প্রতিদ্বন্দ্বীকে ফাঁসাতে নিরপরাধ নারী খুন
jugantor
হত্যা মিশন ‘বাগেরহাট টু সাভার’
প্রতিদ্বন্দ্বীকে ফাঁসাতে নিরপরাধ নারী খুন

  যুগান্তর প্রতিবেদন  

২৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীকে ফাঁসাতে ‘বাগেরহাট টু সাভার’ হত্যা মিশন চালানো হয়েছে। বাগেরহাটের মোংলার প্রতিপক্ষ মেম্বার প্রার্থীর পরিকল্পনায় ঢাকার সাভারে এক নারীকে হত্যা করে ভাঙারি ব্যবসায়ী অপর মেম্বার প্রার্থীর ওপর দায় চাপানোর চেষ্টা করে। মাত্র ৩০ হাজার টাকার বিনিময়ে নিরপরাধ নারীকে হত্যা করা হয়। এ ঘটনায় মামলা হলে তদন্তে নেমে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই) এ হত্যারহস্য উদ্ঘাটন করে। এ ঘটনার সঙ্গে জড়িত হালিম হাওলাদারসহ তিনজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। সোমবার পিবিআই এ তথ্য জানায়।

ঢাকার ধানমন্ডিতে এক সংবাদ সম্মেলনে পিবিআইয়ের ডিআইজি বনজ কুমার মজুমদার জানান, ২০ সেপ্টেম্বর বাগেরহাটের মোংলা থানার চিলা ইউপি নির্বাচন হয়। এতে মেম্বার প্রার্থী ছিলেন হালিম হাওলাদার, বেলাল সরদার ও এশারাত। গত নির্বাচনেও মেম্বার পদে হালিম বিজয়ী হয়েছিলেন। এবার বেলাল নির্বাচনে অংশ নেওয়ায় হালিম ভেবেছিলেন তিনি এবার জিততে পারবেন না। তাই বেলালকে নির্বাচন থেকে সরানোর ষড়যন্ত্র করেন হালিম। পিরোজপুরের পূর্বপরিচিত জামাল হাওলাদারের সঙ্গে তিনি যোগাযোগ করেন। বেলালকে ফাঁসাতে খুনের পরিকল্পনা করেন তারা। পরিকল্পনা অনুযায়ী ৩০ হাজার টাকায় জামালের সঙ্গে হালিমের চুক্তি হয়। জামালকে হালিম নগদ পাঁচ হাজার টাকা দেন। ডিআইজি বনজ কুমার আরও জানান, এরপর ঢাকার সাভারের কবিরাজ মশিউর রহমান মিলনের সঙ্গে যোগাযোগ করেন জামাল। খুন করার জন্য তার কাছে একজনকে চান জামাল। এরপর পারুল বেগম নামে এক নারীর সঙ্গে জামালের পরিচয় করিয়ে দেন মিলন। পারুলকে বিয়ে করার কথা বলে সাভারের নামাবাজার এলাকায় ৭ সেপ্টেম্বর স্বামী-স্ত্রী পরিচয়ে বাসা ভাড়া নেন জামাল। ওই রাতেই পারুলকে খুন করে পালিয়ে যান জামাল। পরদিন বাসা থেকে কেউ বের না হওয়ায় ওই বাড়ির তত্ত্বাবধায়ক জানালা খুলে দেখতে পান ওই নারী খুন হয়েছেন। পুলিশ লাশ উদ্ধার করে। এ সময় ওই বাসা থেকে একটি জাতীয় পরিচয়পত্র উদ্ধার করা হয়।

হত্যা মিশন ‘বাগেরহাট টু সাভার’

প্রতিদ্বন্দ্বীকে ফাঁসাতে নিরপরাধ নারী খুন

 যুগান্তর প্রতিবেদন 
২৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীকে ফাঁসাতে ‘বাগেরহাট টু সাভার’ হত্যা মিশন চালানো হয়েছে। বাগেরহাটের মোংলার প্রতিপক্ষ মেম্বার প্রার্থীর পরিকল্পনায় ঢাকার সাভারে এক নারীকে হত্যা করে ভাঙারি ব্যবসায়ী অপর মেম্বার প্রার্থীর ওপর দায় চাপানোর চেষ্টা করে। মাত্র ৩০ হাজার টাকার বিনিময়ে নিরপরাধ নারীকে হত্যা করা হয়। এ ঘটনায় মামলা হলে তদন্তে নেমে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই) এ হত্যারহস্য উদ্ঘাটন করে। এ ঘটনার সঙ্গে জড়িত হালিম হাওলাদারসহ তিনজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। সোমবার পিবিআই এ তথ্য জানায়।

ঢাকার ধানমন্ডিতে এক সংবাদ সম্মেলনে পিবিআইয়ের ডিআইজি বনজ কুমার মজুমদার জানান, ২০ সেপ্টেম্বর বাগেরহাটের মোংলা থানার চিলা ইউপি নির্বাচন হয়। এতে মেম্বার প্রার্থী ছিলেন হালিম হাওলাদার, বেলাল সরদার ও এশারাত। গত নির্বাচনেও মেম্বার পদে হালিম বিজয়ী হয়েছিলেন। এবার বেলাল নির্বাচনে অংশ নেওয়ায় হালিম ভেবেছিলেন তিনি এবার জিততে পারবেন না। তাই বেলালকে নির্বাচন থেকে সরানোর ষড়যন্ত্র করেন হালিম। পিরোজপুরের পূর্বপরিচিত জামাল হাওলাদারের সঙ্গে তিনি যোগাযোগ করেন। বেলালকে ফাঁসাতে খুনের পরিকল্পনা করেন তারা। পরিকল্পনা অনুযায়ী ৩০ হাজার টাকায় জামালের সঙ্গে হালিমের চুক্তি হয়। জামালকে হালিম নগদ পাঁচ হাজার টাকা দেন। ডিআইজি বনজ কুমার আরও জানান, এরপর ঢাকার সাভারের কবিরাজ মশিউর রহমান মিলনের সঙ্গে যোগাযোগ করেন জামাল। খুন করার জন্য তার কাছে একজনকে চান জামাল। এরপর পারুল বেগম নামে এক নারীর সঙ্গে জামালের পরিচয় করিয়ে দেন মিলন। পারুলকে বিয়ে করার কথা বলে সাভারের নামাবাজার এলাকায় ৭ সেপ্টেম্বর স্বামী-স্ত্রী পরিচয়ে বাসা ভাড়া নেন জামাল। ওই রাতেই পারুলকে খুন করে পালিয়ে যান জামাল। পরদিন বাসা থেকে কেউ বের না হওয়ায় ওই বাড়ির তত্ত্বাবধায়ক জানালা খুলে দেখতে পান ওই নারী খুন হয়েছেন। পুলিশ লাশ উদ্ধার করে। এ সময় ওই বাসা থেকে একটি জাতীয় পরিচয়পত্র উদ্ধার করা হয়।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন