পাবনায় দুজনের যাবজ্জীবন
jugantor
প্রেমের প্রস্তাব দেওয়ায় কুপিয়ে হত্যা
পাবনায় দুজনের যাবজ্জীবন

  পাবনা প্রতিনিধি  

২২ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

প্রতিবন্ধী যুবক সেলিম বিশ্বাস (২৫) প্রেম ও বিয়ের প্রস্তাব দিয়েছিলেন গ্রামের এক স্কুল পড়ুয়া মেয়েকে। এতে ওই ছাত্রীর ভাই ক্ষুব্ধ হয়ে বন্ধুকে সঙ্গে নিয়ে তাকে কুপিয়ে ও শ্বাসরোধে হত্যা করে। এ হত্যার অপরাধে দুজনকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। মঙ্গলবার বিকালে পাবনা জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক আহসান তারেক এ রায় দেন। দণ্ডপ্রাপ্তরা হলো-সদরের বজ নাথপুর গ্রামের আজমত প্রামাণিকের ছেলে জহুরুল (৩৭), বলরামপুর মহল্লার আব্দুল আজিজের ছেলে আজাদ হোসেন (৩২)। নিহত সেলিম পাবনা সদর উপজেলার বজ নাথপুর মহল্লার আজহার আলীর ছেলে। তার বাম পা কাটা ও বাম হাত অকেজো ছিল।

পিপি দেওয়ান মজনুল হক জানান, ২০০৮ সালের ২ জুন রাতে বজ নাথপুরের একটি চায়ের দোকান থেকে বাড়ি ফিরছিল সেলিম বিশ্বাস। ফেরার পথে জহুরুল ও আজাদ হোসেন তাকে কুপিয়ে ও শ্বাসরোধে হত্যা করে। পরদিন বাড়ির পাশে একটি কলাবাগানে তার লাশ পাওয়া যায়। এ ঘটনায় ওই বছরের ৪ জুন সেলিমের বাবা আজহার আলী অজ্ঞাত ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে থানায় মামলা করেন। পুলিশ তথ্য-প্রযুক্তি ব্যবহার করে দুই যুবককে গ্রেফতার করে। দীর্ঘ শুনানির পর আদালত হত্যার সঙ্গে জড়িত দুজনকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেন।

প্রেমের প্রস্তাব দেওয়ায় কুপিয়ে হত্যা

পাবনায় দুজনের যাবজ্জীবন

 পাবনা প্রতিনিধি 
২২ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

প্রতিবন্ধী যুবক সেলিম বিশ্বাস (২৫) প্রেম ও বিয়ের প্রস্তাব দিয়েছিলেন গ্রামের এক স্কুল পড়ুয়া মেয়েকে। এতে ওই ছাত্রীর ভাই ক্ষুব্ধ হয়ে বন্ধুকে সঙ্গে নিয়ে তাকে কুপিয়ে ও শ্বাসরোধে হত্যা করে। এ হত্যার অপরাধে দুজনকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। মঙ্গলবার বিকালে পাবনা জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক আহসান তারেক এ রায় দেন। দণ্ডপ্রাপ্তরা হলো-সদরের বজ নাথপুর গ্রামের আজমত প্রামাণিকের ছেলে জহুরুল (৩৭), বলরামপুর মহল্লার আব্দুল আজিজের ছেলে আজাদ হোসেন (৩২)। নিহত সেলিম পাবনা সদর উপজেলার বজ নাথপুর মহল্লার আজহার আলীর ছেলে। তার বাম পা কাটা ও বাম হাত অকেজো ছিল।

পিপি দেওয়ান মজনুল হক জানান, ২০০৮ সালের ২ জুন রাতে বজ নাথপুরের একটি চায়ের দোকান থেকে বাড়ি ফিরছিল সেলিম বিশ্বাস। ফেরার পথে জহুরুল ও আজাদ হোসেন তাকে কুপিয়ে ও শ্বাসরোধে হত্যা করে। পরদিন বাড়ির পাশে একটি কলাবাগানে তার লাশ পাওয়া যায়। এ ঘটনায় ওই বছরের ৪ জুন সেলিমের বাবা আজহার আলী অজ্ঞাত ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে থানায় মামলা করেন। পুলিশ তথ্য-প্রযুক্তি ব্যবহার করে দুই যুবককে গ্রেফতার করে। দীর্ঘ শুনানির পর আদালত হত্যার সঙ্গে জড়িত দুজনকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেন।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন