ধর্মীয় শিক্ষার সঙ্গে আধুনিকতার সমন্বয় হচ্ছে

শিক্ষামন্ত্রী

প্রকাশ : ২২ মে ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

  যুগান্তর রিপোর্ট

শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ বলেছেন, দেশের আলেমরা যদি ইসলামী শিক্ষার পাশাপাশি আধুনিক শিক্ষা অর্জন করেন তাহলে একই সঙ্গে ভালো আলেম ও ভালো অফিসার তৈরি হবে। মাদ্রাসা শিক্ষার্থীরা যাতে শুধু ধর্মীয় শিক্ষা নয়, আধুনিক শিক্ষা অর্জন করতে পারেন এ জন্য ধর্মীয় শিক্ষার সঙ্গে আধুনিক শিক্ষার সমন্বয় করা হয়েছে।

সোমবার রাজধানীর মহাখালীর গাউসুল আজম কমপ্লেক্সে বাংলাদেশ জমিয়াতুল মোদার্রেছীন আয়োজিত আলোচনা সভা ও ইফতার মাহফিলে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় তিনি এসব কথা বলেন। সংগঠনটির সভাপতি এএমএম বাহাউদ্দীনের সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথির বক্তৃতা করেন পরিকল্পনামন্ত্রী আ হ ম মোস্তফা কামাল, কারিগরি ও মাদ্রাসা বিভাগের প্রতিমন্ত্রী কাজী কেরামত আলী, ধর্মবিষয়ক সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি বজলুল হক হারুন এমপি, মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের সচিব মো. সোহরাব হোসাইন, কারিগরি ও মাদ্রাসা শিক্ষা বিভাগের সচিব মো. আলমগীর, শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব মহিউদ্দীন খান, একেএম জাকির হোসেন ভূঞা, আবুল হাসান মাহমুদ চৌধুরী, রওনক মাহমুদ, মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদফতরের মহাপরিচালক অধ্যাপক মাহাবুবুর রহমান, মাদ্রাসা শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান একেএম ছায়েফউল্ল্যা, ইসলামি আরবি বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি অধ্যাপক ড. আহসান উল্লাহ। অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন জমিয়াতুল মোদার্রেছিনের মহাসচিব অধ্যক্ষ শাব্বীর আহমদ মোমতাজী।

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, জমিয়াতুল মোদার্রেছীনের দাবির প্রেক্ষিতে ইসলামী আরবি বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে। এছাড়া মাদ্রাসা শিক্ষা অধিদফতর প্রতিষ্ঠা ও উচ্চমানের শিক্ষার জন্য মাদ্রাসায় অনার্স কোর্স চালু করা হয়েছে। ইতিমধ্যে দুই হাজার মাদ্রাসার নতুন ভবন তৈরি করা হয়েছে। আরও দুই হাজার নতুন ভবন তৈরি করা হবে। ইতিমধ্যে তা অনুমোদনের জন্য একনেকে প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। এটি অব্যাহত থাকবে।

পরিকল্পনা মন্ত্রী আ হ ম মোস্তফা কামাল বলেন, পবিত্র রমজান মাস আমরা যারা পেয়েছি তারা সত্যিই ভাগ্যবান। কারণ এই রমজান হল দোয়া কবুলের মাস, সিয়াম সাধনার মাস। আমরা যারা রোজা রেখে আল্লাহর কাছে দোয়া করব বারবার তিনি যেন আমাদের রমজান মাস পাওয়ার সৌভাগ্য দেন।

কারিগরি ও মাদ্রাসা শিক্ষা বিভাগের প্রতিমন্ত্রী কাজী কেরামত আলী বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আমাকে মাদ্রাসা ও কারিগরি শিক্ষা বিভাগের দায়িত্ব দিয়েছেন। দায়িত্ব পেয়ে আমি কারিগরি শিক্ষাকে যুগোপযোগী করার চেষ্টা করছি। মাদ্রাসা ও কারিগরি শিক্ষা বিভাগের উন্নয়নের জন্য তিনি আগামী বাজেটে আরও বরাদ্দ চেয়েছেন বলে জানান।

বিএইচ হারুন এমপি বলেন, জমিয়াতুল মোদার্রেছীনের শিক্ষকরা রমজানের তাৎপর্য বোঝেন এবং মানুষকে বোঝান। এককভাবে এর কম সারাদেশে বৃহৎ ও সংগবদ্ধ সংগঠন আর নেই।

আলোচনায় দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে আসা মাদ্রাসার শিক্ষকরা যোগ দেন। আলোচনা শেষে ইফতারের পর্ব ছিল।