ফেসবুকে মন্তব্যের জের, ভালুকায় কলেজছাত্র খুন
jugantor
ফেসবুকে মন্তব্যের জের, ভালুকায় কলেজছাত্র খুন

  ভালুকা (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি  

০৬ জুলাই ২০২১, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

ফেসবুকে মন্তব্যের জেরে সোমবার সকালে ময়মনসিংহের ভালুকা উপজেলার মেহরাবাড়ি এলাকায় এক কলেজছাত্র খুন হয়েছে। তার নাম সাঈম খান (১৮)। সে উপজেলার হবিরবাড়ি গ্রামের সিডস্টোর বাজার এলাকার নাজিম উদ্দিন খানের ছেলে। সে মর্নিং সান কলেজের ছাত্র। ঘটনাটি নিশ্চিত করেছেন ভালুকা মডেল থানার ওসি মো. মাহমুদুল ইসলাম।

সূত্রে জানা যায়, কয়েকদিন আগে সাব্বির, সোহাগ ও কয়েক বন্ধু মিলে গাঁজা সেবন করে। এ নিয়ে সিডস্টোর এলাকার সায়েদ আলীর ছেলে মিরাজের সঙ্গে কথা কাটাকাটি হয়। রোববার সোহাগ ফেসবুকে একটি ছবি পোস্ট দেয়। ছবির নিচে সাব্বির, সোহাগ, মনিরকে গাঁজাখোর বলে মন্তব্য করা হয়। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে সাব্বির ও সোহাগ তাদের সহপাঠী নিয়ে রোববার দুপুরে মিরাজকে বাসা থেকে ডেকে এনে চড়-থাপ্পড় দেয়।

এর জেরে সিডস্টোর বাজারের পলাশ গ্রুপের কিশোর গ্যাং’র ১০/১৫ সদস্য নিয়ে মিরাজ রোববার সন্ধ্যায় সাব্বিরদের বাড়িতে গিয়ে তাকে ডেকে আনে। এ সময় পলাশ গ্রুপের সদস্যরা সাব্বিরকে মারধর শুরু করলে তার চিৎকারে আশপাশের লোক চলে আসে। উভয়পক্ষ সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। এতে সাঈম খান, সাব্বির, পলাশ, মিরাজের মাসহ ৫/৬ জন আহত হন। সাঈমকে প্রথমে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল ও পরে জাতীয় নিউরো সাইন্স হাসপাতালে ভর্তি করা হলে সোমবার সকালে সে মারা যায়। সাঈমের চাচা আফাজ উদ্দিন খান জানান, আমার ভাতিজাকে মোবাইলে ডেকে নিয়ে পিটিয়ে খুন করা হয়েছে। ভালুকা হাসপাতালের জরুরি বিভাগের চিকিৎসক জানান, সাঈম মাথায় প্রচণ্ড আঘাত পেয়েছে। এ কারণে তার মৃত্যু হয়েছে। ভালুকা মডেল থানার ওসি মাহমুদুল ইসলাম জানান, সাইমের লাশ মর্গে পাঠানো হয়েছে। মামলার প্রস্তুতি চলছে। আসামি গ্রেফতারে অভিযান চলছে।

ফেসবুকে মন্তব্যের জের, ভালুকায় কলেজছাত্র খুন

 ভালুকা (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি 
০৬ জুলাই ২০২১, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

ফেসবুকে মন্তব্যের জেরে সোমবার সকালে ময়মনসিংহের ভালুকা উপজেলার মেহরাবাড়ি এলাকায় এক কলেজছাত্র খুন হয়েছে। তার নাম সাঈম খান (১৮)। সে উপজেলার হবিরবাড়ি গ্রামের সিডস্টোর বাজার এলাকার নাজিম উদ্দিন খানের ছেলে। সে মর্নিং সান কলেজের ছাত্র। ঘটনাটি নিশ্চিত করেছেন ভালুকা মডেল থানার ওসি মো. মাহমুদুল ইসলাম।

সূত্রে জানা যায়, কয়েকদিন আগে সাব্বির, সোহাগ ও কয়েক বন্ধু মিলে গাঁজা সেবন করে। এ নিয়ে সিডস্টোর এলাকার সায়েদ আলীর ছেলে মিরাজের সঙ্গে কথা কাটাকাটি হয়। রোববার সোহাগ ফেসবুকে একটি ছবি পোস্ট দেয়। ছবির নিচে সাব্বির, সোহাগ, মনিরকে গাঁজাখোর বলে মন্তব্য করা হয়। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে সাব্বির ও সোহাগ তাদের সহপাঠী নিয়ে রোববার দুপুরে মিরাজকে বাসা থেকে ডেকে এনে চড়-থাপ্পড় দেয়।

এর জেরে সিডস্টোর বাজারের পলাশ গ্রুপের কিশোর গ্যাং’র ১০/১৫ সদস্য নিয়ে মিরাজ রোববার সন্ধ্যায় সাব্বিরদের বাড়িতে গিয়ে তাকে ডেকে আনে। এ সময় পলাশ গ্রুপের সদস্যরা সাব্বিরকে মারধর শুরু করলে তার চিৎকারে আশপাশের লোক চলে আসে। উভয়পক্ষ সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। এতে সাঈম খান, সাব্বির, পলাশ, মিরাজের মাসহ ৫/৬ জন আহত হন। সাঈমকে প্রথমে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল ও পরে জাতীয় নিউরো সাইন্স হাসপাতালে ভর্তি করা হলে সোমবার সকালে সে মারা যায়। সাঈমের চাচা আফাজ উদ্দিন খান জানান, আমার ভাতিজাকে মোবাইলে ডেকে নিয়ে পিটিয়ে খুন করা হয়েছে। ভালুকা হাসপাতালের জরুরি বিভাগের চিকিৎসক জানান, সাঈম মাথায় প্রচণ্ড আঘাত পেয়েছে। এ কারণে তার মৃত্যু হয়েছে। ভালুকা মডেল থানার ওসি মাহমুদুল ইসলাম জানান, সাইমের লাশ মর্গে পাঠানো হয়েছে। মামলার প্রস্তুতি চলছে। আসামি গ্রেফতারে অভিযান চলছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন