হাতিয়ায় মেয়েকে কুপিয়ে হত্যা, সৎমা কারাগারে
jugantor
হাতিয়ায় মেয়েকে কুপিয়ে হত্যা, সৎমা কারাগারে

  নোয়াখালী প্রতিনিধি  

৩০ মে ২০২১, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

নোয়াখালীর হাতিয়া উপজেলার হরনী ইউনিয়নে পারিবারিক কলহের জেরে মেয়েকে কুপিয়ে হত্যার অভিযোগে সৎমাকে কারাগারে পাঠিয়েছেন আদালত। গ্রেফতার খালেদা আক্তার হরনী ইউনিয়নের ৪ নম্বর ওয়ার্ডের আবুল কাশেমের স্ত্রী। নিহত শাবনূর বেগম (১২) স্থানীয় দক্ষিণ আদর্শ গ্রাম সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের চতুর্থ শ্রেণির ছাত্রী ছিল।

শুক্রবার রাতে হাতিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আবুল খায়ের বলেন, বুধবার এ ঘটনায় নিহতের বাবা তার দ্বিতীয় স্ত্রী খালেদা আক্তারকে প্রধান আসামি করে হত্যা মামলা করেছেন। এই মামলায় বৃহস্পতিবার বিকালে তাকে গ্রেফতার দেখিয়ে বিচারিক আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়।

ওসি আবুল খায়ের বলেন, ২৫ মে বেলা দেড়টার দিকে নিখোঁজের ১২ ঘণ্টা পর পুলিশ উপজেলার দক্ষিণ আদর্শ গ্রাম সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পেছনের একটি ঝোপ থেকে স্কুলছাত্রীর লাশ উদ্ধার করে এবং একই সঙ্গে তার সৎমাকে আটক করে পুলিশ। নিহতের বাবা জানান, ১২ বছর আগে সন্তান প্রসবের সময় তার প্রথম স্ত্রী মারা যায়।

হাতিয়া মোর্শেদবাজার তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ পুলিশ পরিদর্শক মো. হেলাল উদ্দিন জানান, পারিবারিক কলহের জেরে শাবনূরকে মাথায়, মুখে, ঘাড়ে ও কানে দা দিয়ে কুপিয়ে এবং পিটিয়ে হত্যা করে ঝোপে লাশ ফেলে দেয় সৎমা।

হাতিয়ায় মেয়েকে কুপিয়ে হত্যা, সৎমা কারাগারে

 নোয়াখালী প্রতিনিধি 
৩০ মে ২০২১, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

নোয়াখালীর হাতিয়া উপজেলার হরনী ইউনিয়নে পারিবারিক কলহের জেরে মেয়েকে কুপিয়ে হত্যার অভিযোগে সৎমাকে কারাগারে পাঠিয়েছেন আদালত। গ্রেফতার খালেদা আক্তার হরনী ইউনিয়নের ৪ নম্বর ওয়ার্ডের আবুল কাশেমের স্ত্রী। নিহত শাবনূর বেগম (১২) স্থানীয় দক্ষিণ আদর্শ গ্রাম সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের চতুর্থ শ্রেণির ছাত্রী ছিল।

শুক্রবার রাতে হাতিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আবুল খায়ের বলেন, বুধবার এ ঘটনায় নিহতের বাবা তার দ্বিতীয় স্ত্রী খালেদা আক্তারকে প্রধান আসামি করে হত্যা মামলা করেছেন। এই মামলায় বৃহস্পতিবার বিকালে তাকে গ্রেফতার দেখিয়ে বিচারিক আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়।

ওসি আবুল খায়ের বলেন, ২৫ মে বেলা দেড়টার দিকে নিখোঁজের ১২ ঘণ্টা পর পুলিশ উপজেলার দক্ষিণ আদর্শ গ্রাম সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পেছনের একটি ঝোপ থেকে স্কুলছাত্রীর লাশ উদ্ধার করে এবং একই সঙ্গে তার সৎমাকে আটক করে পুলিশ। নিহতের বাবা জানান, ১২ বছর আগে সন্তান প্রসবের সময় তার প্রথম স্ত্রী মারা যায়।

হাতিয়া মোর্শেদবাজার তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ পুলিশ পরিদর্শক মো. হেলাল উদ্দিন জানান, পারিবারিক কলহের জেরে শাবনূরকে মাথায়, মুখে, ঘাড়ে ও কানে দা দিয়ে কুপিয়ে এবং পিটিয়ে হত্যা করে ঝোপে লাশ ফেলে দেয় সৎমা।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন