ঘন কুয়াশায় সাড়ে ৭ ঘণ্টা পর ফেরি চলাচল শুরু
jugantor
দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌরুট
ঘন কুয়াশায় সাড়ে ৭ ঘণ্টা পর ফেরি চলাচল শুরু

  রাজবাড়ী ও গোয়ালন্দ প্রতিনিধি  

০৯ ডিসেম্বর ২০২১, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

ঘন কুয়াশায় মঙ্গলবার মধ্যরাত থেকে বুধবার সকাল ৯টা পর্যন্ত দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌরুটে সাড়ে ৭ ঘণ্টা ফেরি চলাচল বন্ধ থাকে। এতে আটকে থাকতে হচ্ছে যাত্রী ও পরিবহণ শ্রমিকদের।

এদিকে দীর্ঘ সময় ফেরি চলাচল বন্ধ থাকায় দৌলতদিয়া প্রান্তে নদী পারের অপেক্ষায় আটকা পড়ে সহস্রাধিক যানবাহন। কনকনে শীতে ঘণ্টার পর ঘণ্টা আটকা পড়া যাত্রী, পরিবহণ চালক ও সহকারীদের ভোগান্তিতে পড়তে হচ্ছে। বিশেষ করে নারী ও শিশুদের সারা রাত মহাসড়কে আটকে থেকে টয়লেট, পানি ও খাবারের সমস্যায় পড়তে হচ্ছে।

কুয়াশার ঘনত্ব বেড়ে গেলে মঙ্গলবার রাত দেড়টা থেকে নৌরুটের বিকন বাতি, বয়া ও অন্য দিকনির্দেশনামূলক চিহ্নগুলো অস্পষ্ট হয়ে আসে। ঘন কুয়াশায় ফেরির চালকদের দৃষ্টিসীমা শূন্যে নেমে আসে। এ অবস্থায় দুর্ঘটনা এড়াতে এ রুটে ফেরি চলাচল বন্ধ ঘোষণা করে কর্তৃপক্ষ। এ সময় যাত্রী ও যানবাহন নিয়ে ফেরি বীরশ্রেষ্ঠ জাহাঙ্গীর ও শাহজালাল মাঝ নদীতে নোঙর করতে বাধ্য হয়। পরে কুয়াশার ঘনত্ব কমে এলে সকাল ৯টা থেকে ধীরে ধীরে ফেরি চলাচল স্বাভাবিক হয়।

ফেরিঘাটের জিরো পয়েন্ট থেকে দৌলতদিয়া-খুলনা মহাসড়কের গোয়ালন্দ পদ্মার মোড় পর্যন্ত প্রায় ৫ কিলোমিটার রাস্তায় যানবাহনের দীর্ঘ সারি দেখা দেয়। এতে পণ্যবাহী ট্রাক, কাভার্ডভ্যান ও যাত্রীবাহী বাস ও ব্যক্তিগত যানসহ প্রায় ৭ থেকে ৮ শতাধিক গাড়ি আটকা পড়ে। ঘাটের ওপর চাপ কমাতে ১৪ কিলোমিটার দূরে গোয়ালন্দ মোড় এলাকায় রাজবাড়ী-কুষ্টিয়া আঞ্চলিক সড়কে আটকা পড়ে আরও অন্তত ২ শতাধিক অপচনশীল মালামাল বহনকারী যানবাহন।

বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌ-পরিবহণ করপোরেশন (বিআইডব্লিউটিসি) দৌলতদিয়া ফেরিঘাট শাখার সহকারী ব্যবস্থাপক (বাণিজ্য) মো. খোরশেদ আলম বলেন, ঘন কুয়াশায় দুর্ঘটনা এড়াতে মধ্যরাত থেকে ফেরি চলাচল বন্ধ রাখা হয়। দীর্ঘ সময় ফেরি বন্ধ থাকায় ঘাট এলাকায় তীব্র যানজটের সৃষ্টি হয়েছে। এ রুটে বর্তমানে ছোট-বড় ১৬টি ফেরি চলাচল করছে।

দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌরুট

ঘন কুয়াশায় সাড়ে ৭ ঘণ্টা পর ফেরি চলাচল শুরু

 রাজবাড়ী ও গোয়ালন্দ প্রতিনিধি 
০৯ ডিসেম্বর ২০২১, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

ঘন কুয়াশায় মঙ্গলবার মধ্যরাত থেকে বুধবার সকাল ৯টা পর্যন্ত দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌরুটে সাড়ে ৭ ঘণ্টা ফেরি চলাচল বন্ধ থাকে। এতে আটকে থাকতে হচ্ছে যাত্রী ও পরিবহণ শ্রমিকদের।

এদিকে দীর্ঘ সময় ফেরি চলাচল বন্ধ থাকায় দৌলতদিয়া প্রান্তে নদী পারের অপেক্ষায় আটকা পড়ে সহস্রাধিক যানবাহন। কনকনে শীতে ঘণ্টার পর ঘণ্টা আটকা পড়া যাত্রী, পরিবহণ চালক ও সহকারীদের ভোগান্তিতে পড়তে হচ্ছে। বিশেষ করে নারী ও শিশুদের সারা রাত মহাসড়কে আটকে থেকে টয়লেট, পানি ও খাবারের সমস্যায় পড়তে হচ্ছে।

কুয়াশার ঘনত্ব বেড়ে গেলে মঙ্গলবার রাত দেড়টা থেকে নৌরুটের বিকন বাতি, বয়া ও অন্য দিকনির্দেশনামূলক চিহ্নগুলো অস্পষ্ট হয়ে আসে। ঘন কুয়াশায় ফেরির চালকদের দৃষ্টিসীমা শূন্যে নেমে আসে। এ অবস্থায় দুর্ঘটনা এড়াতে এ রুটে ফেরি চলাচল বন্ধ ঘোষণা করে কর্তৃপক্ষ। এ সময় যাত্রী ও যানবাহন নিয়ে ফেরি বীরশ্রেষ্ঠ জাহাঙ্গীর ও শাহজালাল মাঝ নদীতে নোঙর করতে বাধ্য হয়। পরে কুয়াশার ঘনত্ব কমে এলে সকাল ৯টা থেকে ধীরে ধীরে ফেরি চলাচল স্বাভাবিক হয়।

ফেরিঘাটের জিরো পয়েন্ট থেকে দৌলতদিয়া-খুলনা মহাসড়কের গোয়ালন্দ পদ্মার মোড় পর্যন্ত প্রায় ৫ কিলোমিটার রাস্তায় যানবাহনের দীর্ঘ সারি দেখা দেয়। এতে পণ্যবাহী ট্রাক, কাভার্ডভ্যান ও যাত্রীবাহী বাস ও ব্যক্তিগত যানসহ প্রায় ৭ থেকে ৮ শতাধিক গাড়ি আটকা পড়ে। ঘাটের ওপর চাপ কমাতে ১৪ কিলোমিটার দূরে গোয়ালন্দ মোড় এলাকায় রাজবাড়ী-কুষ্টিয়া আঞ্চলিক সড়কে আটকা পড়ে আরও অন্তত ২ শতাধিক অপচনশীল মালামাল বহনকারী যানবাহন।

বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌ-পরিবহণ করপোরেশন (বিআইডব্লিউটিসি) দৌলতদিয়া ফেরিঘাট শাখার সহকারী ব্যবস্থাপক (বাণিজ্য) মো. খোরশেদ আলম বলেন, ঘন কুয়াশায় দুর্ঘটনা এড়াতে মধ্যরাত থেকে ফেরি চলাচল বন্ধ রাখা হয়। দীর্ঘ সময় ফেরি বন্ধ থাকায় ঘাট এলাকায় তীব্র যানজটের সৃষ্টি হয়েছে। এ রুটে বর্তমানে ছোট-বড় ১৬টি ফেরি চলাচল করছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন