অর্পিত সম্পত্তি

উচ্চ আদালতের নির্দেশনা দ্রুত বাস্তবায়ন দাবি

  যুগান্তর রিপোর্ট ২১ মে ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

অর্পিত সম্পত্তি প্রত্যর্পণ আইন নিয়ে হাইকোর্টের দেয়া নির্দেশনা দ্রুত বাস্তবায়নের দাবি জানিয়েছে অর্পিত সম্পত্তি প্রত্যর্পণ জাতীয় নাগরিক সমন্বয় সেলভুক্ত সংগঠনগুলোর শীর্ষ প্রতিনিধিরা। তারা বলেন, বাস্তবায়ন প্রক্রিয়া আটকে থাকার কারণে অর্পিত সম্পত্তি প্রত্যর্পণ আইনের সুফল এখনও মানুষ পাচ্ছে না। রোববার সকালে জাতীয় প্রেস ক্লাবের কনফারেন্স লাউঞ্জে অনুষ্ঠিত এক সংবাদ সম্মেলনে তারা এ দাবি করেন। সমন্বয় সেলভুক্ত সংগঠন বাংলাদেশ হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদ, এএলআরডি, অর্পিত সম্পত্তি আইন প্রতিরোধ আন্দোলন, নিজেরা করি, ব্লাস্ট, সম্মিলিত সামাজিক আন্দোলনসহ ৯টি সংগঠন এর আয়োজন করে। বিশিষ্ট মানবাধিকার কর্মী ও তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সাবেক উপদেষ্টা অ্যাডভোকেট সুলতানা কামালের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সম্মেলনে আয়োজক সংগঠনগুলোর পক্ষে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন অর্পিত সম্পত্তি আইন প্রতিরোধ আন্দোলনের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট সুব্রত চৌধুরী। লিখিত বক্তব্যে তিনি বলেন, অর্পিত সম্পত্তি সংক্রান্ত আইন বিষয়ে উচ্চ আদালত একটি ঐতিহাসিক ও যুগান্তকারী রায় প্রদান করেছেন। বিচারপতি ওবায়দুল হাসান ও বিচারপতি কৃষ্ণা দেবনাথের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ একটি রিট আবেদনের নিষ্পত্তি শেষে দেয়া রায়ে ৫টি পর্যবেক্ষণসহ ৯ দফা নির্দেশনা দেন। অবিলম্বে এ নির্দেশনাগুলো দ্রুত বাস্তবায়নের দাবিসহ সরকারের কাছে ৭ দফা দাবি তুলে ধরেন তিনি।

দাবিগুলো হল : ১. উচ্চ আদালতের নির্দেশনাগুলো দ্রুত বাস্তবায়ন করতে হবে। ২. আপিল ট্রাইব্যুনালের রায় ও ডিক্রির বিরুদ্ধে জেলা প্রশাসকদের রিট না করার নির্দেশনা দিয়ে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ ও ভূমি মন্ত্রণালয় থেকে দ্রুত পরিপত্র জারি করতে হবে। ৩. বেআইনিভাবে অর্পিত সম্পত্তি তালিকাভুক্তির সঙ্গে জড়িত কর্মকর্তাদের চিহ্নিত করে বিচারে সোপর্দ করা। ৪. বাতিলকৃত ‘খ’ তফসিলভুক্ত সম্পত্তির ক্ষেত্রে খাজনা গ্রহণ ও নামজারিতে হয়রানি ও দুর্নীতি বন্ধ করতে হবে। ৫. ট্রাইব্যুনালে সরকারি কৌঁসুলিদের অহেতুক সময় চাওয়া বন্ধে আইন মন্ত্রণালয় থেকে নির্দেশনামূলক পরিপত্র জারি করতে হবে। ৬. জেলা জজ ও অতিরিক্ত জেলা জজ সমমর্যাদা সম্পন্ন ট্রাইব্যুনালের দেয়া রায়ের বিরুদ্ধে করা আপিল নিষ্পত্তির জন্য বিশেষ আপিল ট্রাইব্যুনাল দ্রুত গঠন করতে হবে। ৭. জাতীয় ও জেলা পর্যায়ে অর্পিত সম্পত্তি প্রত্যর্পণ আইন বাস্তবায়ন প্রক্রিয়া নিয়মিত পরিবীক্ষণে অংশগ্রহণমূলক কমিটি গঠন। সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, আইন কার্যকরী করার ক্ষেত্রে সুকৌশলে সরকারের বিভিন্ন পর্যায়ে এমনকি মন্ত্রী পর্যায়েও বাধা সৃষ্টি করা হচ্ছে, যেটি সম্পূর্ণভাবে আইন ও উচ্চ আদালতের রায়ের পরিপন্থী। বিশেষ ক্ষেত্রে যদি রায় মানা না হয় তাহলে আদালত অবমাননার মামলা করা হবে। উচ্চ আদালতের নির্দেশনাতে বলা হয়েছে, আইনের নির্ধারিত সময় পার হয়ে যাওয়ার পরও যেসব ভুক্তভোগী মামলা করতে পারেননি তারা তামাদি আইন, ১৯০৮-এর ১০ ধারা অনুযায়ী মামলা করতে পারবেন। সভাপতির বক্তব্যে সুলতানা কামাল বলেন, আইন মন্ত্রণালয় থেকে যে পরিপত্র দেয়া হয়েছে মন্ত্রিপরিষদ সচিব কোন ক্ষমতাবলে সেটিকে আটকে রেখে দিলেন সেটি আমাদের একটি প্রশ্ন। আমরা স্পষ্ট বলতে চাই, এই (অর্পিত সম্পত্তি প্রত্যর্পণ) আইনটা যাতে কার্যকর না হয় সেজন্য তিনি এ কূটকৌশলটি অবলম্বন করেছেন। তিনি বলেন, আমরা চাই এ ধরনের কূটকৌশল বাদ দিয়ে যাদের সম্পত্তি এতদিন ধরে বেআইনিভাবে দখলে রাখা হয়েছে আইন ও আদালতের রায় অনুযায়ী তাদের সেই সম্পত্তি যেন অবিলম্বে ফেরত দেয়া হয়।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter