মাথায় গুলি করে আত্মহত্যাকারী কনস্টেবলের দাফন সম্পন্ন
jugantor
মাথায় গুলি করে আত্মহত্যাকারী কনস্টেবলের দাফন সম্পন্ন

  কুমারখালী (কুষ্টিয়া) প্রতিনিধি  

২৪ জুলাই ২০২১, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

মাথায় গুলি করে আত্মহত্যাকারী পুলিশ কনস্টেবল কুষ্টিয়ার কুমারখালীর নিজ গ্রামে দাফন করা হয়েছে। বুধবার বাদ আসর চাপড়া ইউনিয়ন পরিষদ মাঠে জানাজা শেষে কবুরাট গ্রামে পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হয়েছে। এর আগে মেহেরপুর মুজিবনগরে তার প্রথম জানাজা হয়।

নিহত পুলিশ সদস্য কুমারখালী উপজেলার চাপরা ইউনিয়নের কবুরাটে মৃত মহম্মদ আলীর ছেলে সাইফুল ইসলাম (২৭)। নিহতের চাচা লিটন হোসেন জানান, এ বছর প্রথমদিকে সাইফুল নারী পুলিশ সদস্য ফরিদা খাতুনকে বিয়ে করে। বিয়েতে তার বেশ কিছু টাকা খরচ হয় এবং তিনি কিছু জমিও ক্রয় করেন। এতে তার সঞ্চয় শেষ হওয়ায়, তিনি মানসিক চাপের মধ্যে ছিলেন। সম্প্রতি তিনি উদভ্রান্তের মতো চলাফেরা ও কথাবার্তা বলছিলেন। তাকে ডাক্তারও দেখানো হয়। ঈদের দিন ভোড়ে খবর আসে সাইফুল দায়িত্বরত অবস্থায় তার নিজের অস্ত্র মাথায় ঠেকিয়ে গুলি করে আত্মহত্যা করেছে। নিহতের স্ত্রী ফরিদা খাতুন জানান, তার স্বামী মঙ্গলবার রাতে ফোন দিয়ে আর্থিক অনটন নিয়ে হতাশাপূর্ণ কথাবার্তা বললে তিনি সান্তনা দেন এবং দুশ্চিন্তা করতে নিষেধ করেন। বুধবার ভোড়ে রতনপুর পুলিশ ফাঁড়ি থেকে ফোন দিয়ে তাকে দ্রুত যেতে বললে তিনি ঘটনাস্থলে গিয়ে তার স্বামীকে মৃত অবস্থায় দেখতে পান। তিনি জানান ঈদের পর তাদের একই জায়গায় পোস্টিং হওয়ার কথা ছিল।

কুমারখালী থানার অফিসার ইনচার্জ কামরুজ্জামান তালুকদার বলেন, বাদ আসর জানাজা শেষে কুমারখালীর চাপরা ইউনিয়নের কবুরাটে তাদের পারিবারিক কবরস্থানে তাকে দাফন করা হয়েছে।

মাথায় গুলি করে আত্মহত্যাকারী কনস্টেবলের দাফন সম্পন্ন

 কুমারখালী (কুষ্টিয়া) প্রতিনিধি 
২৪ জুলাই ২০২১, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

মাথায় গুলি করে আত্মহত্যাকারী পুলিশ কনস্টেবল কুষ্টিয়ার কুমারখালীর নিজ গ্রামে দাফন করা হয়েছে। বুধবার বাদ আসর চাপড়া ইউনিয়ন পরিষদ মাঠে জানাজা শেষে কবুরাট গ্রামে পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হয়েছে। এর আগে মেহেরপুর মুজিবনগরে তার প্রথম জানাজা হয়।

নিহত পুলিশ সদস্য কুমারখালী উপজেলার চাপরা ইউনিয়নের কবুরাটে মৃত মহম্মদ আলীর ছেলে সাইফুল ইসলাম (২৭)। নিহতের চাচা লিটন হোসেন জানান, এ বছর প্রথমদিকে সাইফুল নারী পুলিশ সদস্য ফরিদা খাতুনকে বিয়ে করে। বিয়েতে তার বেশ কিছু টাকা খরচ হয় এবং তিনি কিছু জমিও ক্রয় করেন। এতে তার সঞ্চয় শেষ হওয়ায়, তিনি মানসিক চাপের মধ্যে ছিলেন। সম্প্রতি তিনি উদভ্রান্তের মতো চলাফেরা ও কথাবার্তা বলছিলেন। তাকে ডাক্তারও দেখানো হয়। ঈদের দিন ভোড়ে খবর আসে সাইফুল দায়িত্বরত অবস্থায় তার নিজের অস্ত্র মাথায় ঠেকিয়ে গুলি করে আত্মহত্যা করেছে। নিহতের স্ত্রী ফরিদা খাতুন জানান, তার স্বামী মঙ্গলবার রাতে ফোন দিয়ে আর্থিক অনটন নিয়ে হতাশাপূর্ণ কথাবার্তা বললে তিনি সান্তনা দেন এবং দুশ্চিন্তা করতে নিষেধ করেন। বুধবার ভোড়ে রতনপুর পুলিশ ফাঁড়ি থেকে ফোন দিয়ে তাকে দ্রুত যেতে বললে তিনি ঘটনাস্থলে গিয়ে তার স্বামীকে মৃত অবস্থায় দেখতে পান। তিনি জানান ঈদের পর তাদের একই জায়গায় পোস্টিং হওয়ার কথা ছিল।

কুমারখালী থানার অফিসার ইনচার্জ কামরুজ্জামান তালুকদার বলেন, বাদ আসর জানাজা শেষে কুমারখালীর চাপরা ইউনিয়নের কবুরাটে তাদের পারিবারিক কবরস্থানে তাকে দাফন করা হয়েছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন