রাজশাহীতে সাবেক প্রধান শিক্ষককে হত্যার অভিযোগ
jugantor
রাজশাহীতে সাবেক প্রধান শিক্ষককে হত্যার অভিযোগ

  রাজশাহী ব্যুরো  

২২ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

রাজশাহীতে স্বর্ণালংকারের জন্য প্রাথমিক বিদ্যালয়ের এক সাবেক প্রধান শিক্ষককে হত্যার অভিযোগ পাওয়া গেছে। নিহত মায়া রানি ঘোষ (৬৮) মহানগরীর মন্নুজান সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ছিলেন। তিনি ২০১০ সালে চাকরি থেকে অবসর নেন।

মায়া রানি স্কুল সংলগ্ন মহানগরীর কুমারপাড়া ঘোষপাড়া মহল্লার বাসিন্দা। তিনি অবিবাহিত ছিলেন। মহানগরীর বোয়ালিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নিবারন চন্দ্র বর্মণ এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, মায়া রানি বাড়িতে একাই থাকতেন। গৃহকর্মী হেনা ঘোষ বাড়িতে মঙ্গলবার সকালে তাকে চা বানিয়ে দিয়ে যান। দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে মায়া রানির পালিত মেয়ে পুতুল ঘোষ শ্বশুরবাড়ি থেকে আসেন। এ সময় ঘরের মেঝেতে মায়া রানির লাশ পড়ে থাকতে দেখেন তিনি।

ওসি জানান, স্বর্ণালংকারের পাশাপাশি মায়া রানির মোবাইল ফোনটিও পাওয়া যায়নি। ধারণা করা হচ্ছে, তাকে হত্যার পর এসব নিয়ে যাওয়া হয়েছে। সুরতহাল প্রতিবেদন প্রস্তুতের পর মায়া রানির লাশ ময়নাতদন্তের জন্য রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে। পুলিশ এ ঘটনার সঙ্গে জড়িত ব্যক্তিকে শনাক্ত করার কাজ শুরু করেছে। এ নিয়ে থানায় হত্যা মামলা হবে বলেও জানান ওসি।

রাজশাহীতে সাবেক প্রধান শিক্ষককে হত্যার অভিযোগ

 রাজশাহী ব্যুরো 
২২ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

রাজশাহীতে স্বর্ণালংকারের জন্য প্রাথমিক বিদ্যালয়ের এক সাবেক প্রধান শিক্ষককে হত্যার অভিযোগ পাওয়া গেছে। নিহত মায়া রানি ঘোষ (৬৮) মহানগরীর মন্নুজান সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ছিলেন। তিনি ২০১০ সালে চাকরি থেকে অবসর নেন।

মায়া রানি স্কুল সংলগ্ন মহানগরীর কুমারপাড়া ঘোষপাড়া মহল্লার বাসিন্দা। তিনি অবিবাহিত ছিলেন। মহানগরীর বোয়ালিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নিবারন চন্দ্র বর্মণ এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, মায়া রানি বাড়িতে একাই থাকতেন। গৃহকর্মী হেনা ঘোষ বাড়িতে মঙ্গলবার সকালে তাকে চা বানিয়ে দিয়ে যান। দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে মায়া রানির পালিত মেয়ে পুতুল ঘোষ শ্বশুরবাড়ি থেকে আসেন। এ সময় ঘরের মেঝেতে মায়া রানির লাশ পড়ে থাকতে দেখেন তিনি।

ওসি জানান, স্বর্ণালংকারের পাশাপাশি মায়া রানির মোবাইল ফোনটিও পাওয়া যায়নি। ধারণা করা হচ্ছে, তাকে হত্যার পর এসব নিয়ে যাওয়া হয়েছে। সুরতহাল প্রতিবেদন প্রস্তুতের পর মায়া রানির লাশ ময়নাতদন্তের জন্য রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে। পুলিশ এ ঘটনার সঙ্গে জড়িত ব্যক্তিকে শনাক্ত করার কাজ শুরু করেছে। এ নিয়ে থানায় হত্যা মামলা হবে বলেও জানান ওসি।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন