মতিয়া চৌধুরী শেরপুরের উন্নয়ন বাধাগ্রস্ত করেন

-জেলা আ’লীগ

  শেরপুর প্রতিনিধি ২২ মে ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

শেরপুরে শহরের চকবাজারের দলীয় কার্যালয়ে সোমবার বিকালে সংবাদ সম্মেলন করেছে জেলা আওয়ামী লীগ। সংবাদ সম্মেলনে দলের ১৯ মে’র কার্যনির্বাহী কমিটির সভার সিদ্ধান্ত ঘিরে উদ্ভূত পরিস্থিতিতে দলের অবস্থান ব্যাখ্যা করা হয়। ওই দিন জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি হুইপ মো. আতিউর রহমান আতিকের সভাপতিত্বে কার্যনির্বাহী কমিটির সভায় কৃষিমন্ত্রী মতিয়া চৌধুরী এমপিকে শেরপুর থেকে প্রত্যাহার, শেরপুর-৩ আসনের এমপি প্রকৌশলী ফজলুল হক চাঁনসহ ৫ নেতাকে কমিটি থেকে বহিষ্কার, নালিতাবাড়ী উপজেলা কমিটি বাতিল, নকলা উপজেলার সাধারণ সম্পাদককে অব্যাহতি দেয়ার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়েছে। সংবাদ সম্মেলনে দফতর সম্পাদক আবদুল্লাহ আল মামুন স্বাক্ষরিত লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি খন্দকার মো. নজরুল ইসলাম। লিখিত বক্তব্যে কৃষিমন্ত্রী মতিয়া চৌধুরীকে শেরপুর জেলা থেকে প্রত্যাহারের কারণ বর্ণনা করা হয়। এতে বলা হয়- মতিয়া চৌধুরী শেরপুর জেলা শাখা থেকে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়ে মন্ত্রী হয়েছেন। তিনি জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য হওয়ার পরও একটি সভায়ও উপস্থিত হননি। শেরপুরে তিনি কোনো উন্নয়ন তো করেনই না বরং উন্নয়নকাজ বাধাগ্রস্ত করেন। আওয়ামী লীগ কেন্দ্রীয় কমিটি শেরপুর জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট চন্দন কুমার পাল পিপিকে শেরপুর জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান পদে মনোনয়ন দেয়। কিন্তু মতিয়া চৌধুরী বিদ্রোহী প্রার্থীকে সমর্থন ও সহযোগিতা করেছেন।

শেরপুর জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য ফজলুল হক চাঁন এমপি জেলা আওয়ামী লীগের একটি সভায়ও উপস্থিত হননি। এছাড়া জেলা পরিষদ নির্বাচনে তিনিও বিদ্রোহী প্রার্থীর পক্ষে কাজ করেছেন। নোটিশেরও জবাব দেননি। এজন্য তাকেও অব্যাহতি দিয়ে তা কেন্দ্রে পাঠানোর সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter
×