চট্টগ্রামে ডেল্টা ভ্যারিয়েন্টে আক্রান্ত হচ্ছে শিশুরাও
jugantor
চট্টগ্রামে ডেল্টা ভ্যারিয়েন্টে আক্রান্ত হচ্ছে শিশুরাও

  এমএ কাউসার, চট্টগ্রাম  

২৬ জুলাই ২০২১, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

চট্টগ্রামে কোভিড-১৯ আক্রান্ত শিশুর সংখ্যা ক্রমেই বেড়ে চলেছে। রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কম এমন শিশুরাই আক্রান্ত হচ্ছে বেশি। ইতোমধ্যে আক্রান্ত শিশুর মধ্যে ভারতীয় ধরন ডেল্টা ভ্যারিয়েন্ট শনাক্ত হয়েছে। সম্প্রতি এক গবেষণায় এমন তথ্য পাওয়া গেছে। গত বছরের পর থেকে এখন পর্যন্ত করোনা সংক্রমণ শনাক্ত হয়েছে ২ হাজার ৫৩ শিশুর। যদিও বাস্তবে আক্রান্তের সংখ্যা আরও বেশি বলে ধারণা করা হচ্ছে। এখন পর্যন্ত করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছে ৪ জন। গত বছরের ১৩ এপ্রিল পটিয়ায় প্রথম মারা যায় ৬ বছরের এক শিশু।

চট্টগ্রাম জেলা সিভিল সার্জন ডা. সেখ ফজলে রাব্বি যুগান্তরকে বলেন, পরিবারের লোকজনের মাধ্যমেই শিশুরা আক্রান্ত হচ্ছে। বিশেষ করে যেসব শিশুর ইমিউনিটি কম, তারা আক্রান্ত হচ্ছে বেশি। তবে চিকিৎসায় ভালো হয়ে যাচ্ছে।

চট্টগ্রাম জেনারেল হাসপাতালের করোনা ইউনিটের প্রধান ডা. আবদুর রব মাসুম বলেন, হাসপাতালে ভর্তি হওয়া ১২ শিশুর নমুনার জিনোম সিকুয়েন্সে ডেল্টা ভ্যারিয়েন্ট শনাক্ত হয়েছে। আক্রান্ত শিশুদের ৮০ ভাগেরই বয়স ১০ বছরের নিচে। সর্বনিম্ন ৮ মাস বয়সের শিশুরও এ ভ্যারিয়েন্ট শনাক্ত হয়েছে এবং তা হয়েছে ৫০ ভাগ ছেলে শিশু এবং ৫০ ভাগ মেয়ে শিশুর মধ্যে। জুন থেকে জুলাই মাসের প্রথম সপ্তাহ পর্যন্ত নমুনা সংগ্রহ করার পর এ গবেষণা চালানো হয়। গবেষণায় অন্তর্ভুক্ত করা হয় নবজাতক থেকে ১৬ বছর বয়সি (স্কুলগামী) কোভিড-১৯ আক্রান্ত শিশুদের।

এদিকে, চার দিন পর রোববার চট্টগ্রামে আবারও করোনাভাইরাসের সংক্রমণ বাড়ার তথ্য পাওয়া গেছে। এর আগের ২৪ ঘণ্টায় ৮০১ জনের করোনার সংক্রমণ শনাক্ত হয়েছে। একই সময়ে করোনায় মৃত্যু হয়েছে আরও ১১ জনের। ২০ জুলাই চট্টগ্রামে সংক্রমণ শনাক্ত হয় ৯২৫ জনের ও একদিনে রেকর্ড সংখ্যক ১৫ জন মারা যান। এরপর গত চার দিন সংক্রমণ ও মৃত্যু কমে আসে। এখন পর্যন্ত চট্টগ্রামে ৭৫ হাজার ৩৬৩ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। এরমধ্যে নগরীর বাসিন্দা ৫৬ হাজার ৯০৯ ও বিভিন্ন উপজেলার বাসিন্দা ১৮ হাজার ৪৫৪ জন। এ পর্যন্ত মারা গেছেন ৮৮৫ জন। এর মধ্যে নগরীর বাসিন্দা ৫৪৩ জন এবং বিভিন্ন উপজেলার বাসিন্দা ৩৪২ জন।

চট্টগ্রামে ডেল্টা ভ্যারিয়েন্টে আক্রান্ত হচ্ছে শিশুরাও

 এমএ কাউসার, চট্টগ্রাম 
২৬ জুলাই ২০২১, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

চট্টগ্রামে কোভিড-১৯ আক্রান্ত শিশুর সংখ্যা ক্রমেই বেড়ে চলেছে। রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কম এমন শিশুরাই আক্রান্ত হচ্ছে বেশি। ইতোমধ্যে আক্রান্ত শিশুর মধ্যে ভারতীয় ধরন ডেল্টা ভ্যারিয়েন্ট শনাক্ত হয়েছে। সম্প্রতি এক গবেষণায় এমন তথ্য পাওয়া গেছে। গত বছরের পর থেকে এখন পর্যন্ত করোনা সংক্রমণ শনাক্ত হয়েছে ২ হাজার ৫৩ শিশুর। যদিও বাস্তবে আক্রান্তের সংখ্যা আরও বেশি বলে ধারণা করা হচ্ছে। এখন পর্যন্ত করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছে ৪ জন। গত বছরের ১৩ এপ্রিল পটিয়ায় প্রথম মারা যায় ৬ বছরের এক শিশু।

চট্টগ্রাম জেলা সিভিল সার্জন ডা. সেখ ফজলে রাব্বি যুগান্তরকে বলেন, পরিবারের লোকজনের মাধ্যমেই শিশুরা আক্রান্ত হচ্ছে। বিশেষ করে যেসব শিশুর ইমিউনিটি কম, তারা আক্রান্ত হচ্ছে বেশি। তবে চিকিৎসায় ভালো হয়ে যাচ্ছে।

চট্টগ্রাম জেনারেল হাসপাতালের করোনা ইউনিটের প্রধান ডা. আবদুর রব মাসুম বলেন, হাসপাতালে ভর্তি হওয়া ১২ শিশুর নমুনার জিনোম সিকুয়েন্সে ডেল্টা ভ্যারিয়েন্ট শনাক্ত হয়েছে। আক্রান্ত শিশুদের ৮০ ভাগেরই বয়স ১০ বছরের নিচে। সর্বনিম্ন ৮ মাস বয়সের শিশুরও এ ভ্যারিয়েন্ট শনাক্ত হয়েছে এবং তা হয়েছে ৫০ ভাগ ছেলে শিশু এবং ৫০ ভাগ মেয়ে শিশুর মধ্যে। জুন থেকে জুলাই মাসের প্রথম সপ্তাহ পর্যন্ত নমুনা সংগ্রহ করার পর এ গবেষণা চালানো হয়। গবেষণায় অন্তর্ভুক্ত করা হয় নবজাতক থেকে ১৬ বছর বয়সি (স্কুলগামী) কোভিড-১৯ আক্রান্ত শিশুদের।

এদিকে, চার দিন পর রোববার চট্টগ্রামে আবারও করোনাভাইরাসের সংক্রমণ বাড়ার তথ্য পাওয়া গেছে। এর আগের ২৪ ঘণ্টায় ৮০১ জনের করোনার সংক্রমণ শনাক্ত হয়েছে। একই সময়ে করোনায় মৃত্যু হয়েছে আরও ১১ জনের। ২০ জুলাই চট্টগ্রামে সংক্রমণ শনাক্ত হয় ৯২৫ জনের ও একদিনে রেকর্ড সংখ্যক ১৫ জন মারা যান। এরপর গত চার দিন সংক্রমণ ও মৃত্যু কমে আসে। এখন পর্যন্ত চট্টগ্রামে ৭৫ হাজার ৩৬৩ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। এরমধ্যে নগরীর বাসিন্দা ৫৬ হাজার ৯০৯ ও বিভিন্ন উপজেলার বাসিন্দা ১৮ হাজার ৪৫৪ জন। এ পর্যন্ত মারা গেছেন ৮৮৫ জন। এর মধ্যে নগরীর বাসিন্দা ৫৪৩ জন এবং বিভিন্ন উপজেলার বাসিন্দা ৩৪২ জন।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন