মামুনুল হকের শ্বশুরকে কারণ দর্শানোর নোটিশ
jugantor
মামুনুল হকের শ্বশুরকে কারণ দর্শানোর নোটিশ

  যুগান্তর ডেস্ক  

১৪ এপ্রিল ২০২১, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

হেফাজতে ইসলামের নেতা মাওলানা মামুনুল হকের কথিত দ্বিতীয় স্ত্রী ঝর্ণার বাবা ওলিয়ার রহমানকে কারণ দর্শানোর নোটিশ দিয়েছে স্থানীয় আওয়ামী লীগ। তিনি ২নং গোপালপুর ইউনিয়নের ৪নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি।

এদিকে ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় হেফাজতের বিক্ষোভ চলাকালে হামলা, ভাঙচুর ও আগুনের ঘটনায় নতুন করে আরও ৬০ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জে হেফাজতের হরতালে সহিংসতার ঘটনায় গ্রেফতার হয়েছে এক জামায়াত নেতা। যুগান্তর প্রতিবেদন ও প্রতিনিধিদের পাঠানো খবর-

ফরিদপুর : আলফাডাঙ্গা উপজেলার গোপালপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি মো. মোনায়েম খান ও সাধারণ সম্পাদক মো. ফরিদ উদ্দিন স্বাক্ষরিত চিঠিতে বলা হয়, ‘সর্বাধিক সমালোচিত আপনার মেজ মেয়ে জান্নাত আরা ঝর্ণার কথিত স্বামী মো. মামুনুল হকসহ সবাই উগ্রপন্থী ইসলামী সংগঠনের সঙ্গে জড়িত। আপনার মেয়ে জান্নাত আরা ঝর্ণা অবৈধ কার্যকলাপে লিপ্ত। এমনকি আরও জানা যায় যে, আপনার স্ত্রীও জামায়াতপন্থী।’

বীর মুক্তিযোদ্ধা ও গোপালপুর ইউনিয়নের ৪নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি ওলিয়ার রহমানকে ১২ এপ্রিল এ নোটিশ পাঠানো হয়। হেফাজতে ইসলামের সঙ্গে পারিবারিক সংশ্লিষ্টতার বিষয় কখনো দলীয় নেতাদের জানাননি ওয়ালিয়ার রহমান। তাই তার মাধ্যমে আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক কর্মপরিকল্পনা প্রকাশ হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে বলে নোটিশে উল্লেখ করা হয়। নোটিশে ওয়ালিয়ার রহমানকে কেন ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি পদ থেকে সাময়িকভাবে বহিষ্কার করা হবে না, তার স্বপক্ষে আগামী সাত কর্মদিবসের মধ্যে সন্তোষজনক জবাব দেওয়ার অনুরোধ করা হয়।

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় গ্রেফতার ৬০ : ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় হেফাজতে ইসলামের বিক্ষোভ চলাকালে হামলা, ভাঙচুর ও অগ্নিসংযোগের ঘটনায় আরও ৬০ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। সোমবার বিভিন্ন এলাকা থেকে তাদের গ্রেফতার করা হয়। এ ঘটনায় হওয়া মামলায় এখন পর্যন্ত ১৬৮ জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। গ্রেফতারদের মধ্যে ১৬ জনের নাম জানা গেছে। তারা হলেন-নবীনগর উপজেলা বিএনপির সদস্য সফিউল্লাহ মিয়া, ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর উপজেলা ছাত্রদলের সাবেক আহ্বায়ক শিমরাইলকান্দির বাসিন্দা কামরুল হাসান, ছাত্রদলের সদস্য শহরের বণিকপাড়ার বাসিন্দা পলাশ, হেফাজতের সমর্থক পৌর এলাকার ফুল মিয়া, নয়নপুর এলাকার রফিকুল ইসলাম, পুনিয়াউট উত্তরপাড়ার মো. মেরাজ ও মো. আশিক, পুনিয়াউটের জুনাইদ, পশ্চিম মেড্ডার দুলাল মিয়া, সদর উপজেলার বিহাইর এলাকার শাহজাহান মিয়া, সোহাতা গ্রামের রাকিবুল হাসান, বিরাসার দক্ষিণপাড়ার শামীম, সুজন ও রবিন মিয়া, নাসিরনগর উপজেলার ধরমন্ডলের দুলাল মিয়া ও শহরের মধ্যপাড়ার বাসিন্দা জামায়াতকর্মী লিয়াকত আলী।

গ্রেফতারদের মঙ্গলবার জেলা আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

সিদ্ধিরগঞ্জে জামায়াত নেতা গ্রেফতার : নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জে হেফাজতে ইসলামের হরতালে সহিংসতার ঘটনায় করা মামলায় জামায়াত নেতা আব্দুল্লাহ আল বাকিকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। সোমবার রাতে সিদ্ধিরগঞ্জের নয়আটি মুক্তিনগরে নিজ বাসা থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। তিনি জামায়াতে ইসলামী নারায়ণগঞ্জ জেলা শাখার রোকন ও মানবসম্পদ বিভাগের দায়িত্বরত।

রূপগঞ্জে ৭ লাখ টাকার মালামাল নিয়ে হেফাজত নেতা উধাও : নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জে ৭ লাখ টাকার থ্রি-পিস নিয়ে এক হেফাজত নেতা উধাও হয়ে গেছে বলে জানা গেছে। তার বাড়ি আড়াইহাজার উপজেলার রসুলবাগ এলাকায়। অভিযোগকারী আজগর হোসেন জানান, তিনি নরসিংদীর মাধবদী থানার পাঁচদোনা এলাকার বাসিন্দা। তিনি উপজেলা গাউছিয়া মার্কেটের দ্বিতীয় তলায় ১০৪ নং দোকানটি হেফাজত নেতা হাফেজ মাওলানা আবুল কালাম আজাদের সঙ্গে যৌথভাবে ভাড়া নিয়ে ব্যবসা করে আসছিলেন। পূর্ব দ্বন্দ্বের জের ধরে দোকানটি চার মাস ধরে বন্ধ ছিল। এ অবস্থায় সোমবার আবুল কালাম আজাদ স্থানীয় হেফাজত নেতাদের শেল্টারে দোকান খুলে ৯৭০টি থ্রি-পিস নিয়ে উধাও হয়ে যায়। যার বাজার মূল্য ৭ লাখ আটাশ হাজার টাকা।

মামুনুল হকের শ্বশুরকে কারণ দর্শানোর নোটিশ

 যুগান্তর ডেস্ক 
১৪ এপ্রিল ২০২১, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

হেফাজতে ইসলামের নেতা মাওলানা মামুনুল হকের কথিত দ্বিতীয় স্ত্রী ঝর্ণার বাবা ওলিয়ার রহমানকে কারণ দর্শানোর নোটিশ দিয়েছে স্থানীয় আওয়ামী লীগ। তিনি ২নং গোপালপুর ইউনিয়নের ৪নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি।

এদিকে ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় হেফাজতের বিক্ষোভ চলাকালে হামলা, ভাঙচুর ও আগুনের ঘটনায় নতুন করে আরও ৬০ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জে হেফাজতের হরতালে সহিংসতার ঘটনায় গ্রেফতার হয়েছে এক জামায়াত নেতা। যুগান্তর প্রতিবেদন ও প্রতিনিধিদের পাঠানো খবর-

ফরিদপুর : আলফাডাঙ্গা উপজেলার গোপালপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি মো. মোনায়েম খান ও সাধারণ সম্পাদক মো. ফরিদ উদ্দিন স্বাক্ষরিত চিঠিতে বলা হয়, ‘সর্বাধিক সমালোচিত আপনার মেজ মেয়ে জান্নাত আরা ঝর্ণার কথিত স্বামী মো. মামুনুল হকসহ সবাই উগ্রপন্থী ইসলামী সংগঠনের সঙ্গে জড়িত। আপনার মেয়ে জান্নাত আরা ঝর্ণা অবৈধ কার্যকলাপে লিপ্ত। এমনকি আরও জানা যায় যে, আপনার স্ত্রীও জামায়াতপন্থী।’

বীর মুক্তিযোদ্ধা ও গোপালপুর ইউনিয়নের ৪নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি ওলিয়ার রহমানকে ১২ এপ্রিল এ নোটিশ পাঠানো হয়। হেফাজতে ইসলামের সঙ্গে পারিবারিক সংশ্লিষ্টতার বিষয় কখনো দলীয় নেতাদের জানাননি ওয়ালিয়ার রহমান। তাই তার মাধ্যমে আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক কর্মপরিকল্পনা প্রকাশ হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে বলে নোটিশে উল্লেখ করা হয়। নোটিশে ওয়ালিয়ার রহমানকে কেন ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি পদ থেকে সাময়িকভাবে বহিষ্কার করা হবে না, তার স্বপক্ষে আগামী সাত কর্মদিবসের মধ্যে সন্তোষজনক জবাব দেওয়ার অনুরোধ করা হয়।

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় গ্রেফতার ৬০ : ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় হেফাজতে ইসলামের বিক্ষোভ চলাকালে হামলা, ভাঙচুর ও অগ্নিসংযোগের ঘটনায় আরও ৬০ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। সোমবার বিভিন্ন এলাকা থেকে তাদের গ্রেফতার করা হয়। এ ঘটনায় হওয়া মামলায় এখন পর্যন্ত ১৬৮ জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। গ্রেফতারদের মধ্যে ১৬ জনের নাম জানা গেছে। তারা হলেন-নবীনগর উপজেলা বিএনপির সদস্য সফিউল্লাহ মিয়া, ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর উপজেলা ছাত্রদলের সাবেক আহ্বায়ক শিমরাইলকান্দির বাসিন্দা কামরুল হাসান, ছাত্রদলের সদস্য শহরের বণিকপাড়ার বাসিন্দা পলাশ, হেফাজতের সমর্থক পৌর এলাকার ফুল মিয়া, নয়নপুর এলাকার রফিকুল ইসলাম, পুনিয়াউট উত্তরপাড়ার মো. মেরাজ ও মো. আশিক, পুনিয়াউটের জুনাইদ, পশ্চিম মেড্ডার দুলাল মিয়া, সদর উপজেলার বিহাইর এলাকার শাহজাহান মিয়া, সোহাতা গ্রামের রাকিবুল হাসান, বিরাসার দক্ষিণপাড়ার শামীম, সুজন ও রবিন মিয়া, নাসিরনগর উপজেলার ধরমন্ডলের দুলাল মিয়া ও শহরের মধ্যপাড়ার বাসিন্দা জামায়াতকর্মী লিয়াকত আলী।

গ্রেফতারদের মঙ্গলবার জেলা আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

সিদ্ধিরগঞ্জে জামায়াত নেতা গ্রেফতার : নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জে হেফাজতে ইসলামের হরতালে সহিংসতার ঘটনায় করা মামলায় জামায়াত নেতা আব্দুল্লাহ আল বাকিকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। সোমবার রাতে সিদ্ধিরগঞ্জের নয়আটি মুক্তিনগরে নিজ বাসা থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। তিনি জামায়াতে ইসলামী নারায়ণগঞ্জ জেলা শাখার রোকন ও মানবসম্পদ বিভাগের দায়িত্বরত।

রূপগঞ্জে ৭ লাখ টাকার মালামাল নিয়ে হেফাজত নেতা উধাও : নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জে ৭ লাখ টাকার থ্রি-পিস নিয়ে এক হেফাজত নেতা উধাও হয়ে গেছে বলে জানা গেছে। তার বাড়ি আড়াইহাজার উপজেলার রসুলবাগ এলাকায়। অভিযোগকারী আজগর হোসেন জানান, তিনি নরসিংদীর মাধবদী থানার পাঁচদোনা এলাকার বাসিন্দা। তিনি উপজেলা গাউছিয়া মার্কেটের দ্বিতীয় তলায় ১০৪ নং দোকানটি হেফাজত নেতা হাফেজ মাওলানা আবুল কালাম আজাদের সঙ্গে যৌথভাবে ভাড়া নিয়ে ব্যবসা করে আসছিলেন। পূর্ব দ্বন্দ্বের জের ধরে দোকানটি চার মাস ধরে বন্ধ ছিল। এ অবস্থায় সোমবার আবুল কালাম আজাদ স্থানীয় হেফাজত নেতাদের শেল্টারে দোকান খুলে ৯৭০টি থ্রি-পিস নিয়ে উধাও হয়ে যায়। যার বাজার মূল্য ৭ লাখ আটাশ হাজার টাকা।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন