বিয়ানীবাজারে স্কুল শৌচাগারের ট্যাংকে পড়ে শিশুর মৃত্যু
jugantor
বিয়ানীবাজারে স্কুল শৌচাগারের ট্যাংকে পড়ে শিশুর মৃত্যু

  বিয়ানীবাজার (সিলেট) প্রতিনিধি  

২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

বিয়ানীবাজারের চারখাই ইউনিয়নের একটি বিদ্যালয়ের নির্মাণাধীন ভবন সংযুক্ত শৌচাগারের ট্যাংকে পড়ে সামির হোসেন (৯) নামে এক শিশুর মৃত্যু হয়েছে। লাংলাকোনা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে বৃহস্পতিবার বিকালে এ দুর্ঘটনা ঘ?টে। নিহত শিশু সামির হোসেন উপজেলার চারখাই ইউ?নিয়?নের দত্তগ্রা?মের অটোরিকশা চালক গৌছ উদ্দিনের ছেলে। শিশুটির পরিবারকে ২০ হাজার টাকা সহায়তা দিয়েছেন উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা মো. আশিক নূর।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, সামির হোসেন নামের ওই শিশুটি জš§গতভাবেই বাকপ্রতিবন্ধী। শিশুটি প্রায়ই বাড়ির আশপাশে ঘুরে বেড়ায়। প্রতিদিনের মতো বৃহস্পতিবার দুপুরে ওই স্কুলের দিকে ঘুরতে বের হয়। স্কুলের নির্মাণাধীন ভবনের কাজ দীর্ঘদিন ধরে বন্ধ থাকায় রাস্তা সংলগ্ন শৌচাগারের নির্মাণাধীন ট্যাংক অরক্ষিত অবস্থায় পড়ে আছে। তাতে বৃষ্টির পানি জমে জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হয়ে বিপজ্জনক হয়ে উঠেছে। অসাবধানতাবশত শিশুটি ট্যাংকের মধ্যে পড়ে ডুবে যায়। পরে লাশ পানির উপরে ভেসে উঠলে পথচারীরা প্রথমে দেখতে পান। তারা পুলিশ ও জনপ্রতিনিধিদের বিষয়টি জানান। খবর পেয়ে চারখাই ইউপি চেয়ারম্যান মাহমুদ আলী, চারখাই পুলিশ ক্যাম্পের ইনচার্জ এসআই ফয়সল আহমদ ও এসআই নূরনবী লাশটি উদ্ধার করেন।

এলাকাবাসীর অভিযোগ, স্কুলের নতুন ভবনের নির্মাণকাজ দীর্ঘদিন আগে সম্পন্ন হলেও ভবন সংযুক্ত শৌচাগারের কাজ বন্ধ রয়েছে। জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হওয়ায় ট্যাংকটি বিপজ্জনক হয়ে উঠেছে। বিয়ানীবাজার উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসের সহকারী অফিসার মো. আশরাফুল ইসলাম বলেন, অরক্ষিত ট্যাংকের নির্মাণকাজ দ্রুত শেষ করতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। শিশুটির বাড়িতে ছুটে যান বিয়ানীবাজার উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা।

বিয়ানীবাজারে স্কুল শৌচাগারের ট্যাংকে পড়ে শিশুর মৃত্যু

 বিয়ানীবাজার (সিলেট) প্রতিনিধি 
২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

বিয়ানীবাজারের চারখাই ইউনিয়নের একটি বিদ্যালয়ের নির্মাণাধীন ভবন সংযুক্ত শৌচাগারের ট্যাংকে পড়ে সামির হোসেন (৯) নামে এক শিশুর মৃত্যু হয়েছে। লাংলাকোনা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে বৃহস্পতিবার বিকালে এ দুর্ঘটনা ঘ?টে। নিহত শিশু সামির হোসেন উপজেলার চারখাই ইউ?নিয়?নের দত্তগ্রা?মের অটোরিকশা চালক গৌছ উদ্দিনের ছেলে। শিশুটির পরিবারকে ২০ হাজার টাকা সহায়তা দিয়েছেন উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা মো. আশিক নূর।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, সামির হোসেন নামের ওই শিশুটি জš§গতভাবেই বাকপ্রতিবন্ধী। শিশুটি প্রায়ই বাড়ির আশপাশে ঘুরে বেড়ায়। প্রতিদিনের মতো বৃহস্পতিবার দুপুরে ওই স্কুলের দিকে ঘুরতে বের হয়। স্কুলের নির্মাণাধীন ভবনের কাজ দীর্ঘদিন ধরে বন্ধ থাকায় রাস্তা সংলগ্ন শৌচাগারের নির্মাণাধীন ট্যাংক অরক্ষিত অবস্থায় পড়ে আছে। তাতে বৃষ্টির পানি জমে জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হয়ে বিপজ্জনক হয়ে উঠেছে। অসাবধানতাবশত শিশুটি ট্যাংকের মধ্যে পড়ে ডুবে যায়। পরে লাশ পানির উপরে ভেসে উঠলে পথচারীরা প্রথমে দেখতে পান। তারা পুলিশ ও জনপ্রতিনিধিদের বিষয়টি জানান। খবর পেয়ে চারখাই ইউপি চেয়ারম্যান মাহমুদ আলী, চারখাই পুলিশ ক্যাম্পের ইনচার্জ এসআই ফয়সল আহমদ ও এসআই নূরনবী লাশটি উদ্ধার করেন।

এলাকাবাসীর অভিযোগ, স্কুলের নতুন ভবনের নির্মাণকাজ দীর্ঘদিন আগে সম্পন্ন হলেও ভবন সংযুক্ত শৌচাগারের কাজ বন্ধ রয়েছে। জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হওয়ায় ট্যাংকটি বিপজ্জনক হয়ে উঠেছে। বিয়ানীবাজার উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসের সহকারী অফিসার মো. আশরাফুল ইসলাম বলেন, অরক্ষিত ট্যাংকের নির্মাণকাজ দ্রুত শেষ করতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। শিশুটির বাড়িতে ছুটে যান বিয়ানীবাজার উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন