আ.লীগে পালটাপালটি মামলা
jugantor
মাধবদীতে গুলিবিদ্ধের ঘটনা
আ.লীগে পালটাপালটি মামলা

  নরসিংদী প্রতিনিধি  

১৯ জুন ২০২১, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

নরসিংদীর মাধবদীতে আওয়ামী লীগের দুই পক্ষের সংঘর্ষ ও গুলিবিদ্ধের ঘটনায় থানায় পালটাপালটি মামলা হয়েছে। গুলিবিদ্ধ পৌরসভার সাবেক কাউন্সিলরের বড় ভাই জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আনোয়ার হোসেন মাধবদী পৌর মেয়র মোশারফ হোসেন মানিকসহ মোট ১১ জনকে আসামি করে মামলা করেছেন। অপর দিকে পৌর মেয়রের পক্ষে মোজাম্মেল হোসেন বাদী হয়ে আনোয়ার হোসেনকে প্রধান আসামি করে মামলা করেছেন ৭ জনের বিরুদ্ধে।

মাধবদী থানায় শুক্রবার সকালে দুই পক্ষই মামলা করেছেন বলে জানিয়েছেন ওসি মো. সৈয়দুজ্জামান।

এর আগে ১৬ জুন বুধবার রাতে মাধবদী থানা আওয়ামী লীগের কার্যকরী কমিটির সভায় পৌর মেয়রকে দাওয়াত না দেওয়াকে কেন্দ্র করে দলের দুই গ্রুপের সংঘর্ষ হয়। ওই সময় গুলিবিদ্ধ হয়ে আহত হন পৌরসভার সাবেক কমিশনার ও সদর থানা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি মো. জাকারিয়া (৩৯) ও নূরালাপুর ইউনিয়ন স্বেচ্ছাসেবক লীগের সদস্য সচিব আবুল কালাম (৩০)। উল্লেখ্য, ঘটনার দিন ওই সভায় তাকে দাওয়াত না দেওয়ায় উপস্থিত নেতাদের সঙ্গে মেয়রের তর্ক হয়।

পরে সেখান থেকে তিনি চলে যান। চলে যাওয়ার সময় থানা ছাত্রলীগের সভাপতি মাসুদ মেয়র সমর্থকদের কটূক্তি করেন। এ নিয়ে দুই গ্রুপের ধাওয়া-পালটাধাওয়া ও হাতাহাতির ঘটনা ঘটে। এর প্রতিবাদে আনোয়ার হোসেন, জাকারিয়া ও তাদের সমর্থকরা মিছিল বের করেন। একপর্যায়ে দুই পক্ষের সমর্থকরা আবার ধাওয়াপালটাধাওয়া ও সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়েন। এ সময় বেশ কয়েক রাউন্ড গুলি ছোড়া হয়।

মাধবদীতে গুলিবিদ্ধের ঘটনা

আ.লীগে পালটাপালটি মামলা

 নরসিংদী প্রতিনিধি 
১৯ জুন ২০২১, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

নরসিংদীর মাধবদীতে আওয়ামী লীগের দুই পক্ষের সংঘর্ষ ও গুলিবিদ্ধের ঘটনায় থানায় পালটাপালটি মামলা হয়েছে। গুলিবিদ্ধ পৌরসভার সাবেক কাউন্সিলরের বড় ভাই জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আনোয়ার হোসেন মাধবদী পৌর মেয়র মোশারফ হোসেন মানিকসহ মোট ১১ জনকে আসামি করে মামলা করেছেন। অপর দিকে পৌর মেয়রের পক্ষে মোজাম্মেল হোসেন বাদী হয়ে আনোয়ার হোসেনকে প্রধান আসামি করে মামলা করেছেন ৭ জনের বিরুদ্ধে।

মাধবদী থানায় শুক্রবার সকালে দুই পক্ষই মামলা করেছেন বলে জানিয়েছেন ওসি মো. সৈয়দুজ্জামান।

এর আগে ১৬ জুন বুধবার রাতে মাধবদী থানা আওয়ামী লীগের কার্যকরী কমিটির সভায় পৌর মেয়রকে দাওয়াত না দেওয়াকে কেন্দ্র করে দলের দুই গ্রুপের সংঘর্ষ হয়। ওই সময় গুলিবিদ্ধ হয়ে আহত হন পৌরসভার সাবেক কমিশনার ও সদর থানা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি মো. জাকারিয়া (৩৯) ও নূরালাপুর ইউনিয়ন স্বেচ্ছাসেবক লীগের সদস্য সচিব আবুল কালাম (৩০)। উল্লেখ্য, ঘটনার দিন ওই সভায় তাকে দাওয়াত না দেওয়ায় উপস্থিত নেতাদের সঙ্গে মেয়রের তর্ক হয়।

পরে সেখান থেকে তিনি চলে যান। চলে যাওয়ার সময় থানা ছাত্রলীগের সভাপতি মাসুদ মেয়র সমর্থকদের কটূক্তি করেন। এ নিয়ে দুই গ্রুপের ধাওয়া-পালটাধাওয়া ও হাতাহাতির ঘটনা ঘটে। এর প্রতিবাদে আনোয়ার হোসেন, জাকারিয়া ও তাদের সমর্থকরা মিছিল বের করেন। একপর্যায়ে দুই পক্ষের সমর্থকরা আবার ধাওয়াপালটাধাওয়া ও সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়েন। এ সময় বেশ কয়েক রাউন্ড গুলি ছোড়া হয়।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন