গ্রেফতারি পরোয়ানা নিয়ে প্রকাশ্যে ঘুরছেন স্বামী জিয়া
jugantor
মনোহরগঞ্জ ভাইস চেয়ারম্যানের মামলা
গ্রেফতারি পরোয়ানা নিয়ে প্রকাশ্যে ঘুরছেন স্বামী জিয়া

  কুমিল্লা ব্যুরো  

২২ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

মনোহরগঞ্জ উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান আফরোজা কুসুমের করা মামলায় গ্রেফতারি পরোয়ানা নিয়ে প্রকাশ্যে ঘুরছেন স্বামী ঝলম দক্ষিণ ইউপি চেয়ারম্যান জিয়াউর রহমান ওরফে শাহীন জিয়া। কুমিল্লার নারী ও শিশু আদালতের বিচারক ৮ সেপ্টেম্বর ওই চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়না জারি করেন।

আফরোজা কুসুমের দাবি, আদালতের জারি করা গ্রেফতারি পরোয়ানাটি মনোহরগঞ্জ থানায় গেলেও পুলিশ রহস্যজনক কারণে শাহীন জিয়াকে গ্রেফতার করছে না। উলটো চেয়ারম্যান জিয়া প্রকাশ্যে ঘুরে বেড়াচ্ছেন। এছাড়া জিয়া মামলা তুলে নিতে বিভিন্নভাবে হুমকি দিচ্ছেন। ইউপি চেয়ারম্যান শাহীন জিয়া উপজেলা যুবলীগের যুগ্ম আহ্বায়কের পদে রয়েছেন। আর আফরোজা কুসুম জেলা মহিলা লীগের সহসভাপতি ও উপজেলা আওয়ামী লীগের মহিলাবিষয়ক সম্পাদক।

আফরোজা কুসুম মঙ্গলবার দুপুরে জানান, ‘শাহীন জিয়া আমাকে বিয়ের পর থেকে যৌতুকের জন্য অনেকবার নির্যাতন ও মারধর করেছে। আমি লজ্জা ও মান-সম্মানের ভয়ে এসব কথা প্রকাশ না করে সমাধানের চেষ্টা করেছি। আমি তার কাছে সামাজিক স্বীকৃতি চেয়েছি, কিন্তু সে আমাকে স্বীকৃতি দিতেও টালবাহানা করে। স্বীকৃতি চাওয়ায় সে আমার কাছে ১০ লাখ টাকা যৌতুক দাবি করে ও আমাকে বারবার নির্যাতন করে। এসব ঘটনায় গত বছর তার বিরুদ্ধে কুমিল্লার নারী ও শিশু আদালতে মামলা করেছি। এতে জিয়া আমাকে হত্যার চেষ্টাও চালায়। এরপর আমি থানায় তার বিরুদ্ধে জিডি করেছি।’

তিনি জানান, আইনি প্রক্রিয়ায় ওই মামলায় আদালত তার বিরুদ্ধে ৮ সেপ্টেম্বর ওয়ারেন্ট জারি করেছেন। আমি নিজেই বিষয়টি থানার ওসিকে জানিয়েছি। কিন্তু পুলিশ তাকে গ্রেফতার করছে না। উলটো জিয়া আইনকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে প্রকাশ্যে ঘুরছে। এছাড়া বিভিন্নভাবে আমাকে হুমকি দিচ্ছে মামলা তুলে নেওয়ার জন্য। আমি এখন আতঙ্কে দিন কাটাচ্ছি। তাকে দ্রুত গ্রেফতারের জন্য প্রশাসনের কাছে দাবি জানান তিনি। অভিযুক্ত জিয়াউর রহমান ওরফে শাহীন জিয়া ফোন ধরেননি। খুদে বার্তা পাঠালেও প্রত্যুত্তর দেননি। মনোহরগঞ্জ থানার ওসি মো. মাহাবুল কবির বলেন, বিষয়টি আমার জানা নেই। গ্রেফতারি পরোয়ানার কপি এখনো হাতে পাইনি।

মনোহরগঞ্জ ভাইস চেয়ারম্যানের মামলা

গ্রেফতারি পরোয়ানা নিয়ে প্রকাশ্যে ঘুরছেন স্বামী জিয়া

 কুমিল্লা ব্যুরো 
২২ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

মনোহরগঞ্জ উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান আফরোজা কুসুমের করা মামলায় গ্রেফতারি পরোয়ানা নিয়ে প্রকাশ্যে ঘুরছেন স্বামী ঝলম দক্ষিণ ইউপি চেয়ারম্যান জিয়াউর রহমান ওরফে শাহীন জিয়া। কুমিল্লার নারী ও শিশু আদালতের বিচারক ৮ সেপ্টেম্বর ওই চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়না জারি করেন।

আফরোজা কুসুমের দাবি, আদালতের জারি করা গ্রেফতারি পরোয়ানাটি মনোহরগঞ্জ থানায় গেলেও পুলিশ রহস্যজনক কারণে শাহীন জিয়াকে গ্রেফতার করছে না। উলটো চেয়ারম্যান জিয়া প্রকাশ্যে ঘুরে বেড়াচ্ছেন। এছাড়া জিয়া মামলা তুলে নিতে বিভিন্নভাবে হুমকি দিচ্ছেন। ইউপি চেয়ারম্যান শাহীন জিয়া উপজেলা যুবলীগের যুগ্ম আহ্বায়কের পদে রয়েছেন। আর আফরোজা কুসুম জেলা মহিলা লীগের সহসভাপতি ও উপজেলা আওয়ামী লীগের মহিলাবিষয়ক সম্পাদক।

আফরোজা কুসুম মঙ্গলবার দুপুরে জানান, ‘শাহীন জিয়া আমাকে বিয়ের পর থেকে যৌতুকের জন্য অনেকবার নির্যাতন ও মারধর করেছে। আমি লজ্জা ও মান-সম্মানের ভয়ে এসব কথা প্রকাশ না করে সমাধানের চেষ্টা করেছি। আমি তার কাছে সামাজিক স্বীকৃতি চেয়েছি, কিন্তু সে আমাকে স্বীকৃতি দিতেও টালবাহানা করে। স্বীকৃতি চাওয়ায় সে আমার কাছে ১০ লাখ টাকা যৌতুক দাবি করে ও আমাকে বারবার নির্যাতন করে। এসব ঘটনায় গত বছর তার বিরুদ্ধে কুমিল্লার নারী ও শিশু আদালতে মামলা করেছি। এতে জিয়া আমাকে হত্যার চেষ্টাও চালায়। এরপর আমি থানায় তার বিরুদ্ধে জিডি করেছি।’

তিনি জানান, আইনি প্রক্রিয়ায় ওই মামলায় আদালত তার বিরুদ্ধে ৮ সেপ্টেম্বর ওয়ারেন্ট জারি করেছেন। আমি নিজেই বিষয়টি থানার ওসিকে জানিয়েছি। কিন্তু পুলিশ তাকে গ্রেফতার করছে না। উলটো জিয়া আইনকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে প্রকাশ্যে ঘুরছে। এছাড়া বিভিন্নভাবে আমাকে হুমকি দিচ্ছে মামলা তুলে নেওয়ার জন্য। আমি এখন আতঙ্কে দিন কাটাচ্ছি। তাকে দ্রুত গ্রেফতারের জন্য প্রশাসনের কাছে দাবি জানান তিনি। অভিযুক্ত জিয়াউর রহমান ওরফে শাহীন জিয়া ফোন ধরেননি। খুদে বার্তা পাঠালেও প্রত্যুত্তর দেননি। মনোহরগঞ্জ থানার ওসি মো. মাহাবুল কবির বলেন, বিষয়টি আমার জানা নেই। গ্রেফতারি পরোয়ানার কপি এখনো হাতে পাইনি।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন