ফেনীতে বাড়ির ছাদে মিলল শিশুর গলাকাটা লাশ
jugantor
ফেনীতে বাড়ির ছাদে মিলল শিশুর গলাকাটা লাশ

  ফেনী প্রতিনিধি  

০৮ মে ২০২১, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

জন্মদিনের পরদিনই নিজ বাড়ির ছাদ থেকে তানিসা ইসলাম (১১) নামে এক শিশুর গলাকাটা লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। ফেনী সদর উপজেলার কালিদহ ইউনিয়নের মাইজবাড়িয়া গ্রামে বৃহস্পতিবার রাতে এ ঘটনা ঘটে। তানিসা ওই গ্রামের সৌদি প্রবাসী শহিদুল ইসলামের মেয়ে। শহরের ডাক্তারপাড়া মহিউচ্ছুন্নাহ মাদ্রাসার ষষ্ঠ শ্রেণির শিক্ষার্থী ছিল সে। এ ঘটনায় জড়িত অভিযোগে নিহতের চাচাতো ভাই স্থানীয় মাদ্রাসার অষ্টম শ্রেণির ছাত্র হোসেন নিশানকে আটক করেছে পুলিশ।

ফেনী জেলা গোয়েন্দা শাখার ওসি এনএম নুরুজ্জামান জানান, নিশানের দেওয়া তথ্য মতে পুলিশ হত্যাকাণ্ডে ব্যবহৃত রক্তমাখা ছুরি উদ্ধার করেছে। শুক্রবার দুপুরে ময়নাতদন্ত শেষে লাশ গ্রামের বাড়িতে নিয়ে গেলে শোকের মাতম দেখা দেয়। মেয়ের এমন মৃত্যু মেনে নিতে পারছেন না মা। আত্মীয়-স্বজনের কান্নায় যেন চারদিক ভারি হয়ে উঠে। নির্মম এ হত্যাকাণ্ডের খবর পেয়ে জেলার শীর্ষ পুলিশ কর্মকর্তাদের নিয়ে ঘটনাস্থলে ছুটে যান পুলিশ সুপার খোন্দকার নুরুন্নবী। ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে তিনি সাংবাদিকদের বলেন, খুনের কারণ এখনই বলা সম্ভব নয়। এ নিয়ে সিআইডি ও পিবিআই কাজ করছে। আমরা বেশ কিছু তথ্য ও আলামত সংগ্রহ করেছি। নিশান নামে একজনকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করা হয়েছে। কম সময়েই এই খুনের রহস্য উদ্ধার হবে বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন।

স্থানীয়দের ধারণা, ডাকাতি করতে এসে দুর্বৃত্তরা এমন ঘটনা ঘটিয়েছে। ফেনী মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নিজাম উদ্দিন জানান, নিহত শিশুর গলায় ধারালো অস্ত্রের আঘাত ও রশি পেঁচানো ছিল। এ ঘটনায় মামলার প্রস্তুতি চলছে।

ফেনীতে বাড়ির ছাদে মিলল শিশুর গলাকাটা লাশ

 ফেনী প্রতিনিধি 
০৮ মে ২০২১, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

জন্মদিনের পরদিনই নিজ বাড়ির ছাদ থেকে তানিসা ইসলাম (১১) নামে এক শিশুর গলাকাটা লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। ফেনী সদর উপজেলার কালিদহ ইউনিয়নের মাইজবাড়িয়া গ্রামে বৃহস্পতিবার রাতে এ ঘটনা ঘটে। তানিসা ওই গ্রামের সৌদি প্রবাসী শহিদুল ইসলামের মেয়ে। শহরের ডাক্তারপাড়া মহিউচ্ছুন্নাহ মাদ্রাসার ষষ্ঠ শ্রেণির শিক্ষার্থী ছিল সে। এ ঘটনায় জড়িত অভিযোগে নিহতের চাচাতো ভাই স্থানীয় মাদ্রাসার অষ্টম শ্রেণির ছাত্র হোসেন নিশানকে আটক করেছে পুলিশ।

ফেনী জেলা গোয়েন্দা শাখার ওসি এনএম নুরুজ্জামান জানান, নিশানের দেওয়া তথ্য মতে পুলিশ হত্যাকাণ্ডে ব্যবহৃত রক্তমাখা ছুরি উদ্ধার করেছে। শুক্রবার দুপুরে ময়নাতদন্ত শেষে লাশ গ্রামের বাড়িতে নিয়ে গেলে শোকের মাতম দেখা দেয়। মেয়ের এমন মৃত্যু মেনে নিতে পারছেন না মা। আত্মীয়-স্বজনের কান্নায় যেন চারদিক ভারি হয়ে উঠে। নির্মম এ হত্যাকাণ্ডের খবর পেয়ে জেলার শীর্ষ পুলিশ কর্মকর্তাদের নিয়ে ঘটনাস্থলে ছুটে যান পুলিশ সুপার খোন্দকার নুরুন্নবী। ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে তিনি সাংবাদিকদের বলেন, খুনের কারণ এখনই বলা সম্ভব নয়। এ নিয়ে সিআইডি ও পিবিআই কাজ করছে। আমরা বেশ কিছু তথ্য ও আলামত সংগ্রহ করেছি। নিশান নামে একজনকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করা হয়েছে। কম সময়েই এই খুনের রহস্য উদ্ধার হবে বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন।

স্থানীয়দের ধারণা, ডাকাতি করতে এসে দুর্বৃত্তরা এমন ঘটনা ঘটিয়েছে। ফেনী মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নিজাম উদ্দিন জানান, নিহত শিশুর গলায় ধারালো অস্ত্রের আঘাত ও রশি পেঁচানো ছিল। এ ঘটনায় মামলার প্রস্তুতি চলছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন