২০ বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষা গুচ্ছ পদ্ধতিতে অনুষ্ঠিত
jugantor
২০ বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষা গুচ্ছ পদ্ধতিতে অনুষ্ঠিত

  যুগান্তর ডেস্ক  

১৮ অক্টোবর ২০২১, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

প্রথমবারের মতো গুচ্ছ পদ্ধতিতে দেশের ২০টি সাধারণ এবং বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষের স্নাতক প্রথম বর্ষের ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়েছে। রোববার বেলা ১২টা থেকে দুপুর ১টা পর্যন্ত ‘ক’ ইউনিটে বিজ্ঞান বিভাগের ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। গুচ্ছ পদ্ধতিতে ভর্তি পরীক্ষা দিতে পেরে খুশি শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা। তারা বলছেন, এতে তাদের অর্থ ও সময় দুটোই সাশ্রয় হয়েছে। এভাবে ভর্তি পরীক্ষা বাংলাদেশে নতুন নজির স্থাপন করেছে বলে মন্তব্য করেছেন শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য এবং গুচ্ছ ভর্তি কমিটির যুগ্ম আহ্বায়ক অধ্যাপক ফরিদ উদ্দিন আহমেদ। দুপুর সাড়ে ১২টায় বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্র পরিদর্শন শেষে সাংবাদিকদের এ কথা বলেন তিনি। প্রতিনিধিদের পাঠানো খবর-

শবি : সিলেট বিভাগীয় কেন্দ্র হিসাবে শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় এবং সিলেট কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রে ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়েছে। এদিন শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রে উপস্থিতির হার ছিল ৯২.৬৫ শতাংশ এবং সিলেট কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে উপস্থিতির হার ছিল ৮৭.৬১ শতাংশ।

রাবি : রাজশাহী বিভাগীয় কেন্দ্র রাজশাহী প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে (রুয়েট) ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের ৮৭টি কক্ষে সামাজিক দূরত্ব ও স্বাস্থ্যবিধি মেনে এ পরীক্ষা হয়েছে।

বরিশাল : বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রে ৩ হাজার ৪৫৮ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে উপস্থিত ছিলেন ৩ হাজার ২৩৪ জন। উপস্থিতির হার ৯৩ দশমিক ৫ শতাংশ। পরীক্ষার্থীদের জন্য বরিশাল সিটি করপোরেশন (বিসিসি) মেয়রের পক্ষ থেকে ফ্রি বাস সার্ভিস চালু করা হয়।

কুবি : কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রে ২ হাজার ৫০৫ জন পরীক্ষার্থীর মধ্য ২ হাজার ৩৯৪ জন পরীক্ষার্থী অংশ নেন। উপস্থিতির হার ৯৫.৫৬ শতাংশ। বিশ্ববিদ্যালয়ের ৪টি একাডেমিক ভবনের ৫৪টি কক্ষে পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

খুলনা : খুলনা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রে আসন সংখ্যা ছিল ৭ হাজার ১০৮। এর মধ্যে বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে ৫ হাজার ২৯০ জন এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্ত খুলনা কলেজিয়েট গার্লস স্কুল ও কেসিসি উইমেন্স কলেজে ১ হাজার ৮১৮ জন পরীক্ষা দেয়।

গোপালগঞ্জ : বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি পরীক্ষায় উপস্থিতির হার ছিল শতকরা ৮৫ ভাগ। এ বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রে ৬ হাজার ৯১২ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে ৫ হাজার ৮৯২ জন অংশগ্রহণ করেন।

টাঙ্গাইল : মাওলানা ভাসানী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি-ইচ্ছুক পরীক্ষার্থীদের সহযোগিতায় বুথ স্থাপন করেন বাংলাদেশ ছাত্র ফেডারেশন জেলা শাখার নেতারা। কিন্তু বুথ বসানোর এক ঘণ্টা পর ব্যানার ছিনিয়ে নেওয়ার অভিযোগ ওঠে বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের কর্মী মানিক শীলের বিরুদ্ধে। এ ব্যাপারে মানিক শীল বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্র ফেডারেশন নাই। আর আমরা তো ছিনতাইকারী নই যে ব্যানার ছিনিয়ে নেব।

দিনাজপুর : হাজী মোহাম্মদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে ৭ হাজার ২৫ জন শিক্ষার্থী অংশগ্রহণ করার কথা ছিল। এর মধ্যে ৯৮ শতাংশ পরীক্ষার্থী অংশ নিয়েছেন।

ইবি : ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ে (ইবি) ভর্তি পরীক্ষায় বেশ কয়েকটি কক্ষের দায়িত্বপ্রাপ্ত শিক্ষকদের অবহেলার অভিযোগ পাওয়া গেছে। নির্দেশনায় শিক্ষার্থীদের প্রবেশপত্রে হল পরিদর্শকের স্বাক্ষর করার কথা থাকলেও তা করেননি দায়িত্বরত শিক্ষকরা। এ নিয়ে চরম উৎকণ্ঠায় আছেন পরীক্ষার্থীরা। এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি বরাবর লিখিত অভিযোগ করেছেন কয়েকজন ভুক্তভোগী পরীক্ষার্থী। বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. শেখ আবদুস সালাম বলেন, বিষয়টি শুনেছি। আগামী মিটিংয়ে এসব শিক্ষার্থীদের মধ্যে যারা চান্স পাবেন তাদের বিষয়টি সংশ্লিষ্ট বিশ্ববিদ্যালয়ের সঙ্গে সমন্বয় করা হবে।

এছাড়া ঢাকায় জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়, টাঙ্গাইলের মাওলানা ভাসানী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, পটুয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় ও রাঙামাটি বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যায়ে শান্তিপূর্ণভাবে ‘ক’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

২০ বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষা গুচ্ছ পদ্ধতিতে অনুষ্ঠিত

 যুগান্তর ডেস্ক 
১৮ অক্টোবর ২০২১, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

প্রথমবারের মতো গুচ্ছ পদ্ধতিতে দেশের ২০টি সাধারণ এবং বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষের স্নাতক প্রথম বর্ষের ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়েছে। রোববার বেলা ১২টা থেকে দুপুর ১টা পর্যন্ত ‘ক’ ইউনিটে বিজ্ঞান বিভাগের ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। গুচ্ছ পদ্ধতিতে ভর্তি পরীক্ষা দিতে পেরে খুশি শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা। তারা বলছেন, এতে তাদের অর্থ ও সময় দুটোই সাশ্রয় হয়েছে। এভাবে ভর্তি পরীক্ষা বাংলাদেশে নতুন নজির স্থাপন করেছে বলে মন্তব্য করেছেন শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য এবং গুচ্ছ ভর্তি কমিটির যুগ্ম আহ্বায়ক অধ্যাপক ফরিদ উদ্দিন আহমেদ। দুপুর সাড়ে ১২টায় বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্র পরিদর্শন শেষে সাংবাদিকদের এ কথা বলেন তিনি। প্রতিনিধিদের পাঠানো খবর-

শবি : সিলেট বিভাগীয় কেন্দ্র হিসাবে শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় এবং সিলেট কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রে ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়েছে। এদিন শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রে উপস্থিতির হার ছিল ৯২.৬৫ শতাংশ এবং সিলেট কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে উপস্থিতির হার ছিল ৮৭.৬১ শতাংশ।

রাবি : রাজশাহী বিভাগীয় কেন্দ্র রাজশাহী প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে (রুয়েট) ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের ৮৭টি কক্ষে সামাজিক দূরত্ব ও স্বাস্থ্যবিধি মেনে এ পরীক্ষা হয়েছে।

বরিশাল : বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রে ৩ হাজার ৪৫৮ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে উপস্থিত ছিলেন ৩ হাজার ২৩৪ জন। উপস্থিতির হার ৯৩ দশমিক ৫ শতাংশ। পরীক্ষার্থীদের জন্য বরিশাল সিটি করপোরেশন (বিসিসি) মেয়রের পক্ষ থেকে ফ্রি বাস সার্ভিস চালু করা হয়।

কুবি : কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রে ২ হাজার ৫০৫ জন পরীক্ষার্থীর মধ্য ২ হাজার ৩৯৪ জন পরীক্ষার্থী অংশ নেন। উপস্থিতির হার ৯৫.৫৬ শতাংশ। বিশ্ববিদ্যালয়ের ৪টি একাডেমিক ভবনের ৫৪টি কক্ষে পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

খুলনা : খুলনা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রে আসন সংখ্যা ছিল ৭ হাজার ১০৮। এর মধ্যে বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে ৫ হাজার ২৯০ জন এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্ত খুলনা কলেজিয়েট গার্লস স্কুল ও কেসিসি উইমেন্স কলেজে ১ হাজার ৮১৮ জন পরীক্ষা দেয়।

গোপালগঞ্জ : বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি পরীক্ষায় উপস্থিতির হার ছিল শতকরা ৮৫ ভাগ। এ বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রে ৬ হাজার ৯১২ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে ৫ হাজার ৮৯২ জন অংশগ্রহণ করেন।

টাঙ্গাইল : মাওলানা ভাসানী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি-ইচ্ছুক পরীক্ষার্থীদের সহযোগিতায় বুথ স্থাপন করেন বাংলাদেশ ছাত্র ফেডারেশন জেলা শাখার নেতারা। কিন্তু বুথ বসানোর এক ঘণ্টা পর ব্যানার ছিনিয়ে নেওয়ার অভিযোগ ওঠে বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের কর্মী মানিক শীলের বিরুদ্ধে। এ ব্যাপারে মানিক শীল বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্র ফেডারেশন নাই। আর আমরা তো ছিনতাইকারী নই যে ব্যানার ছিনিয়ে নেব।

দিনাজপুর : হাজী মোহাম্মদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে ৭ হাজার ২৫ জন শিক্ষার্থী অংশগ্রহণ করার কথা ছিল। এর মধ্যে ৯৮ শতাংশ পরীক্ষার্থী অংশ নিয়েছেন।

ইবি : ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ে (ইবি) ভর্তি পরীক্ষায় বেশ কয়েকটি কক্ষের দায়িত্বপ্রাপ্ত শিক্ষকদের অবহেলার অভিযোগ পাওয়া গেছে। নির্দেশনায় শিক্ষার্থীদের প্রবেশপত্রে হল পরিদর্শকের স্বাক্ষর করার কথা থাকলেও তা করেননি দায়িত্বরত শিক্ষকরা। এ নিয়ে চরম উৎকণ্ঠায় আছেন পরীক্ষার্থীরা। এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি বরাবর লিখিত অভিযোগ করেছেন কয়েকজন ভুক্তভোগী পরীক্ষার্থী। বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. শেখ আবদুস সালাম বলেন, বিষয়টি শুনেছি। আগামী মিটিংয়ে এসব শিক্ষার্থীদের মধ্যে যারা চান্স পাবেন তাদের বিষয়টি সংশ্লিষ্ট বিশ্ববিদ্যালয়ের সঙ্গে সমন্বয় করা হবে।

এছাড়া ঢাকায় জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়, টাঙ্গাইলের মাওলানা ভাসানী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, পটুয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় ও রাঙামাটি বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যায়ে শান্তিপূর্ণভাবে ‘ক’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন