মেডিকেলে নয় বুয়েটেই পড়বে মুহিত
jugantor
মেডিকেলে নয় বুয়েটেই পড়বে মুহিত

  পীরগঞ্জ (রংপুর) প্রতিনিধি  

২৮ নভেম্বর ২০২১, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

দেশ সেরা মেধাবী শিক্ষার্থী পীরগঞ্জের আল-মুহিত মুহতাদি এইচএসসি পাশের পর বুয়েট, মেডিকেল ও আই.ইউ.টি তে ভর্তি পরীক্ষায় সাফল্য ধরে রেখেছেন। মুহিত মেডিকেলে ভর্তি হলেও এখন বুয়েটেই পড়বেন। ২০১৪ সালে তিনি শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের ‘সৃজনশীল মেধা অন্বেষণ’ প্রতিযোগিতায় দেশ সেরা মেধাবী হয়েছিলেন।

জানা গেছে, মুহিত পীরগঞ্জ উপজেলার বড়দরগাহ ইউনিয়নের ছোট মির্জাপুর গ্রামের মোশফিকুর রহমান ও শানীমা সুলতানা শাম্মীর ছেলে। মুহিতের বাবা পীরগঞ্জ সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষক এবং মা পীরগঞ্জ উপজেলা সদরের মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সিনিয়র সহকারী শিক্ষিকা।

প্রথমে দুটি ভর্তি পরীক্ষার ফলাফল পান মুহিত। এরমধ্যে ইসলামিক ইউনিভার্টিসিটি অব টেকনোলজিতে (আইইউটি) মেধা তালিকায় দ্বিতীয় এবং মেডিকেলে ২৯তম হন। এরপর ঢাকা মেডিকেলে ভর্তি হয়ে প্রায় ৪ মাস ক্লাস করেন। পরে তিনি বুয়েটের (বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়) ভর্তি পরীক্ষায় ২৩তম স্থান অধিকার করেন। মুহিত সিদ্ধান্ত নিয়েছেন বুয়েটেই ভর্তি হবেন। তিনি কম্পিউটার ইঞ্জিনিয়ার হতে চান।

২০১৮ সালে এসএসসি ও ২০২০ সালে এইচএসসিতে গোল্ডেন জিপিএ লাভ করেন মুহিত। ২০১৪ সালে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের ‘সৃজনশীল মেধা অন্বেষণ’ প্রতিযোগিতায় দেশ সেরা মেধাবী হন।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তাকে পদকসহ লেখাপড়ার জন্য এককালীন এক লাখ টাকা দেন। পরে মুহিতসহ ১২ মেধাবীকে থাইল্যান্ডের বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এবং দেশটির সংস্কৃতির সঙ্গে পরিচিত করতে এক সপ্তাহের ভ্রমণে নেওয়া হয়েছিল।

মুহিত জানান, ছোটবেলা থেকেই খুব ইচ্ছা ছিল কম্পিউটার বিষয়ে লেখাপড়া করবেন। আল্লাহ সে আশা পূরণ করছেন। মুহিতের বাবা মোশফিকুর রহমান বলেন, সন্তানের ভালো অর্জন বাবা-মায়ের কাছে বিরাট সাফল্য। প্রত্যেক বাবা-মার সন্তান যেন সুপ্রতিষ্ঠিত হয় সেই কামনা করি।

মেডিকেলে নয় বুয়েটেই পড়বে মুহিত

 পীরগঞ্জ (রংপুর) প্রতিনিধি 
২৮ নভেম্বর ২০২১, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

দেশ সেরা মেধাবী শিক্ষার্থী পীরগঞ্জের আল-মুহিত মুহতাদি এইচএসসি পাশের পর বুয়েট, মেডিকেল ও আই.ইউ.টি তে ভর্তি পরীক্ষায় সাফল্য ধরে রেখেছেন। মুহিত মেডিকেলে ভর্তি হলেও এখন বুয়েটেই পড়বেন। ২০১৪ সালে তিনি শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের ‘সৃজনশীল মেধা অন্বেষণ’ প্রতিযোগিতায় দেশ সেরা মেধাবী হয়েছিলেন।

জানা গেছে, মুহিত পীরগঞ্জ উপজেলার বড়দরগাহ ইউনিয়নের ছোট মির্জাপুর গ্রামের মোশফিকুর রহমান ও শানীমা সুলতানা শাম্মীর ছেলে। মুহিতের বাবা পীরগঞ্জ সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষক এবং মা পীরগঞ্জ উপজেলা সদরের মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সিনিয়র সহকারী শিক্ষিকা।

প্রথমে দুটি ভর্তি পরীক্ষার ফলাফল পান মুহিত। এরমধ্যে ইসলামিক ইউনিভার্টিসিটি অব টেকনোলজিতে (আইইউটি) মেধা তালিকায় দ্বিতীয় এবং মেডিকেলে ২৯তম হন। এরপর ঢাকা মেডিকেলে ভর্তি হয়ে প্রায় ৪ মাস ক্লাস করেন। পরে তিনি বুয়েটের (বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়) ভর্তি পরীক্ষায় ২৩তম স্থান অধিকার করেন। মুহিত সিদ্ধান্ত নিয়েছেন বুয়েটেই ভর্তি হবেন। তিনি কম্পিউটার ইঞ্জিনিয়ার হতে চান।

২০১৮ সালে এসএসসি ও ২০২০ সালে এইচএসসিতে গোল্ডেন জিপিএ লাভ করেন মুহিত। ২০১৪ সালে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের ‘সৃজনশীল মেধা অন্বেষণ’ প্রতিযোগিতায় দেশ সেরা মেধাবী হন।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তাকে পদকসহ লেখাপড়ার জন্য এককালীন এক লাখ টাকা দেন। পরে মুহিতসহ ১২ মেধাবীকে থাইল্যান্ডের বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এবং দেশটির সংস্কৃতির সঙ্গে পরিচিত করতে এক সপ্তাহের ভ্রমণে নেওয়া হয়েছিল।

মুহিত জানান, ছোটবেলা থেকেই খুব ইচ্ছা ছিল কম্পিউটার বিষয়ে লেখাপড়া করবেন। আল্লাহ সে আশা পূরণ করছেন। মুহিতের বাবা মোশফিকুর রহমান বলেন, সন্তানের ভালো অর্জন বাবা-মায়ের কাছে বিরাট সাফল্য। প্রত্যেক বাবা-মার সন্তান যেন সুপ্রতিষ্ঠিত হয় সেই কামনা করি।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন