যশোরে শাওন খুনে জড়িত ছয়জনকে গ্রেফতার
jugantor
যশোরে শাওন খুনে জড়িত ছয়জনকে গ্রেফতার

  যশোর ব্যুরো  

২৭ জুলাই ২০২১, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

শহরের শংকরপুর এলাকার শাওন ওরফে টুনি শাওন হত্যায় জড়িত ছয়জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। হত্যাকাণ্ডে ব্যবহৃত চাকু, চাইনিজ কুড়াল ও মোটরসাইকেল উদ্ধার করা হয়েছে। অভ্যন্তরীণ দ্বন্দ্ব ও আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে এই হত্যাকাণ্ড ঘটেছে। সোমবার জেলা পুলিশের এক প্রেসব্রিফিংয়ে এ তথ্য জানানো হয়েছে। পুলিশ জানায়, গ্রেফতার ব্যক্তিরা হলো শহরের শংকরপুর আশ্রম রোডের মুরগির ফার্ম এলাকার ইয়াসিন হাসান ওরফে রানা, মোহাম্মদ আলী, বিল্লাল হোসেন মৃদুল ও মো. মানিক, ঝিকরগাছা উপজেলার ইস্তা গ্রামের হাফিজুর রহমান বিশ্বাস ওরফে ভ্যাবো এবং জয়কৃষ্ণপুর গ্রামের জয়।

জেলা গোয়েন্দা (ডিবি) পুলিশের ওসি রুপন কুমার সরকার জানান, নিহত শাওন ওরফে টুনি শাওন এবং হত্যাকারীদের মধ্যে এলাকায় আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে দ্বন্দ্ব ছিল। বিরোধের জেরে ঘটনার দিন শাওনকে ডেকে নিয়ে ধারালো অস্ত্র দিয়ে এলোপাতাড়িভাবে কুপিয়ে জখম করে। শাওন জীবন বাঁচাতে কমিউনিটি পুলিশিং অফিসে ঢুকলেও রক্ষা পাননি। ঈদের কারণে কেউ সেখানে ছিল না। তাছাড়া পুরো এলাকা জনশূন্য ছিল। এই সুযোগ নেয় হত্যাকারীরা। পুলিশ পরিদর্শক রুপন কুমার সরকার জানান, শংকরপুর জমাদ্দারপাড়ার আব্দুল হালিম শেখের ছোট ছেলে শাওন ওরফে টুনি শাওন চাঁদাবাজি ও সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডে জড়িত ছিল। ২২ জুলাই রাত সাড়ে ১০টার দিকে যশোর শহরের শংকরপুর জমাদ্দারপাড়া ছোটনের মোড়ে জনশূন্য কমিউনিটি পুলিশিং অফিসে শাওনকে সন্ত্রাসীরা ধারালো অস্ত্র দিয়ে বুকে, পিঠে, গলায় কুপিয়ে রক্তাক্ত করে ফেলে চলে যায়। স্থানীয়রা হাসপাতালে নিয়ে গেলে ডাক্তার তাকে মৃত ঘোষণা করেন। এ ঘটনায় নিহতের বাবা আব্দুল হালিম শেখ ৭-৮ জনকে সন্দেহ করে একটি হত্যা মামলা করেছেন।

মামলাটি চাঞ্চল্যকর ও ক্লুলেস হওয়ায় জেলার পুলিশ সুপার রহস্য উদ্ঘাটন এবং দ্রুত আসামি গ্রেফতারের জন্য থানা পুলিশ ও ডিবি পুলিশকে কঠোর নির্দেশনা দেন। ডিবি ও থানা পুলিশের যৌথ টিম রোববার অভিযান চালিয়ে হত্যাকাণ্ডে জড়িত ৬ জনকে গ্রেফতার করেছে। তাদের মধ্যে দুজন প্রত্যক্ষভাবে হত্যাকাণ্ডে অংশ নেয়। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে তারা হত্যাকাণ্ডের দায় স্বীকার করেছে। তাদের কাছ থেকে হত্যায় ব্যবহৃত চাকু, চাইনিজ কুড়াল ও মোটরসাইকেল জব্দ করা হয়েছে।

প্রেসব্রিফিংয়ে উপস্থিত ছিলেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ডিএসবি) জাহাঙ্গীর আলম, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (খ সার্কেল) বেলাল হোসাইন, ডিবি ওসি রুপন কুমার সরকার প্রমুখ।

যশোরে শাওন খুনে জড়িত ছয়জনকে গ্রেফতার

 যশোর ব্যুরো 
২৭ জুলাই ২০২১, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

শহরের শংকরপুর এলাকার শাওন ওরফে টুনি শাওন হত্যায় জড়িত ছয়জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। হত্যাকাণ্ডে ব্যবহৃত চাকু, চাইনিজ কুড়াল ও মোটরসাইকেল উদ্ধার করা হয়েছে। অভ্যন্তরীণ দ্বন্দ্ব ও আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে এই হত্যাকাণ্ড ঘটেছে। সোমবার জেলা পুলিশের এক প্রেসব্রিফিংয়ে এ তথ্য জানানো হয়েছে। পুলিশ জানায়, গ্রেফতার ব্যক্তিরা হলো শহরের শংকরপুর আশ্রম রোডের মুরগির ফার্ম এলাকার ইয়াসিন হাসান ওরফে রানা, মোহাম্মদ আলী, বিল্লাল হোসেন মৃদুল ও মো. মানিক, ঝিকরগাছা উপজেলার ইস্তা গ্রামের হাফিজুর রহমান বিশ্বাস ওরফে ভ্যাবো এবং জয়কৃষ্ণপুর গ্রামের জয়।

জেলা গোয়েন্দা (ডিবি) পুলিশের ওসি রুপন কুমার সরকার জানান, নিহত শাওন ওরফে টুনি শাওন এবং হত্যাকারীদের মধ্যে এলাকায় আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে দ্বন্দ্ব ছিল। বিরোধের জেরে ঘটনার দিন শাওনকে ডেকে নিয়ে ধারালো অস্ত্র দিয়ে এলোপাতাড়িভাবে কুপিয়ে জখম করে। শাওন জীবন বাঁচাতে কমিউনিটি পুলিশিং অফিসে ঢুকলেও রক্ষা পাননি। ঈদের কারণে কেউ সেখানে ছিল না। তাছাড়া পুরো এলাকা জনশূন্য ছিল। এই সুযোগ নেয় হত্যাকারীরা। পুলিশ পরিদর্শক রুপন কুমার সরকার জানান, শংকরপুর জমাদ্দারপাড়ার আব্দুল হালিম শেখের ছোট ছেলে শাওন ওরফে টুনি শাওন চাঁদাবাজি ও সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডে জড়িত ছিল। ২২ জুলাই রাত সাড়ে ১০টার দিকে যশোর শহরের শংকরপুর জমাদ্দারপাড়া ছোটনের মোড়ে জনশূন্য কমিউনিটি পুলিশিং অফিসে শাওনকে সন্ত্রাসীরা ধারালো অস্ত্র দিয়ে বুকে, পিঠে, গলায় কুপিয়ে রক্তাক্ত করে ফেলে চলে যায়। স্থানীয়রা হাসপাতালে নিয়ে গেলে ডাক্তার তাকে মৃত ঘোষণা করেন। এ ঘটনায় নিহতের বাবা আব্দুল হালিম শেখ ৭-৮ জনকে সন্দেহ করে একটি হত্যা মামলা করেছেন।

মামলাটি চাঞ্চল্যকর ও ক্লুলেস হওয়ায় জেলার পুলিশ সুপার রহস্য উদ্ঘাটন এবং দ্রুত আসামি গ্রেফতারের জন্য থানা পুলিশ ও ডিবি পুলিশকে কঠোর নির্দেশনা দেন। ডিবি ও থানা পুলিশের যৌথ টিম রোববার অভিযান চালিয়ে হত্যাকাণ্ডে জড়িত ৬ জনকে গ্রেফতার করেছে। তাদের মধ্যে দুজন প্রত্যক্ষভাবে হত্যাকাণ্ডে অংশ নেয়। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে তারা হত্যাকাণ্ডের দায় স্বীকার করেছে। তাদের কাছ থেকে হত্যায় ব্যবহৃত চাকু, চাইনিজ কুড়াল ও মোটরসাইকেল জব্দ করা হয়েছে।

প্রেসব্রিফিংয়ে উপস্থিত ছিলেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ডিএসবি) জাহাঙ্গীর আলম, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (খ সার্কেল) বেলাল হোসাইন, ডিবি ওসি রুপন কুমার সরকার প্রমুখ।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন