সাধারণ সম্পাদকসহ পাঁচশ নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে দুই মামলা
jugantor
ময়মনসিংহে পুলিশ-ছাত্রদল সংঘর্ষ
সাধারণ সম্পাদকসহ পাঁচশ নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে দুই মামলা

  ময়মনসিংহ ব্যুরো  

১৯ জুন ২০২১, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

ময়মনসিংহে ছাত্রদলের সঙ্গে পুলিশের ধাওয়া-পালটাধাওয়া ও সংর্ঘষের ঘটনায় কেন্দ্রীয় ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক ইকবাল হোসেন শ্যামলসহ ৩৮ জনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাত আরও পাঁচশ নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে দুটি মামলা করেছে পুলিশ। কোতোয়ালি মডেল থানার উপ-পরিদর্শক মানিকুল ইসলাম বাদী হয়ে শুক্রবার সকালে মামলা দুটি করেন।

ওসি ফিরোজ তালুকদার জানান, বিস্ফোরক আইনে এবং পুলিশের কাজে বাধা ও পুলিশের ওপর হামলা করার ঘটনায় পৃথক দুটি মামলা হয়েছে। এ ঘটনায় আটক ছাত্রদলের আট নেতাকর্মীকে ওই দুই মামলায় গ্রেফতার দেখিয়ে আদালতের মাধ্যমে জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে। এছাড়া ঘটনাস্থল থেকে জব্দ করা ২০টি মোটরসাইকেলের ব্যাপারে ট্রাফিক আইনে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

উল্লেখ্য, বৃহস্পতিবার বিএপির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমানের শাহাদতবার্ষিকীর অনুষ্ঠানে শম্ভুগঞ্জের দক্ষিণ চরকালিবাড়ী দাখিল মাদ্রাসা মাঠে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এ সময় ছয় পুলিশসহ আহত হন কমপক্ষে ২৬ জন।

বিএনপির সংবাদ সম্মেলনে প্রিন্স : কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদকসহ নেতাকর্মীদের ওপর হামলা ও গুলিবর্ষণের নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে সংবাদ সম্মেলন করেছে বিএনপি। ময়মনসিংহ প্রেস ক্লাব মিলনায়তনে শুক্রবার সকালে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য দেন বিএনপির কেন্দ্রীয় দফতরের দায়িত্বপ্রাপ্ত সাংগঠনিক সম্পাদক সৈয়দ এমরান সালেহ প্রিন্স। তিনি বলেন, ছাত্রদল আয়োজিত ওই আলোচনা সভায় পুলিশ প্রথমে বাধা দেয়। পরে সভা বন্ধ করতে গিয়ে বিনা উসকানিতে লাঠিচার্জ ও গুলিবর্ষণ করে। এ হামলায় ছাত্রদলের প্রায় একশ’ নেতাকর্মী আহত হন। এর মধ্যে ১৭ জন গুলিবিদ্ধ ও চারজনের মাথা ফেটেছে। এখনো ২৮ নেতাকর্মীর খোঁজ পাওয়া যাচ্ছে না। তিনি গ্রেফতারদের নিঃশর্ত মুক্তির দাবি জানান। সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন ময়মনসিংহ মহানগর বিএনপির আহ্বায়ক অধ্যাপক একেএম শফিকুল ইসলাম, দক্ষিণ জেলা বিএনপির আহ্বায়ক ডা. মাহবুবুর রহমান লিটন, উত্তর জেলা বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম আহ্বায়ক মোতাহের হোসেন তালুকদার, দক্ষিণ জেলা বিএনপির যুগ্ম আহ্বায়ক আলমগীর মাহমুদ আলম প্রমুখ।

ময়মনসিংহে পুলিশ-ছাত্রদল সংঘর্ষ

সাধারণ সম্পাদকসহ পাঁচশ নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে দুই মামলা

 ময়মনসিংহ ব্যুরো 
১৯ জুন ২০২১, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

ময়মনসিংহে ছাত্রদলের সঙ্গে পুলিশের ধাওয়া-পালটাধাওয়া ও সংর্ঘষের ঘটনায় কেন্দ্রীয় ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক ইকবাল হোসেন শ্যামলসহ ৩৮ জনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাত আরও পাঁচশ নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে দুটি মামলা করেছে পুলিশ। কোতোয়ালি মডেল থানার উপ-পরিদর্শক মানিকুল ইসলাম বাদী হয়ে শুক্রবার সকালে মামলা দুটি করেন।

ওসি ফিরোজ তালুকদার জানান, বিস্ফোরক আইনে এবং পুলিশের কাজে বাধা ও পুলিশের ওপর হামলা করার ঘটনায় পৃথক দুটি মামলা হয়েছে। এ ঘটনায় আটক ছাত্রদলের আট নেতাকর্মীকে ওই দুই মামলায় গ্রেফতার দেখিয়ে আদালতের মাধ্যমে জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে। এছাড়া ঘটনাস্থল থেকে জব্দ করা ২০টি মোটরসাইকেলের ব্যাপারে ট্রাফিক আইনে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

উল্লেখ্য, বৃহস্পতিবার বিএপির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমানের শাহাদতবার্ষিকীর অনুষ্ঠানে শম্ভুগঞ্জের দক্ষিণ চরকালিবাড়ী দাখিল মাদ্রাসা মাঠে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এ সময় ছয় পুলিশসহ আহত হন কমপক্ষে ২৬ জন।

বিএনপির সংবাদ সম্মেলনে প্রিন্স : কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদকসহ নেতাকর্মীদের ওপর হামলা ও গুলিবর্ষণের নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে সংবাদ সম্মেলন করেছে বিএনপি। ময়মনসিংহ প্রেস ক্লাব মিলনায়তনে শুক্রবার সকালে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য দেন বিএনপির কেন্দ্রীয় দফতরের দায়িত্বপ্রাপ্ত সাংগঠনিক সম্পাদক সৈয়দ এমরান সালেহ প্রিন্স। তিনি বলেন, ছাত্রদল আয়োজিত ওই আলোচনা সভায় পুলিশ প্রথমে বাধা দেয়। পরে সভা বন্ধ করতে গিয়ে বিনা উসকানিতে লাঠিচার্জ ও গুলিবর্ষণ করে। এ হামলায় ছাত্রদলের প্রায় একশ’ নেতাকর্মী আহত হন। এর মধ্যে ১৭ জন গুলিবিদ্ধ ও চারজনের মাথা ফেটেছে। এখনো ২৮ নেতাকর্মীর খোঁজ পাওয়া যাচ্ছে না। তিনি গ্রেফতারদের নিঃশর্ত মুক্তির দাবি জানান। সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন ময়মনসিংহ মহানগর বিএনপির আহ্বায়ক অধ্যাপক একেএম শফিকুল ইসলাম, দক্ষিণ জেলা বিএনপির আহ্বায়ক ডা. মাহবুবুর রহমান লিটন, উত্তর জেলা বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম আহ্বায়ক মোতাহের হোসেন তালুকদার, দক্ষিণ জেলা বিএনপির যুগ্ম আহ্বায়ক আলমগীর মাহমুদ আলম প্রমুখ।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন