ধর্ষণের বিচার চাওয়ায় বাবাকে মারধর
jugantor
ধর্ষণের বিচার চাওয়ায় বাবাকে মারধর
ধর্ষক ছাত্রলীগ নেতা আটক

  শিবচর ও টেকেরহাট (মাদারীপুর) প্রতিনিধি  

৩০ মে ২০২১, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

মাদারীপুরের শিবচরে নবম শ্রেণির এক মাদ্রাসাছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের (জবি) সাবেক এক ছাত্রলীগ নেতার বিরুদ্ধে। এ ঘটনার বিচার চাওয়ায় অভিযুক্তর হাতে উলটো মারধরের শিকার হয়েছেন নির্যাতিতার বাবা। অভিযুক্ত মোস্তাফিজুর রহমান মুন্সী নাসিরকে আটক করেছে পুলিশ। সে উপজেলার মির্জারচর মুন্সীকান্দি গ্রামের মো. শাহাবুদ্দিন মুন্সীর ছেলে।

স্বজন ও নির্যাতিতা জানায়, উপজেলার বাঁশকান্দি ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান প্রার্থী হিসেবে প্রচারণায় নামে নাসির। দেড় মাস আগে ওই শিক্ষার্থীর বাড়িতে গেলে নাসিরের সঙ্গে তার পরিচয় হয়। একপর্যায়ে নাসির তাকে প্রেমের ফাঁদে ফেলে। ২১ মে বিয়ের প্রতিশ্রুতি দিয়ে এক বন্ধুর বাড়িতে নিয়ে গিয়ে তাকে সে ধর্ষণ করে। পরিবারের লোকজন বিষয়টি টের পেয়ে ঘটনাস্থল থেকে অসুস্থ অবস্থায় মেয়েটিকে উদ্ধার করে সদর হাসপাতালে ভর্তি করে।

এদিকে এক সপ্তাহেরও বেশি সময় ধরে এলাকার মাতবরদের কাছে অভিযোগ দিয়ে কোনো বিচার পায়নি নির্যাতিতার পরিবার। পরে বাধ্য হয়ে ভুক্তভোগী পরিবারটি আদালতের দারস্থ হয়। এতে ক্ষিপ্ত হয় অভিযুক্ত নাসির। সমাধানের কথা বলে নির্যাতিতার বাবাকে শনিবার সকালে মাদারীপুর শহরের একটি আবাসিক হোটেলে ডেকে মারধর করে সে। স্থানীয়রা বিষয়টি জেনে সদর মডেল থানায় খবর দিলে পুলিশ গিয়ে নাসিরকে আটক করে।

মেয়েটির বাবা জানান, নাসির জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের শাখা ছাত্রলীগের সাবেক সহ-সম্পাদক ও মাদারীপুর ছাত্রকল্যাণ পরিষদের সাংগঠনিক সম্পাদক। সেজন্য এলাকায় তার খুব প্রভাব। মাতবরদের কাছে বিচার চেয়েও পাইনি। উলটো তার হাতে মার খেতে হয়েছে। শিবচর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. মিরাজ হোসেন বলেন, এ ঘটনায় মেয়েটির পরিবার এখনো থানায় আসেনি। নাসিরকে আটক করা হয়েছে। নির্যাতিতার পরিবার অভিযোগ দিলে মামলা হবে।

ধর্ষণের বিচার চাওয়ায় বাবাকে মারধর

ধর্ষক ছাত্রলীগ নেতা আটক
 শিবচর ও টেকেরহাট (মাদারীপুর) প্রতিনিধি 
৩০ মে ২০২১, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

মাদারীপুরের শিবচরে নবম শ্রেণির এক মাদ্রাসাছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের (জবি) সাবেক এক ছাত্রলীগ নেতার বিরুদ্ধে। এ ঘটনার বিচার চাওয়ায় অভিযুক্তর হাতে উলটো মারধরের শিকার হয়েছেন নির্যাতিতার বাবা। অভিযুক্ত মোস্তাফিজুর রহমান মুন্সী নাসিরকে আটক করেছে পুলিশ। সে উপজেলার মির্জারচর মুন্সীকান্দি গ্রামের মো. শাহাবুদ্দিন মুন্সীর ছেলে।

স্বজন ও নির্যাতিতা জানায়, উপজেলার বাঁশকান্দি ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান প্রার্থী হিসেবে প্রচারণায় নামে নাসির। দেড় মাস আগে ওই শিক্ষার্থীর বাড়িতে গেলে নাসিরের সঙ্গে তার পরিচয় হয়। একপর্যায়ে নাসির তাকে প্রেমের ফাঁদে ফেলে। ২১ মে বিয়ের প্রতিশ্রুতি দিয়ে এক বন্ধুর বাড়িতে নিয়ে গিয়ে তাকে সে ধর্ষণ করে। পরিবারের লোকজন বিষয়টি টের পেয়ে ঘটনাস্থল থেকে অসুস্থ অবস্থায় মেয়েটিকে উদ্ধার করে সদর হাসপাতালে ভর্তি করে।

এদিকে এক সপ্তাহেরও বেশি সময় ধরে এলাকার মাতবরদের কাছে অভিযোগ দিয়ে কোনো বিচার পায়নি নির্যাতিতার পরিবার। পরে বাধ্য হয়ে ভুক্তভোগী পরিবারটি আদালতের দারস্থ হয়। এতে ক্ষিপ্ত হয় অভিযুক্ত নাসির। সমাধানের কথা বলে নির্যাতিতার বাবাকে শনিবার সকালে মাদারীপুর শহরের একটি আবাসিক হোটেলে ডেকে মারধর করে সে। স্থানীয়রা বিষয়টি জেনে সদর মডেল থানায় খবর দিলে পুলিশ গিয়ে নাসিরকে আটক করে।

মেয়েটির বাবা জানান, নাসির জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের শাখা ছাত্রলীগের সাবেক সহ-সম্পাদক ও মাদারীপুর ছাত্রকল্যাণ পরিষদের সাংগঠনিক সম্পাদক। সেজন্য এলাকায় তার খুব প্রভাব। মাতবরদের কাছে বিচার চেয়েও পাইনি। উলটো তার হাতে মার খেতে হয়েছে। শিবচর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. মিরাজ হোসেন বলেন, এ ঘটনায় মেয়েটির পরিবার এখনো থানায় আসেনি। নাসিরকে আটক করা হয়েছে। নির্যাতিতার পরিবার অভিযোগ দিলে মামলা হবে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন