কসবায় যুবদলের মিছিল পুলিশের বাধায় ছত্রভঙ্গ
jugantor
কসবায় যুবদলের মিছিল পুলিশের বাধায় ছত্রভঙ্গ

  কসবা (ব্রাহ্মণবাড়িয়া) প্রতিনিধি  

২৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

দুই গ্রুপে সংঘর্ষের আশঙ্কায় কসবায় উপজেলা ও পৌর যুবদলের নতুন কমিটির আনন্দ মিছিলে পুলিশের বাধায় ছাত্রভঙ্গ হয়ে যায়। এ সময় পুলিশের লাঠিপেটা ও মিছিলকারীদের ইটপাটকেলে উপজেলা যুবদলের আহ্বায়ক মাসুদুল হক ভূঁইয়াসহ ১০-১২ জন নেতাকর্মী আহত হয়েছে। এছাড়া সংবাদ সংগ্রহ করতে গিয়ে ইটপাটকেলের আঘাতে আহত হয়েছেন দুই সাংবাদিক। আহতরা হলেন মোহনা টেলিভিশনের কসবা উপজেলা প্রতিনিধি খ. ম. হারুনুর রশিদ ঢালী ও সময় টেলিভিশনের ব্রা?হ্মণবাড়িয়া ব্যুরো কার্যালয়ের ক্যামেরাপারসন জুয়েল। গ্রেফতার হয়েছেন উপজেলা ছাত্রদলের জ্যেষ্ঠ যুগ্ম আহ্বায়ক সিরাজুল হক ওরফে ইমু (২৭)। তিনি কসবা উপজেলা কুটি গ্রামের মিলন মিয়ার ছেলে। তাকে কসবা থানা হাজতে রাখা হয়েছে। জানা গেছে, সম্প্রতি কসবা উপজেলা ও পৌর যুবদলের নতুন আহ্বায়ক কমিটি তারেক রহমানের ব্যক্তিগত সহকারী আব্দুর রহমান সানির বড় ভাই কবির আহমেদ ভূইয়া তার অনুসারীদের দিয়ে এককভাবে অনুমোদন আনেন। কমিটি গঠনের পর থেকে পদবঞ্চিতরা কসবায় বিক্ষোভ করে আসছে। সোমবার নতুন কমিটির আহ্বায়ক মাসুদুল হক ভূঁইয়া নেতাকর্মীদের নিয়ে শোডাউনের প্রস্তুতি নেন। এই খবরে বিক্ষুব্ধ পদবঞ্চিত যুবদলের নেতাকর্মীও শোডাউন প্রতিহত করতে পৌর শহরে অবস্থান নিচ্ছিলেন। মিছিলে সংঘর্ষের আশঙ্কায় পুলিশ বাধা দেয়।

জানা গেছে, নবগঠিত উপজেলা ও পৌর যুবদলের উদ্যোগে সোমবার সকালে উপজেলা বিএনপির আহ্বায়ক ও ব্রা?হ্মণবাড়িয়া আইনজীবী সমিতির সাবেক সভাপতি মো. ফখর উদ্দিন, উপজেলা যুবদলের আহ্বায়ক মো. মাসুদুল হক ভূঁইয়ার নেতৃত্বে সকাল ৯টার দিকে নেতাকর্মীরা আনন্দ মিছিলটি নিয়ে অনন্তপুর থেকে উপজেলা সদরে আসার সময় আদ্রা এলাকায় আসলে পুলিশ বাধা দেয়। যুবদল নেতাকর্মীরা ধাওয়া-পাল্টাধাওয়া ও ইট-পাটকেল নিক্ষেপ করে। পুলিশ লাঠিপেটা করে মিছিলটি ছত্রভঙ্গ করে দেয়। এতে যুবদলের আহ্বায়ক মাসুদুল হকসহ দলীয় ১০-১২ জন নেতাকর্মী আহত হয়।

কসবা উপজেলা যুবদলের আহবায়ক মো. মাসুদুল হক (৪৬) বলেন, উপজেলা ও পৌর যুবদলের নতুন কমিটি গঠনের পর প্রায় এক হাজার নেতাকর্মী নিয়ে একটি শান্তিপূর্ণ আনন্দ মিছিলে পুলিশ বাধা দেয়। এক পর্যায়ে পুলিশ লাঠিচার্জ করে মিছিলটি ছত্রভঙ্গ করে দেয়। পুলিশের লাঠিপেটায় আমিসহ নেতাকর্মীরা আহত হন। কসবা থানার ওসি মুহাম্মদ আলমগীর ভূঁইয়া বলেন, উপজেলা ও পৌর যুবদলের দুই দল রয়েছে। একদল পদধারী ও একদল পদবঞ্চিত। দুই দলের মধ্যেই উত্তেজনা রয়েছে। পদধারীদের আনন্দ মিছিল করতে কোনো ধরনের অনুমতি নেওয়া হয়নি। মিছিলটি উপজেলা সদরে আসলে দুই দলের মধ্যে সংঘর্ষের আশঙ্কা রয়েছে। এ কারণে মিছিলটি করতে দেওয়া হয়নি। মিছিলে বিঘ্ন ঘটানোর অপরাধে একজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। এ ঘটনায় থানায় মামলার প্রস্তুতি চলছে।

কসবায় যুবদলের মিছিল পুলিশের বাধায় ছত্রভঙ্গ

 কসবা (ব্রাহ্মণবাড়িয়া) প্রতিনিধি 
২৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

দুই গ্রুপে সংঘর্ষের আশঙ্কায় কসবায় উপজেলা ও পৌর যুবদলের নতুন কমিটির আনন্দ মিছিলে পুলিশের বাধায় ছাত্রভঙ্গ হয়ে যায়। এ সময় পুলিশের লাঠিপেটা ও মিছিলকারীদের ইটপাটকেলে উপজেলা যুবদলের আহ্বায়ক মাসুদুল হক ভূঁইয়াসহ ১০-১২ জন নেতাকর্মী আহত হয়েছে। এছাড়া সংবাদ সংগ্রহ করতে গিয়ে ইটপাটকেলের আঘাতে আহত হয়েছেন দুই সাংবাদিক। আহতরা হলেন মোহনা টেলিভিশনের কসবা উপজেলা প্রতিনিধি খ. ম. হারুনুর রশিদ ঢালী ও সময় টেলিভিশনের ব্রা?হ্মণবাড়িয়া ব্যুরো কার্যালয়ের ক্যামেরাপারসন জুয়েল। গ্রেফতার হয়েছেন উপজেলা ছাত্রদলের জ্যেষ্ঠ যুগ্ম আহ্বায়ক সিরাজুল হক ওরফে ইমু (২৭)। তিনি কসবা উপজেলা কুটি গ্রামের মিলন মিয়ার ছেলে। তাকে কসবা থানা হাজতে রাখা হয়েছে। জানা গেছে, সম্প্রতি কসবা উপজেলা ও পৌর যুবদলের নতুন আহ্বায়ক কমিটি তারেক রহমানের ব্যক্তিগত সহকারী আব্দুর রহমান সানির বড় ভাই কবির আহমেদ ভূইয়া তার অনুসারীদের দিয়ে এককভাবে অনুমোদন আনেন। কমিটি গঠনের পর থেকে পদবঞ্চিতরা কসবায় বিক্ষোভ করে আসছে। সোমবার নতুন কমিটির আহ্বায়ক মাসুদুল হক ভূঁইয়া নেতাকর্মীদের নিয়ে শোডাউনের প্রস্তুতি নেন। এই খবরে বিক্ষুব্ধ পদবঞ্চিত যুবদলের নেতাকর্মীও শোডাউন প্রতিহত করতে পৌর শহরে অবস্থান নিচ্ছিলেন। মিছিলে সংঘর্ষের আশঙ্কায় পুলিশ বাধা দেয়।

জানা গেছে, নবগঠিত উপজেলা ও পৌর যুবদলের উদ্যোগে সোমবার সকালে উপজেলা বিএনপির আহ্বায়ক ও ব্রা?হ্মণবাড়িয়া আইনজীবী সমিতির সাবেক সভাপতি মো. ফখর উদ্দিন, উপজেলা যুবদলের আহ্বায়ক মো. মাসুদুল হক ভূঁইয়ার নেতৃত্বে সকাল ৯টার দিকে নেতাকর্মীরা আনন্দ মিছিলটি নিয়ে অনন্তপুর থেকে উপজেলা সদরে আসার সময় আদ্রা এলাকায় আসলে পুলিশ বাধা দেয়। যুবদল নেতাকর্মীরা ধাওয়া-পাল্টাধাওয়া ও ইট-পাটকেল নিক্ষেপ করে। পুলিশ লাঠিপেটা করে মিছিলটি ছত্রভঙ্গ করে দেয়। এতে যুবদলের আহ্বায়ক মাসুদুল হকসহ দলীয় ১০-১২ জন নেতাকর্মী আহত হয়।

কসবা উপজেলা যুবদলের আহবায়ক মো. মাসুদুল হক (৪৬) বলেন, উপজেলা ও পৌর যুবদলের নতুন কমিটি গঠনের পর প্রায় এক হাজার নেতাকর্মী নিয়ে একটি শান্তিপূর্ণ আনন্দ মিছিলে পুলিশ বাধা দেয়। এক পর্যায়ে পুলিশ লাঠিচার্জ করে মিছিলটি ছত্রভঙ্গ করে দেয়। পুলিশের লাঠিপেটায় আমিসহ নেতাকর্মীরা আহত হন। কসবা থানার ওসি মুহাম্মদ আলমগীর ভূঁইয়া বলেন, উপজেলা ও পৌর যুবদলের দুই দল রয়েছে। একদল পদধারী ও একদল পদবঞ্চিত। দুই দলের মধ্যেই উত্তেজনা রয়েছে। পদধারীদের আনন্দ মিছিল করতে কোনো ধরনের অনুমতি নেওয়া হয়নি। মিছিলটি উপজেলা সদরে আসলে দুই দলের মধ্যে সংঘর্ষের আশঙ্কা রয়েছে। এ কারণে মিছিলটি করতে দেওয়া হয়নি। মিছিলে বিঘ্ন ঘটানোর অপরাধে একজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। এ ঘটনায় থানায় মামলার প্রস্তুতি চলছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন