ফেরিতে মৃত ৫ জনের লাশ হস্তান্তর
jugantor
ফেরিতে মৃত ৫ জনের লাশ হস্তান্তর

  টেকেরহাট (মাদারীপুর) প্রতিনিধি  

১৭ মে ২০২১, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

বাংলাবাজার-শিমুলিয়া নৌপথে ফেরিতে পদদলিত হয়ে মৃত পাঁচজনের লাশ স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার সকালে পিরোজপুর জেলার নেছারাবাদ উপজেলার আরামকাঠি এলাকার আবদুল জব্বারের ছেলে শরিফুল ইসলামের লাশ তার পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়।

এ ছাড়া বুধবার গোপালগঞ্জের কাশিয়ানী উপজেলার পদ্মবিলা এলাকার মজিবর রহমানের স্ত্রী শিল্পী বেগম, মাদারীপুরের কালকিনি উপজেলার বালিগ্রামের আলামিন বেপারির স্ত্রী নীপা আক্তার, বরিশালের মুলাদী উপজেলার চরকালিখান এলাকার এছহাক আকনের ছেলে নূরুদ্দিন আকন এবং শরীয়তপুর জেলার নড়িয়ার কালিকা প্রসাদ গ্রামের গিয়াসউদ্দিন মাদবরের ছেলে আনছার মাদবরের লাশ হস্তান্তর করা হয়। জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে লাশ পরিবহণ ও দাফন-কাফনের জন্য প্রত্যেক পরিবারকে ২০ হাজার টাকা করে দিয়েছেন জেলা প্রশাসক ড. রহিমা খাতুন।

শিবচর থানার ওসি মো. মিরাজ হোসেন বলেন, ‘ফেরির মধ্যে প্রচণ্ড গরম ও গাদাগাদি করে যাত্রীরা অবস্থান করায় এবং মানুষের ভিড়ে তাড়াহুড়ো করে ফেরি থেকে নামতে গিয়ে দুর্ঘটনা ঘটে। মৃত ৫ জনের শিশু ১, নারী ২ ও পুরুষ ২ জন। যার মধ্যে বুধবার চারজন এবং বৃহস্পতিবার সকালে একজনের পরিচয় পাওয়া গেছে। মাদারীপুর জেলা প্রশাসক ড. রহিমা খাতুন বলেন, ফেরিতে দুর্ঘটনায় মারা যাওয়া প্রত্যেক পরিবারের কাছে লাশ পরিবহণ ও দাফন-কাফনের জন্য জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে ২০ হাজার টাকা করে দেওয়া হয়েছে। উল্লেখ্য, বুধবার সকালে মুন্সীগঞ্জের শিমুলিয়া ছেড়ে আসে শাহপরাণ নামে একটি ফেরি। অতিরিক্ত যাত্রীর কারণে পদদলিত হয়ে মাঝপদ্মায় মারা যায় এক শিশু। দুপুরে শিমুলিয়া থেকে বাংলাবাজার ঘাটের উদ্দেশে ছেড়ে আসে ফেরি এনায়েতপুরী। বাংলাবাজার ঘাটে হুড়োহুড়ি করে নামতে গিয়ে পদদলিত হয়ে মারা যায় আর চারজন।

ফেরিতে মৃত ৫ জনের লাশ হস্তান্তর

 টেকেরহাট (মাদারীপুর) প্রতিনিধি 
১৭ মে ২০২১, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

বাংলাবাজার-শিমুলিয়া নৌপথে ফেরিতে পদদলিত হয়ে মৃত পাঁচজনের লাশ স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার সকালে পিরোজপুর জেলার নেছারাবাদ উপজেলার আরামকাঠি এলাকার আবদুল জব্বারের ছেলে শরিফুল ইসলামের লাশ তার পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়।

এ ছাড়া বুধবার গোপালগঞ্জের কাশিয়ানী উপজেলার পদ্মবিলা এলাকার মজিবর রহমানের স্ত্রী শিল্পী বেগম, মাদারীপুরের কালকিনি উপজেলার বালিগ্রামের আলামিন বেপারির স্ত্রী নীপা আক্তার, বরিশালের মুলাদী উপজেলার চরকালিখান এলাকার এছহাক আকনের ছেলে নূরুদ্দিন আকন এবং শরীয়তপুর জেলার নড়িয়ার কালিকা প্রসাদ গ্রামের গিয়াসউদ্দিন মাদবরের ছেলে আনছার মাদবরের লাশ হস্তান্তর করা হয়। জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে লাশ পরিবহণ ও দাফন-কাফনের জন্য প্রত্যেক পরিবারকে ২০ হাজার টাকা করে দিয়েছেন জেলা প্রশাসক ড. রহিমা খাতুন।

শিবচর থানার ওসি মো. মিরাজ হোসেন বলেন, ‘ফেরির মধ্যে প্রচণ্ড গরম ও গাদাগাদি করে যাত্রীরা অবস্থান করায় এবং মানুষের ভিড়ে তাড়াহুড়ো করে ফেরি থেকে নামতে গিয়ে দুর্ঘটনা ঘটে। মৃত ৫ জনের শিশু ১, নারী ২ ও পুরুষ ২ জন। যার মধ্যে বুধবার চারজন এবং বৃহস্পতিবার সকালে একজনের পরিচয় পাওয়া গেছে। মাদারীপুর জেলা প্রশাসক ড. রহিমা খাতুন বলেন, ফেরিতে দুর্ঘটনায় মারা যাওয়া প্রত্যেক পরিবারের কাছে লাশ পরিবহণ ও দাফন-কাফনের জন্য জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে ২০ হাজার টাকা করে দেওয়া হয়েছে। উল্লেখ্য, বুধবার সকালে মুন্সীগঞ্জের শিমুলিয়া ছেড়ে আসে শাহপরাণ নামে একটি ফেরি। অতিরিক্ত যাত্রীর কারণে পদদলিত হয়ে মাঝপদ্মায় মারা যায় এক শিশু। দুপুরে শিমুলিয়া থেকে বাংলাবাজার ঘাটের উদ্দেশে ছেড়ে আসে ফেরি এনায়েতপুরী। বাংলাবাজার ঘাটে হুড়োহুড়ি করে নামতে গিয়ে পদদলিত হয়ে মারা যায় আর চারজন।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন