অনুমতি না দিলে কোরবানির সময় সিন্ডিকেট হবে: জিএম কাদের
jugantor
চামড়া রপ্তানি
অনুমতি না দিলে কোরবানির সময় সিন্ডিকেট হবে: জিএম কাদের

  যুগান্তর প্রতিবেদন  

০২ জুন ২০২১, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

জাতীয় পার্টি চেয়ারম্যান জিএম কাদের এমপি বলেছেন, বিদেশে পশুর চামড়া রপ্তানির অনুমতি না দিলে এবারও মুনাফাখোর চক্র কোরবানির সময় সিন্ডিকেট তৈরি করবে।

তাতে গেল দুই-তিন বছরের মতো পশুর চামড়ার সঠিক দাম পাবেন না বিক্রেতারা। ফলে কোরবানির পশুর চামড়ায় যাদের হক রয়েছে, সেই এতিম ও দুস্থদের ভবিষ্যৎ অনিশ্চিত হয়ে পড়বে। বন্ধ হয়ে যেতে পারে অসংখ্য এতিমখানা ও লিল্লাহ বোর্ডিং। পাশাপাশি হুমকির মুখে পড়বে সম্ভাবনাময় চামড়াশিল্প। মঙ্গলবার গণমাধ্যমে দেওয়া এক বিবৃতিতে তিনি এসব কথা বলেন। জাতীয় পার্টি চেয়ারম্যান বলেন, গেল কয়েক বছর ধরেই কোরবানির সময় অসাধু ব্যবসায়ীরা সিন্ডিকেট করে কম মূল্যে পশুর চামড়া কিনেন। সিন্ডিকেটের কারণে কোরবানির সময় পানির দামেই বিক্রি হয়েছে পশুর চামড়া। আবার সঠিক মূল্য না পেয়ে অনেকে ক্ষোভ আর হতাশায় চামড়া মাটি চাপা দিয়েছেন।

কেউ কেউ কেরোসিন দিয়ে আগুনও দিয়েছেন পশুর চামড়ায়। বিক্রি করতে না পারায় অনেকের কোটি কোটি টাকা মূল্যের চামড়া পচে গেছে। বাজারে প্রতিযোগিতা না থাকায় একচেটিয়াভাবে সৃষ্টি হয়েছে সিন্ডিকেটের। তিনি আরও বলেন, কোরবানির সময় চামড়া বিদেশে রপ্তানির অনুমতি দিতে হবে, এতে চামড়ার বাজারে প্রতিযোগিতা সৃষ্টি হবে। বিক্রেতারা ভালো দাম পাবেন। কোরবানির পশুর চামড়ায় যাদের হক রয়েছে, সেই এতিম ও হতদরিদ্ররা আর্থিকভাবে উপকৃত হবে। হতাশা আর ক্ষোভে খুচরা ব্যবসায়ীরা চামড়া মাটিচাপা দিয়েছে, আগুনে পুড়ে ফেলেছে বা পানিতে ফেলে দিয়েছে-এমন সংবাদ আমরা আর শুনতে চাই না।

চামড়া রপ্তানি

অনুমতি না দিলে কোরবানির সময় সিন্ডিকেট হবে: জিএম কাদের

 যুগান্তর প্রতিবেদন 
০২ জুন ২০২১, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

জাতীয় পার্টি চেয়ারম্যান জিএম কাদের এমপি বলেছেন, বিদেশে পশুর চামড়া রপ্তানির অনুমতি না দিলে এবারও মুনাফাখোর চক্র কোরবানির সময় সিন্ডিকেট তৈরি করবে।

তাতে গেল দুই-তিন বছরের মতো পশুর চামড়ার সঠিক দাম পাবেন না বিক্রেতারা। ফলে কোরবানির পশুর চামড়ায় যাদের হক রয়েছে, সেই এতিম ও দুস্থদের ভবিষ্যৎ অনিশ্চিত হয়ে পড়বে। বন্ধ হয়ে যেতে পারে অসংখ্য এতিমখানা ও লিল্লাহ বোর্ডিং। পাশাপাশি হুমকির মুখে পড়বে সম্ভাবনাময় চামড়াশিল্প। মঙ্গলবার গণমাধ্যমে দেওয়া এক বিবৃতিতে তিনি এসব কথা বলেন। জাতীয় পার্টি চেয়ারম্যান বলেন, গেল কয়েক বছর ধরেই কোরবানির সময় অসাধু ব্যবসায়ীরা সিন্ডিকেট করে কম মূল্যে পশুর চামড়া কিনেন। সিন্ডিকেটের কারণে কোরবানির সময় পানির দামেই বিক্রি হয়েছে পশুর চামড়া। আবার সঠিক মূল্য না পেয়ে অনেকে ক্ষোভ আর হতাশায় চামড়া মাটি চাপা দিয়েছেন।

কেউ কেউ কেরোসিন দিয়ে আগুনও দিয়েছেন পশুর চামড়ায়। বিক্রি করতে না পারায় অনেকের কোটি কোটি টাকা মূল্যের চামড়া পচে গেছে। বাজারে প্রতিযোগিতা না থাকায় একচেটিয়াভাবে সৃষ্টি হয়েছে সিন্ডিকেটের। তিনি আরও বলেন, কোরবানির সময় চামড়া বিদেশে রপ্তানির অনুমতি দিতে হবে, এতে চামড়ার বাজারে প্রতিযোগিতা সৃষ্টি হবে। বিক্রেতারা ভালো দাম পাবেন। কোরবানির পশুর চামড়ায় যাদের হক রয়েছে, সেই এতিম ও হতদরিদ্ররা আর্থিকভাবে উপকৃত হবে। হতাশা আর ক্ষোভে খুচরা ব্যবসায়ীরা চামড়া মাটিচাপা দিয়েছে, আগুনে পুড়ে ফেলেছে বা পানিতে ফেলে দিয়েছে-এমন সংবাদ আমরা আর শুনতে চাই না।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন