশুগঞ্জ বিএডিসি অফিস জানায়, মঙ্গলবার বেলা আড়াইটার দিকে ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের আশুগঞ্জ উপজেলার সোহাগপুর গ্রামের আব্বাস উদ্দিন খান সড়কের কাছে মাটির বাঁধ ভেঙে যায়। খবর পেয়ে আশুগঞ্জ বিএডিসির লোকজন প্রধান স্লুইস গেট বন্ধ করে দেয়। ততক্ষণে তলিয়ে যায় ৭০-৮০ একর সদ্য লাগানো ধানের জমি। ক্ষতিগ্রস্ত কৃষক জামাল চৌধুরী বলেন, ‘আমার কৃষি জমিসহ পুকুরের অন্তত ৬-৭ লাখ টাকার মাছ পানিতে ভেসে গেছে। আমি এখন নিঃস্ব হয়ে পড়েছি। পরিবার-পরিজন নিয়ে রাস্তায় নামা ছাড়া গতি নেই।’ সরকারের কাছে ক্ষতিপূরণ দাবি করেন তিনি।

আশুগঞ্জ বিএডিসির সহকারী প্রকৌশলী মোহাম্মদ খলিলুর রহমান বলেন, ইতোমধ্যে ক্ষতিগ্রস্ত অংশ মেরামত করার কাজ শুরু হয়েছে। আশা করছি, বুধবারের মধ্যে মেরামত শেষ করে পানি প্রবাহ স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরিয়ে আনতে পারব।

ক্ষতিগ্রস্ত কৃষক আবুল কাশেম বলেন, ফোর লেনের কাজ করছে ভারতীয় ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান। তারা বিএডিসির ড্রেনে মাটি ভরাট করায় পানি সরবরাহের পথ সরু হয়ে বাঁধ ভেঙে গেছে। ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন আশুগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা অরবিন্দ বিশ্বাস। তিনি বলেন, কৃষকদের ক্ষতিপূরণের ব্যাপারে জেলা প্রশাসকের সঙ্গে আলোচনা করবেন।

বিএডিসি বাঁধে ভাঙন

আশুগঞ্জে ধানি জমি তলিয়ে দিশেহারা কৃষক

 আশুগঞ্জ (ব্রাহ্মণবাড়িয়া) প্রতিনিধি 
২৪ ফেব্রুয়ারি ২০২১, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

আশুগঞ্জের সোহাগপুরে বিএডিসির বাঁধ ভেঙে খালের পানিতে তলিয়ে গেছে প্রায় ৭০ থেকে ৮০ একর ধানের জমি। এ ছাড়া পানিতে পুকুর ভেসে যাওয়ায় ক্ষতি হয়েছে লাখ লাখ টাকার মাছ। এতে দিশেহারা হয়ে পড়েছেন শতাধিক কৃষক।

আশুগঞ্জ বিএডিসি অফিস জানায়, মঙ্গলবার বেলা আড়াইটার দিকে ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের আশুগঞ্জ উপজেলার সোহাগপুর গ্রামের আব্বাস উদ্দিন খান সড়কের কাছে মাটির বাঁধ ভেঙে যায়। খবর পেয়ে আশুগঞ্জ বিএডিসির লোকজন প্রধান স্লুইস গেট বন্ধ করে দেয়। ততক্ষণে তলিয়ে যায় ৭০-৮০ একর সদ্য লাগানো ধানের জমি। ক্ষতিগ্রস্ত কৃষক জামাল চৌধুরী বলেন, ‘আমার কৃষি জমিসহ পুকুরের অন্তত ৬-৭ লাখ টাকার মাছ পানিতে ভেসে গেছে। আমি এখন নিঃস্ব হয়ে পড়েছি। পরিবার-পরিজন নিয়ে রাস্তায় নামা ছাড়া গতি নেই।’ সরকারের কাছে ক্ষতিপূরণ দাবি করেন তিনি।

আশুগঞ্জ বিএডিসির সহকারী প্রকৌশলী মোহাম্মদ খলিলুর রহমান বলেন, ইতোমধ্যে ক্ষতিগ্রস্ত অংশ মেরামত করার কাজ শুরু হয়েছে। আশা করছি, বুধবারের মধ্যে মেরামত শেষ করে পানি প্রবাহ স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরিয়ে আনতে পারব।

ক্ষতিগ্রস্ত কৃষক আবুল কাশেম বলেন, ফোর লেনের কাজ করছে ভারতীয় ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান। তারা বিএডিসির ড্রেনে মাটি ভরাট করায় পানি সরবরাহের পথ সরু হয়ে বাঁধ ভেঙে গেছে। ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন আশুগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা অরবিন্দ বিশ্বাস। তিনি বলেন, কৃষকদের ক্ষতিপূরণের ব্যাপারে জেলা প্রশাসকের সঙ্গে আলোচনা করবেন।