লঞ্চে নাচানাচি, বিদ্যুতায়িত হয়ে কিশোরের মৃত্যু
jugantor
লঞ্চে নাচানাচি, বিদ্যুতায়িত হয়ে কিশোরের মৃত্যু

  তিতাস (কুমিল্লা) প্রতিনিধি  

২৫ আগস্ট ২০২১, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

কুমিল্লার তিতাসে ডিজে পিকনিকের লঞ্চের ছাদে নাচানাচির সময় বিদ্যুতায়িত হয়ে এক কিশোরের মৃত্যু হয়েছে। শিবপুর নদীর মুখে মঙ্গলবার সকাল ৭টায় লাশ ভেসে উঠলে তিতাস থানা পুলিশ তা উদ্ধার করে। নিহত কিশোর উপজেলার শিবপুর গ্রামের সিএনজিচালক আব্দুল মতিনের ছেলে মৌটুপী দাখিল মাদ্রাসার সপ্তম শ্রেণির ছাত্র শামীম আহমেদ (১৪)।

দড়িকান্দি ব্রিজ এলাকায় সোমবার রাতের এ ঘটনায় আহত হয়েছে আরও ১৪ জন। তাদের দাউদকান্দি ও তিতাস উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। এদের মধ্যে চারজনকে গুরুতর অবস্থায় ঢাকা মেডিকেল কলেজ ও ঢাকা বার্ন ইউনিটে পাঠানো হয়েছে।

জানা গেছে, শিবপুর গ্রামের যুবক ও কিশোরদের উদ্যোগে ওই পিকনিকের আয়োজন করা হয়। ঘটনার রাতে ২০ জনের একটি দল ট্রায়াল দেওয়ার জন্য লঞ্চটি নিয়ে তিতাস নদীতে বের হয়। এ সময় নদীর দুইপাড় দড়িকান্দি থেকে শিবপুরে টানা বিদ্যুৎ লাইনের তারের সঙ্গে ছাদে থাকা কিশোররা জড়িয়ে যায়। বিদ্যুতায়িত হয়ে কেউ নদীতে ও কেউ লঞ্চের মধ্যে আহতাবস্থায় পড়ে যায়। চিৎকার শুনে স্থানীয় লোকজন তাদের উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে যান। এদের মধ্যে শামীম পানিতে পড়ে সারারাত নিখোঁজ ছিল। তিতাস থানার ওসি সুধীন চন্দ্র দাস বলেন, এ ব্যাপারে জেলা পুলিশ সুপারের নির্দেশে পুলিশ তৎপর রয়েছে। ইতোমধ্যে কয়েকটি ডিজে পিকনিক বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রাশেদা আক্তার বলেন, উচ্চস্বরে মিউজিক বাজিয়ে পিকনিকের বিষয়ে গত আইনশৃঙ্খলা কমিটির মাসিক সভায় প্রশাসনের পক্ষ থেকে প্রত্যেক ইউপি চেয়ারম্যানকে কঠোর নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। তবু এসব বন্ধ করা যাচ্ছে না। এতে স্থানীয় লোকজনদেরও এগিয়ে আসা উচিত।

লঞ্চে নাচানাচি, বিদ্যুতায়িত হয়ে কিশোরের মৃত্যু

 তিতাস (কুমিল্লা) প্রতিনিধি 
২৫ আগস্ট ২০২১, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

কুমিল্লার তিতাসে ডিজে পিকনিকের লঞ্চের ছাদে নাচানাচির সময় বিদ্যুতায়িত হয়ে এক কিশোরের মৃত্যু হয়েছে। শিবপুর নদীর মুখে মঙ্গলবার সকাল ৭টায় লাশ ভেসে উঠলে তিতাস থানা পুলিশ তা উদ্ধার করে। নিহত কিশোর উপজেলার শিবপুর গ্রামের সিএনজিচালক আব্দুল মতিনের ছেলে মৌটুপী দাখিল মাদ্রাসার সপ্তম শ্রেণির ছাত্র শামীম আহমেদ (১৪)।

দড়িকান্দি ব্রিজ এলাকায় সোমবার রাতের এ ঘটনায় আহত হয়েছে আরও ১৪ জন। তাদের দাউদকান্দি ও তিতাস উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। এদের মধ্যে চারজনকে গুরুতর অবস্থায় ঢাকা মেডিকেল কলেজ ও ঢাকা বার্ন ইউনিটে পাঠানো হয়েছে।

জানা গেছে, শিবপুর গ্রামের যুবক ও কিশোরদের উদ্যোগে ওই পিকনিকের আয়োজন করা হয়। ঘটনার রাতে ২০ জনের একটি দল ট্রায়াল দেওয়ার জন্য লঞ্চটি নিয়ে তিতাস নদীতে বের হয়। এ সময় নদীর দুইপাড় দড়িকান্দি থেকে শিবপুরে টানা বিদ্যুৎ লাইনের তারের সঙ্গে ছাদে থাকা কিশোররা জড়িয়ে যায়। বিদ্যুতায়িত হয়ে কেউ নদীতে ও কেউ লঞ্চের মধ্যে আহতাবস্থায় পড়ে যায়। চিৎকার শুনে স্থানীয় লোকজন তাদের উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে যান। এদের মধ্যে শামীম পানিতে পড়ে সারারাত নিখোঁজ ছিল। তিতাস থানার ওসি সুধীন চন্দ্র দাস বলেন, এ ব্যাপারে জেলা পুলিশ সুপারের নির্দেশে পুলিশ তৎপর রয়েছে। ইতোমধ্যে কয়েকটি ডিজে পিকনিক বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রাশেদা আক্তার বলেন, উচ্চস্বরে মিউজিক বাজিয়ে পিকনিকের বিষয়ে গত আইনশৃঙ্খলা কমিটির মাসিক সভায় প্রশাসনের পক্ষ থেকে প্রত্যেক ইউপি চেয়ারম্যানকে কঠোর নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। তবু এসব বন্ধ করা যাচ্ছে না। এতে স্থানীয় লোকজনদেরও এগিয়ে আসা উচিত।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন