প্রতিবাদে ছাতকে অনির্দিষ্টকালের নৌপথ অবরোধ
jugantor
খোলাবাজারে চুনাপাথর বিক্রি
প্রতিবাদে ছাতকে অনির্দিষ্টকালের নৌপথ অবরোধ

  সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি  

১৪ এপ্রিল ২০২১, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

ভারত থেকে শিল্প কোটায় আমদানি করা চুনাপাথর ক্রাশিং করে খোলাবাজারে বিক্রির প্রতিবাদে ছাতকে অনির্দিষ্টকালের জন্য নৌপথ অবরোধ কর্মসূচি পালিত হচ্ছে। মঙ্গলবার ভোর ৬টা থেকে ছাতক ব্যবসায়ী-শ্রমিক ঐক্য পরিষদের ব্যানারে এই কর্মসূচি চলছে। এর ফলে পণ্যবাহী কার্গো, বার্জ, বাল্কহেডসহ পাঁচ শতাধিক নৌযান ছাতকের বিভিন্ন ঘাটে আটকা পড়েছে। মালামাল বোঝাই অনেক নৌযান গন্তব্যের উদ্দেশে ছেড়ে যেতে না পরায় ভোগান্তিতে পড়েছেন নৌযান শ্রমিক ও ব্যবসায়ীরা।

ছাতক ব্যবসায়ী-শ্রমিক ঐক্য পরিষদের আহ্বায়ক আহমদ শাখাওয়াত সেলিম চৌধুরী বলেন, যুগের পর যুগ চুনাপাথর ব্যবসা করে ব্যাপক কর্মসংস্থান সৃষ্টি করে অর্থনীতির উন্নয়নের ইতিবাচক ভূমিকা রাখার পাশাপাশি প্রতি বছর সরকারকে মোটা অঙ্কের কর দিয়ে আসছি আমরা। কিন্তু লাফার্জের কারণে এখন আর প্রতিযোগিতায় টিকে থাকা সম্ভব হচ্ছে না। ইতোমধ্যে সিলেট বিভাগের প্রায় পাঁচ শাতাধিক পাথর ভাঙার ক্রাশার মেশিন বন্ধ হয়ে গেছে। লাফার্জ-হোলসিম কর্তৃপক্ষ যতক্ষণ পর্যন্ত খোলাবাজারে চুনাপাথর বিক্রি বন্ধ না করবে ততক্ষণ পর্যন্ত অবরোধ কর্মসূচি চলবে।

অভিযোগের ব্যাপারে লাফার্জ হোলসিম বাংলাদেশের এক্সটার্নাল কমিউনিকেশনস ম্যানেজার তৌহিদুল ইসলাম বলেন, বাংলাদেশ ও ভারত সরকারের প্রয়োজনীয় সব সংস্থার অনুমতি নিয়েই ক্লিয়ার সাইজ অ্যাগ্রিগেটস ব্যবসা পরিচালনা করছে লাফার্জ হোলসিম বাংলাদেশ। স্থানীয় ব্যবসায়ী শ্রমিক ঐক্য পরিষদ লাফার্জ হোলসিম বাংলাদেশের অ্যাগ্রিগেটস ব্যবসাকে অবৈধ বলে যে তথ্য ছড়াচ্ছেন তা সম্পূর্ণ মিথ্যা এবং ভিত্তিহীন।

খোলাবাজারে চুনাপাথর বিক্রি

প্রতিবাদে ছাতকে অনির্দিষ্টকালের নৌপথ অবরোধ

 সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি 
১৪ এপ্রিল ২০২১, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

ভারত থেকে শিল্প কোটায় আমদানি করা চুনাপাথর ক্রাশিং করে খোলাবাজারে বিক্রির প্রতিবাদে ছাতকে অনির্দিষ্টকালের জন্য নৌপথ অবরোধ কর্মসূচি পালিত হচ্ছে। মঙ্গলবার ভোর ৬টা থেকে ছাতক ব্যবসায়ী-শ্রমিক ঐক্য পরিষদের ব্যানারে এই কর্মসূচি চলছে। এর ফলে পণ্যবাহী কার্গো, বার্জ, বাল্কহেডসহ পাঁচ শতাধিক নৌযান ছাতকের বিভিন্ন ঘাটে আটকা পড়েছে। মালামাল বোঝাই অনেক নৌযান গন্তব্যের উদ্দেশে ছেড়ে যেতে না পরায় ভোগান্তিতে পড়েছেন নৌযান শ্রমিক ও ব্যবসায়ীরা।

ছাতক ব্যবসায়ী-শ্রমিক ঐক্য পরিষদের আহ্বায়ক আহমদ শাখাওয়াত সেলিম চৌধুরী বলেন, যুগের পর যুগ চুনাপাথর ব্যবসা করে ব্যাপক কর্মসংস্থান সৃষ্টি করে অর্থনীতির উন্নয়নের ইতিবাচক ভূমিকা রাখার পাশাপাশি প্রতি বছর সরকারকে মোটা অঙ্কের কর দিয়ে আসছি আমরা। কিন্তু লাফার্জের কারণে এখন আর প্রতিযোগিতায় টিকে থাকা সম্ভব হচ্ছে না। ইতোমধ্যে সিলেট বিভাগের প্রায় পাঁচ শাতাধিক পাথর ভাঙার ক্রাশার মেশিন বন্ধ হয়ে গেছে। লাফার্জ-হোলসিম কর্তৃপক্ষ যতক্ষণ পর্যন্ত খোলাবাজারে চুনাপাথর বিক্রি বন্ধ না করবে ততক্ষণ পর্যন্ত অবরোধ কর্মসূচি চলবে।

অভিযোগের ব্যাপারে লাফার্জ হোলসিম বাংলাদেশের এক্সটার্নাল কমিউনিকেশনস ম্যানেজার তৌহিদুল ইসলাম বলেন, বাংলাদেশ ও ভারত সরকারের প্রয়োজনীয় সব সংস্থার অনুমতি নিয়েই ক্লিয়ার সাইজ অ্যাগ্রিগেটস ব্যবসা পরিচালনা করছে লাফার্জ হোলসিম বাংলাদেশ। স্থানীয় ব্যবসায়ী শ্রমিক ঐক্য পরিষদ লাফার্জ হোলসিম বাংলাদেশের অ্যাগ্রিগেটস ব্যবসাকে অবৈধ বলে যে তথ্য ছড়াচ্ছেন তা সম্পূর্ণ মিথ্যা এবং ভিত্তিহীন।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন