উদ্বেগজনক সংখ্যায় ‘বন্দুকের ব্যবহার’ হচ্ছে

সুলতানা কামাল

  যুগান্তর রিপোর্ট ২২ মে ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

প্রতিদিন উদ্বেগজনক সংখ্যায় ‘বন্দুকের ব্যবহার’ হচ্ছে বলে মন্তব্য করেছেন মানবাধিকারকর্মী সুলতানা কামাল। তিনি বলেন, ‘কেন এ উপায়েই মাদক সন্ত্রাসকে দমন করতে হচ্ছে, অন্য কোনো উপায় কী নেই?’ সোমবার ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে মানবাধিকার পরিস্থিতি সংক্রান্ত এক অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন।

সুলতানা কামাল আরও বলেন, ‘সংবিধানের ৩১ থেকে ৩৫ ধারায় পরিষ্কার বলা হয়েছে- যত দুর্ধর্ষ সন্ত্রাসী হোক না কেন, যত গুরুতর অপরাধী হোক না কেন, তার বিচারের জন্য রাষ্ট্র কতগুলো নিয়মনীতি তৈরি করবে, সে অনুযায়ী বিচার হতে হবে। কেউ দোষী প্রমাণিত হলে যে শাস্তি প্রাপ্য, সেটা তাকে দিতে হবে। আমাদের দেশে মাদক ব্যবসার জন্য কী শাস্তি রয়েছে সেটা আমরা জানি। যারা মাদক ব্যবসায়ী কিংবা মাদক অপরাধের সঙ্গে যুক্ত, এ রকম ব্যক্তি হিসেবে যাদের বলা হচ্ছে- বন্দুকযুদ্ধে তাদের মেরে ফেলা হচ্ছে কিংবা মারা যাচ্ছে।’

অতীতে ‘বন্দুকযুদ্ধের’ ঘটনাসহ বর্তমানে সংঘটিত প্রত্যেকটি ঘটনার ‘সুষ্ঠু তদন্ত’ দাবি করে সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের উপদেষ্টা সুলতানা কামাল বলেন, যে কথাটা আমরা বারবার বলে এসেছি এই কারণে যে, আসলেই এখানে বন্দুকযুদ্ধে মারা যাচ্ছে কিনা? কিংবা অন্য কোনোভাবে বন্দুকের অপব্যবহার হচ্ছে কিনা। যারা বন্দুক ব্যবহার করছেন তাদেরকে বন্দুক কেনার টাকাটা আমরাই দিয়েছি। জনগণের করের টাকা। আমরা কিন্তু তাদেরকে একটা সেংশন দিয়ে রেখেছি, আগ্নেয়াস্ত্র কোন সময় ব্যবহার করতে পারে, কোন সময় পারে না। আগ্নেয়াস্ত্র তাদেরকে ব্যবহারের জন্য দেয়া হয়েছে নিশ্চয় কিন্তু তাদেরকে ব্যবহারবিধিও দেয়া হয়েছে। কিন্তু এভাবে যদি বন্দুকযুদ্ধের ঘটনা প্রত্যক্ষ করতে হয় সেটা খুবই দুর্ভাগ্যজনক।

তবে মাদকের মতো ‘বিষাক্ত ব্যাপার’ দমন প্রসঙ্গে সুলতানা কামাল বলেন, অবশ্যই কঠোর পদক্ষেপ নিতে হবে। কিন্তু সবচেয়ে বড় কথা, সংবিধান বলে তো একটা কথা আছে। অনুষ্ঠানে এএলআরডির নির্বাহী পরিচালক শামসুল হুদা বলেন, পত্রিকা খুলতেই দেখা যাচ্ছে প্রতিদিন বন্দুকযুদ্ধে মানুষ মারা যাচ্ছে। এই মাদকের বিরুদ্ধে অভিযানের বিষয়ে আমাদের কারোরই দ্বিমত নেই। মাদকের বিরুদ্ধে অবস্থান নিচ্ছে প্রধানমন্ত্রী নির্দেশ দিয়েছেন সেটাকেও আমরা স্বাগত জানাই। কিন্তু যে পদ্ধতিতে কাজটি হচ্ছে সেটি সঠিক কিনা ভেবে দেখা দরকার। অনুষ্ঠানে জাতিসংঘের মানবাধিকার কাউন্সিলে বাংলাদেশের মানবাধিকার পরিস্থিতি নিয়ে পর্যালোচনা নিয়ে লিখিত বক্তব্য উপস্থাপন করেন সিএসএর সদস্য আকলিমা ফেরদৌস। এতে কাপেং ফাউন্ডেশনের নির্বাহী পরিচালক পল্লব চাকমা, এনএনসির কো-অর্ডিনেটর মুজাহিদুল ইসলাম বক্তব্য দেন।

 

 

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter
.