মৃত ৫ জনের মধ্যে চার জনের পরিচয় মিলেছে
jugantor
ট্রলারডুবিতে এখনো নিখোঁজ দুই
মৃত ৫ জনের মধ্যে চার জনের পরিচয় মিলেছে

  টঙ্গী পূর্ব থানা প্রতিনিধি  

১১ অক্টোবর ২০২১, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

রাজধানীর অদূরে আমিনবাজারসংলগ্ন তুরাগ নদের কয়লার ঘাট এলাকায় ইঞ্জিনচালিত ট্রলারডুবির ঘটনার ৩২ ঘণ্টা পর উদ্ধার অভিযান সমাপ্ত ঘোষণা করেছে বিআইডব্লিউটিএ। রোববার বিকাল সোয়া ৫টা নাগাদ নদ থেকে চার শিশু ও এক নারীর লাশ উদ্ধার করা হয়। তবে নিখোঁজ দুজনের সন্ধান পাওয়া যায়নি দ্বিতীয় দিনেও।

ফায়ার সার্ভিস সদর দপ্তরের ডিউটি অফিসার লিমা খানম এ তথ্য নিশ্চিত করে জানান, মৃত পাঁচজনের মধ্যে চারজনের পরিচয় পাওয়া গেছে। তারা হচ্ছে-শিউলি আক্তার (২০), ইমরান (৩), ফারহান মনি (৪), আরমান (৪)। অজ্ঞাত একজনের নাম জানা যায়নি। এদিকে, রোববার দুপুর দেড়টায় নৌপুলিশের পরিদর্শক আলমগীর হোসেন দুর্ঘটনাকবলিত এলাকায় সাংবাদিকদের বলেন, ট্রলারডুবির ঘটনায় দ্বিতীয় দিনে আমরা ভোর ৬টায় উদ্ধার অভিযান শুরু করি। দুপুর পর্যন্ত আমরা কাউকে উদ্ধার করতে পারিনি। এরপর অভিযান সমাপ্ত ঘোষণা হলেও আশপাশের দুই-তিন কিলোমিটার এলাকা সার্চ করা হবে। এ ঘটনায় কাউকে আটক করা সম্ভব হয়নি। নৌপুলিশের পক্ষ থেকে মামলা হবে। ট্রলারকে ধাক্কা দেওয়া বাল্কহেড শনাক্ত করতে পারেনি নৌপুলিশ। ফায়ার সার্ভিস ও নৌপুলিশ সূত্রে জানা যায়, তুরাগ নদে শনিবার ভোরে বাল্কহেডের ধাক্কায় কয়লার ঘাট এলাকায় মাঝ নদীতে ইঞ্জিনচালিত ট্রলারটি তলিয়ে যায়।

এ সময় ওই ট্রলারে নারী-শিশুসহ ১৭-১৮ যাত্রী ছিল। কয়েকজন সাঁতরে তীরে উঠতে পারলেও শিশু নারীসহ সাতজন নিখোঁজ হয়। খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স বাহিনীর ডুবুরি দলের তিনটি ইউনিট সকাল ৮টা ৫০ মিনিটে উদ্ধার অভিযান শুরু করে। অভিযানে নৌবাহিনী, কোস্ট গার্ড, নৌপুলিশ ও বিআইডব্লিউটিএর লোকজনও অংশ নেয়। শনিবার সকাল থেকে বিকাল নাগাদ চার শিশু ও এক নারীসহ পাঁচজনের লাশ উদ্ধার করা হয়। পরে তীব্র সে াত ও আলোস্বল্পতার কারণে সন্ধ্যা ৬টায় প্রথম দিনের অভিযান স্থগিত করে ফায়ার সার্ভিস। এদিকে, ফায়ার সার্ভিস কর্মকর্তাদের ধারণা, নদীতে তীব্র সে াতের কারণে লাশ ভেসে দূরে চলে যেতে পারে। এ ক্ষেত্রে স্থানীয় মানুষদের সহায়তা চাওয়া হয়েছে। কোনো লাশ ভাসতে দেখলে খবর দেওয়ার অনুরোধ করা হয়েছে।

ট্রলারডুবিতে এখনো নিখোঁজ দুই

মৃত ৫ জনের মধ্যে চার জনের পরিচয় মিলেছে

 টঙ্গী পূর্ব থানা প্রতিনিধি 
১১ অক্টোবর ২০২১, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

রাজধানীর অদূরে আমিনবাজারসংলগ্ন তুরাগ নদের কয়লার ঘাট এলাকায় ইঞ্জিনচালিত ট্রলারডুবির ঘটনার ৩২ ঘণ্টা পর উদ্ধার অভিযান সমাপ্ত ঘোষণা করেছে বিআইডব্লিউটিএ। রোববার বিকাল সোয়া ৫টা নাগাদ নদ থেকে চার শিশু ও এক নারীর লাশ উদ্ধার করা হয়। তবে নিখোঁজ দুজনের সন্ধান পাওয়া যায়নি দ্বিতীয় দিনেও।

ফায়ার সার্ভিস সদর দপ্তরের ডিউটি অফিসার লিমা খানম এ তথ্য নিশ্চিত করে জানান, মৃত পাঁচজনের মধ্যে চারজনের পরিচয় পাওয়া গেছে। তারা হচ্ছে-শিউলি আক্তার (২০), ইমরান (৩), ফারহান মনি (৪), আরমান (৪)। অজ্ঞাত একজনের নাম জানা যায়নি। এদিকে, রোববার দুপুর দেড়টায় নৌপুলিশের পরিদর্শক আলমগীর হোসেন দুর্ঘটনাকবলিত এলাকায় সাংবাদিকদের বলেন, ট্রলারডুবির ঘটনায় দ্বিতীয় দিনে আমরা ভোর ৬টায় উদ্ধার অভিযান শুরু করি। দুপুর পর্যন্ত আমরা কাউকে উদ্ধার করতে পারিনি। এরপর অভিযান সমাপ্ত ঘোষণা হলেও আশপাশের দুই-তিন কিলোমিটার এলাকা সার্চ করা হবে। এ ঘটনায় কাউকে আটক করা সম্ভব হয়নি। নৌপুলিশের পক্ষ থেকে মামলা হবে। ট্রলারকে ধাক্কা দেওয়া বাল্কহেড শনাক্ত করতে পারেনি নৌপুলিশ। ফায়ার সার্ভিস ও নৌপুলিশ সূত্রে জানা যায়, তুরাগ নদে শনিবার ভোরে বাল্কহেডের ধাক্কায় কয়লার ঘাট এলাকায় মাঝ নদীতে ইঞ্জিনচালিত ট্রলারটি তলিয়ে যায়।

এ সময় ওই ট্রলারে নারী-শিশুসহ ১৭-১৮ যাত্রী ছিল। কয়েকজন সাঁতরে তীরে উঠতে পারলেও শিশু নারীসহ সাতজন নিখোঁজ হয়। খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স বাহিনীর ডুবুরি দলের তিনটি ইউনিট সকাল ৮টা ৫০ মিনিটে উদ্ধার অভিযান শুরু করে। অভিযানে নৌবাহিনী, কোস্ট গার্ড, নৌপুলিশ ও বিআইডব্লিউটিএর লোকজনও অংশ নেয়। শনিবার সকাল থেকে বিকাল নাগাদ চার শিশু ও এক নারীসহ পাঁচজনের লাশ উদ্ধার করা হয়। পরে তীব্র সে াত ও আলোস্বল্পতার কারণে সন্ধ্যা ৬টায় প্রথম দিনের অভিযান স্থগিত করে ফায়ার সার্ভিস। এদিকে, ফায়ার সার্ভিস কর্মকর্তাদের ধারণা, নদীতে তীব্র সে াতের কারণে লাশ ভেসে দূরে চলে যেতে পারে। এ ক্ষেত্রে স্থানীয় মানুষদের সহায়তা চাওয়া হয়েছে। কোনো লাশ ভাসতে দেখলে খবর দেওয়ার অনুরোধ করা হয়েছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন