গ্রেফতার আরও পাঁচ আসামির রিমান্ড মঞ্জুর
jugantor
টাঙ্গাইলে শ্রমিক লীগ নেতা হত্যা
গ্রেফতার আরও পাঁচ আসামির রিমান্ড মঞ্জুর

  যুগান্তর প্রতিবেদন, টাঙ্গাইল  

০৭ ডিসেম্বর ২০২১, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

টাঙ্গাইল জেলা শ্রমিক লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক রেজাউল করিম ওরফে রেজা হত্যা মামলার এজাহারভুক্ত দুই আসামিসহ পাঁচজনকে গ্রেফতার করেছে গোয়েন্দা পুলিশ। এদের জিজ্ঞাসাবাদের পর সোমবার চার দিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত। রোববার ভোরে ঢাকার মিরপুর ও মোহাম্মদপুর এলাকায় অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেফতার করা হয়।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা গোয়েন্দা পুলিশের উপপরিদর্শক মো. আহসানুজ্জামান জানান, গ্রেফতার শহরের আকুরটাকুরপাড়ার আনোয়ার হোসেনের ছেলে রবিন মিয়া, কোদালিয়া এলাকার আব্দুল হামিদের ছেলে পাভেল এবং সাবালিয়া এলাকার মঞ্জুর হোসেনের ছেলে মাজাহার হোসেন তমাল ও আকুরটাকুরপাড়ার এসএ রকিবের ছেলে রোবায়েদ আল শিবলী, নাগরপুরের ধলাই গ্রামের মুকুল মিয়ার ছেলে আব্দুল খালেককে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে হাজির করা হয়। তাদের সাত দিন করে রিমান্ড চাইলে বিচারক সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মো. শামসুল আলম প্রত্যেককে চার দিন করে মঞ্জুর করেছেন।

এই হত্যাকাণ্ডে জড়িত সন্দেহে এর আগে গ্রেফতার ফিরোজ হোসেন নয়ন ও শাকিল খানকে রিমান্ড শেষে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। তদন্ত কর্মকর্তা আহসানুজ্জামান জানান, ফিরোজ ও শাকিলকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য সাত দিন করে রিমান্ড চাওয়া হয়েছে। আদালত ৮ ডিসেম্বর রিমান্ড আবেদনের শুনানির দিন ধার্য করেছেন।

২১ নভেম্বর রাতে শহরের নতুন বাস টার্মিনাল এলাকায় রেজাউলের ওপর হামলা হয়। সন্ত্রাসীরা কুপিয়ে তাকে গুরুতর আহত করে। সাভার এনাম মেডিকেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রেজাউলের মৃত্যু হয়। পরে তার ভাই রাশেদুল ইসলাম ২৬ নভেম্বর রাতে টাঙ্গাইল সদর থানায় মামলা করেন।

টাঙ্গাইলে শ্রমিক লীগ নেতা হত্যা

গ্রেফতার আরও পাঁচ আসামির রিমান্ড মঞ্জুর

 যুগান্তর প্রতিবেদন, টাঙ্গাইল 
০৭ ডিসেম্বর ২০২১, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

টাঙ্গাইল জেলা শ্রমিক লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক রেজাউল করিম ওরফে রেজা হত্যা মামলার এজাহারভুক্ত দুই আসামিসহ পাঁচজনকে গ্রেফতার করেছে গোয়েন্দা পুলিশ। এদের জিজ্ঞাসাবাদের পর সোমবার চার দিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত। রোববার ভোরে ঢাকার মিরপুর ও মোহাম্মদপুর এলাকায় অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেফতার করা হয়।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা গোয়েন্দা পুলিশের উপপরিদর্শক মো. আহসানুজ্জামান জানান, গ্রেফতার শহরের আকুরটাকুরপাড়ার আনোয়ার হোসেনের ছেলে রবিন মিয়া, কোদালিয়া এলাকার আব্দুল হামিদের ছেলে পাভেল এবং সাবালিয়া এলাকার মঞ্জুর হোসেনের ছেলে মাজাহার হোসেন তমাল ও আকুরটাকুরপাড়ার এসএ রকিবের ছেলে রোবায়েদ আল শিবলী, নাগরপুরের ধলাই গ্রামের মুকুল মিয়ার ছেলে আব্দুল খালেককে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে হাজির করা হয়। তাদের সাত দিন করে রিমান্ড চাইলে বিচারক সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মো. শামসুল আলম প্রত্যেককে চার দিন করে মঞ্জুর করেছেন।

এই হত্যাকাণ্ডে জড়িত সন্দেহে এর আগে গ্রেফতার ফিরোজ হোসেন নয়ন ও শাকিল খানকে রিমান্ড শেষে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। তদন্ত কর্মকর্তা আহসানুজ্জামান জানান, ফিরোজ ও শাকিলকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য সাত দিন করে রিমান্ড চাওয়া হয়েছে। আদালত ৮ ডিসেম্বর রিমান্ড আবেদনের শুনানির দিন ধার্য করেছেন।

২১ নভেম্বর রাতে শহরের নতুন বাস টার্মিনাল এলাকায় রেজাউলের ওপর হামলা হয়। সন্ত্রাসীরা কুপিয়ে তাকে গুরুতর আহত করে। সাভার এনাম মেডিকেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রেজাউলের মৃত্যু হয়। পরে তার ভাই রাশেদুল ইসলাম ২৬ নভেম্বর রাতে টাঙ্গাইল সদর থানায় মামলা করেন।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন