ফতুল্লায় বাবা ছেলের ছুরিকাঘাতে যুবকের মৃত্যু
jugantor
ফতুল্লায় বাবা ছেলের ছুরিকাঘাতে যুবকের মৃত্যু

  ফতুল্লা (নারায়ণগঞ্জ) প্রতিনিধি  

২৫ জুলাই ২০২১, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লায় বাবা-ছেলের ছুরিকাঘাতে এক যুবকের মৃত্যু হয়েছে। কুতুবপুর ইউনিয়নের পাগলা নয়ামাটি এলাকায় শনিবার দুপুর এই ঘটনা ঘটেছে। পুলিশ ঘটনাস্থলের কাছ থেকে দুজনকে গ্রেফতার করেছে।

নিহত মাসুদ (৩০) চাঁদপুর জেলার হাইমচর থানার তেলীগোমর গ্রামের রফিকুল ইসলামের ছেলে। তিনি পরিবারের সঙ্গে নয়ামাটি এলাকায় ইব্রাহীম মিয়ার বাড়িতে ভাড়া থাকতেন। গ্রেফতাররা হলো- পাগলা বৈরাগীবাড়ি এলাকার আইয়ুব আলী ড্রাইভার (৪৮) ও তার ছেলে সোহেল (২০)।

পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, মাসুদের ছোট ভাই শাওনের কাছে ২৫শ’ টাকা পেত সোহেল। এ নিয়ে তাদের মধ্যে কয়েক দিন ধরে বিরোধ চলে আসছিল। এর জেরে শনিবার দুপুর সাড়ে ১২টায় সোহেল ও তার বাবা আইয়ুব আলী ড্রাইভারসহ প্রায় ১৫-২০ জন শাওনকে পথরোধ করে। কোনো কথা না বলেই শাওনের গালে থাপ্পড় দেয় সোহেল। এ সময় দূর থেকে বিষয়টি দেখে শাওনের বড় ভাই মাসুদ এগিয়ে এসে তাদের শান্ত করার চেষ্টা করেন। তখন সোহেল ও তার বাবাসহ তাদের লোকজন মিলে মাসুদ ও শাওনকে এলোপাতাড়ি মারধর করতে থাকে। এক পর্যায়ে মাসুদের পেটে কয়েকবার ছুরিকাঘাত করে সোহেল। এ সময় স্থানীয়রা মাসুদকে ঢাকা মেডিকেলে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

নিহত মাসুদের বড় ভাই মামুন জানান, তারা ৭ ভাই এক বোনের মধ্যে মাসুদ পঞ্চম তার ছোট শাওন। তিনি এ হত্যাকাণ্ডের দৃষ্টান্তমূলক বিচার দাবি জানান। ফতুল্লা মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রকিবুজ্জামান জানান, হত্যাকাণ্ডে জড়িতদের মধ্যে প্রধান আসামি সোহেলকে ছুরিসহ এবং তার বাবা আইয়ুব আলী ড্রাইভারকে গ্রেফতার করা হয়েছে। ঘটনাস্থলের একটি সিসিটিভি ফুটেজ সংগ্রহ করা হয়েছে। তা দেখে অন্যদেরও গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

ফতুল্লায় বাবা ছেলের ছুরিকাঘাতে যুবকের মৃত্যু

 ফতুল্লা (নারায়ণগঞ্জ) প্রতিনিধি 
২৫ জুলাই ২০২১, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লায় বাবা-ছেলের ছুরিকাঘাতে এক যুবকের মৃত্যু হয়েছে। কুতুবপুর ইউনিয়নের পাগলা নয়ামাটি এলাকায় শনিবার দুপুর এই ঘটনা ঘটেছে। পুলিশ ঘটনাস্থলের কাছ থেকে দুজনকে গ্রেফতার করেছে।

নিহত মাসুদ (৩০) চাঁদপুর জেলার হাইমচর থানার তেলীগোমর গ্রামের রফিকুল ইসলামের ছেলে। তিনি পরিবারের সঙ্গে নয়ামাটি এলাকায় ইব্রাহীম মিয়ার বাড়িতে ভাড়া থাকতেন। গ্রেফতাররা হলো- পাগলা বৈরাগীবাড়ি এলাকার আইয়ুব আলী ড্রাইভার (৪৮) ও তার ছেলে সোহেল (২০)।

পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, মাসুদের ছোট ভাই শাওনের কাছে ২৫শ’ টাকা পেত সোহেল। এ নিয়ে তাদের মধ্যে কয়েক দিন ধরে বিরোধ চলে আসছিল। এর জেরে শনিবার দুপুর সাড়ে ১২টায় সোহেল ও তার বাবা আইয়ুব আলী ড্রাইভারসহ প্রায় ১৫-২০ জন শাওনকে পথরোধ করে। কোনো কথা না বলেই শাওনের গালে থাপ্পড় দেয় সোহেল। এ সময় দূর থেকে বিষয়টি দেখে শাওনের বড় ভাই মাসুদ এগিয়ে এসে তাদের শান্ত করার চেষ্টা করেন। তখন সোহেল ও তার বাবাসহ তাদের লোকজন মিলে মাসুদ ও শাওনকে এলোপাতাড়ি মারধর করতে থাকে। এক পর্যায়ে মাসুদের পেটে কয়েকবার ছুরিকাঘাত করে সোহেল। এ সময় স্থানীয়রা মাসুদকে ঢাকা মেডিকেলে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

নিহত মাসুদের বড় ভাই মামুন জানান, তারা ৭ ভাই এক বোনের মধ্যে মাসুদ পঞ্চম তার ছোট শাওন। তিনি এ হত্যাকাণ্ডের দৃষ্টান্তমূলক বিচার দাবি জানান। ফতুল্লা মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রকিবুজ্জামান জানান, হত্যাকাণ্ডে জড়িতদের মধ্যে প্রধান আসামি সোহেলকে ছুরিসহ এবং তার বাবা আইয়ুব আলী ড্রাইভারকে গ্রেফতার করা হয়েছে। ঘটনাস্থলের একটি সিসিটিভি ফুটেজ সংগ্রহ করা হয়েছে। তা দেখে অন্যদেরও গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন