জয়পুরহাটে শিশু হত্যায় যাবজ্জীবন
jugantor
জয়পুরহাটে শিশু হত্যায় যাবজ্জীবন

  জয়পুরহাট প্রতিনিধি  

১৮ জানুয়ারি ২০২২, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

জয়পুরহাটে চার মাস বয়সি এক শিশুকন্যাকে হত্যার অপরাধে জহুরুল ইসলাম নামে একজনকে যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদণ্ড ও ১০ হাজার টাকা জরিমানা, অনাদায়ে আরও এক বছরের সশ্রম কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। দুই আসামিকে খালাস দিয়েছেন।

সোমবার দুপুরে জয়পুরহাট জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক নূর ইসলাম জনাকীর্ণ আদালতে এ রায় দেন। সাজাপ্রাপ্ত জহুরুল ইসলাম জেলার জয়পুরহাট সদর উপজেলার হানাইল গ্রামের তোফেল উদ্দিনের ছেলে। খালাসপ্রাপ্তরা হলেন-নিহত শিশুর চাচা জুলজালাল ও চাচি তোহুরা বেগম।

২০০৬ সালের ২২ জুলাই বিকালে জয়পুরহাট সদর উপজেলার হানাইল গ্রামের আজিজার রহমানের চার মাস বয়সি শিশুকন্যা সুমাইয়াকে তার মা আছিয়া বেগম বাড়িতে দোলনায় রেখে পার্শ্ববর্তী মাঠে যান। পূর্বশক্রতার জের ধরে ওই সময় আসামি জহুরুল ইসলাম বাড়ির পেছনের ডোবায় শিশু সুমাইয়াকে হত্যার উদ্দেশ্যে ফেলে রেখে পালিয়ে যান। পরে অনেক খোঁজাখুঁজির পর ওইদিন সন্ধ্যায় স্থানীয়রা শিশুর লাশ দেখতে পেয়ে পুলিশে খবর দেয়। এ ঘটনায় নিহতের মা আছিয়া বেগম প্রতিবেশী জহুরুল ইসলাম, দেবর হবিবর রহমানের ছেলে জুল জালাল ও তার স্ত্রী তোহুরা বেগমের নাম উল্লেখ করে পরদিন জয়পুরহাট সদর থানায় মামলা করেন।

জয়পুরহাটে শিশু হত্যায় যাবজ্জীবন

 জয়পুরহাট প্রতিনিধি 
১৮ জানুয়ারি ২০২২, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

জয়পুরহাটে চার মাস বয়সি এক শিশুকন্যাকে হত্যার অপরাধে জহুরুল ইসলাম নামে একজনকে যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদণ্ড ও ১০ হাজার টাকা জরিমানা, অনাদায়ে আরও এক বছরের সশ্রম কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। দুই আসামিকে খালাস দিয়েছেন।

সোমবার দুপুরে জয়পুরহাট জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক নূর ইসলাম জনাকীর্ণ আদালতে এ রায় দেন। সাজাপ্রাপ্ত জহুরুল ইসলাম জেলার জয়পুরহাট সদর উপজেলার হানাইল গ্রামের তোফেল উদ্দিনের ছেলে। খালাসপ্রাপ্তরা হলেন-নিহত শিশুর চাচা জুলজালাল ও চাচি তোহুরা বেগম।

২০০৬ সালের ২২ জুলাই বিকালে জয়পুরহাট সদর উপজেলার হানাইল গ্রামের আজিজার রহমানের চার মাস বয়সি শিশুকন্যা সুমাইয়াকে তার মা আছিয়া বেগম বাড়িতে দোলনায় রেখে পার্শ্ববর্তী মাঠে যান। পূর্বশক্রতার জের ধরে ওই সময় আসামি জহুরুল ইসলাম বাড়ির পেছনের ডোবায় শিশু সুমাইয়াকে হত্যার উদ্দেশ্যে ফেলে রেখে পালিয়ে যান। পরে অনেক খোঁজাখুঁজির পর ওইদিন সন্ধ্যায় স্থানীয়রা শিশুর লাশ দেখতে পেয়ে পুলিশে খবর দেয়। এ ঘটনায় নিহতের মা আছিয়া বেগম প্রতিবেশী জহুরুল ইসলাম, দেবর হবিবর রহমানের ছেলে জুল জালাল ও তার স্ত্রী তোহুরা বেগমের নাম উল্লেখ করে পরদিন জয়পুরহাট সদর থানায় মামলা করেন।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন