মতিয়া চৌধুরীকে প্রত্যাহার চাওয়ার সিদ্ধান্ত ভুল ছিল

কেন্দ্রের সঙ্গে বৈঠকে শেরপুর জেলা আ’লীগ সভাপতি-সাধারণ সম্পাদক

  যুগান্তর রিপোর্ট ও শেরপুর প্রতিনিধি ২৩ মে ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

দলের প্রেসিডিয়াম সদস্য এবং কৃষিমন্ত্রী মতিয়া চৌধুরীকে শেরপুর জেলা আওয়ামী লীগ থেকে প্রত্যাহার ও শেরপুর-৩ আসনের এমপিসহ পাঁচ নেতাকে বহিষ্কারের সিদ্ধান্ত ভুল ছিল বলে স্বীকার করে নিয়েছে শেরপুর জেলা আওয়ামী লীগ।

মঙ্গলবার দলের কেন্দ্রীয় নেতাদের সামনে এমন স্বীকারোক্তি দেন শেরপুর জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি হুইপ মো. আতিউর রহমান আতিক ও সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট চন্দন কুমার পাল। আওয়ামী লীগ সূত্রে এ খবর পাওয়া যায়।

সূত্র জানায়, গতকাল দুপুরের পর দলের সভাপতির ধানমণ্ডির রাজনৈতিক কার্যালয়ে শেরপুরের নেতাদের নিয়ে বসেন প্রেসিডিয়াম সদস্য ড. আবদুর রাজ্জাক, ঢাকা বিভাগের দায়িত্বপ্রাপ্ত যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ডা. দীপু মনি এবং সংস্কৃতিবিষয়ক সম্পাদক অসীম কুমার উকিল। তারা শেরপুর জেলা আওয়ামী লীগের দুই পক্ষের নেতাদের বক্তব্য শোনেন। এক পর্যায়ে দলের প্রেসিডিয়াম সদস্যের বিরুদ্ধে এমন সিদ্ধান্ত নেয়ার কারণ ও কৈফিয়ত জানতে চান। তারা কেন্দ্রীয় কমিটির অনুমোদন ছাড়া কোনো ইউনিট কমিটি ভাঙা বা বহিষ্কারের বিষয়ে দলের সাধারণ সম্পাদকের চিঠির বিষয়টি উল্লেখ করে জেলার নেতাদের ভর্ৎসনা করেন। তখন জেলা নেতারা ভুল স্বীকার করে নেন।

এতে শেরপুর জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি হুইপ মো. আতিউর রহমান আতিক ও সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট চন্দন কুমার পাল, কেন্দ্রীয় নেতা খোরশেদুজ্জামান, জেলা আওয়ামী লীগ সদস্য কৃষিবিদ বদিউজ্জামান বাদশা, ঝিনাইগাতী উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এসএম ওয়ারেছ নাঈম, শ্রীবরদী উপজেলা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক মোতাহারুল ইসলাম লিটন উপস্থিত ছিলেন। এরা সবাই মতিয়া চৌধুরী বিরোধী। আর মতিয়া চৌধুরী পক্ষের শেরপুর-৩ (শ্রীবরদী-ঝিনাইগাতী) আসনের এমপি প্রকৌশলী একেএম ফজলুল হক চাঁন, জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি সামছুন্নাহার কামাল, জেলা আওয়ামী লীগ সদস্য শেরপুর সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ছানুয়ার হোসেন ছানু, নালিতাবাড়ী উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি জিয়াউল হক মাস্টার, সাধারণ সম্পাদক ফজলুল হক ও নকলা উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মোস্তাফিজুর রহমান, সাধারণ সম্পাদক রফিকুল ইসলাম জিন্নাহ ওই বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন।

বৈঠকের বিষয়টি স্বীকার করলেও এ নিয়ে আর কিছু বলতে চাননি ওই বৈঠকে উপস্থিত আওয়ামী লীগের সংস্কৃতিবিষয়ক সম্পাদক অসীম কুমার উকিল। শেরপুর জেলা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট চন্দন কুমার পাল, সহসভাপতি শামছুন্নাহার কামাল ও সদস্য শেরপুর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ছানু এ বৈঠক সম্পর্কে মঙ্গলবার সন্ধ্যায় যুগান্তরকে জানান, বৈঠকে খোলামেলা আলোচনা হয়েছে। কেন্দ্রীয় নেতারা ধৈর্য ধরে সব কথা শুনেছেন। কেন্দ্রীয় নেতারা কিছু কিছু বিষয়ে দিকনির্দেশনা দিয়ে জেলা নেতাদের আলাপ আলোচনার মাধ্যমে সব সমস্যার সমাধান করার জন্য পরামর্শ দিয়েছেন। জেলা আওয়ামী লীগ সহসভাপতি শামছুন্নাহার কামাল যুগান্তরকে বলেন, জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক এসব সিদ্ধান্ত ভুল ছিল বলে বৈঠকে স্বীকার করেছেন।

জেলা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক চন্দন কুমার পাল বলেন, বৈঠকে জেলা আওয়ামী লীগের চলমান অচলাবস্থা ও কোন্দলের বিষয়টি মীমাংসা না হলেও অনেক দূর অগ্রগতি হয়েছে।

গত শনিবার শেরপুর জেলা আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী কমিটির সভায় নালিতাবাড়ী উপজেলা কমিটি বিলুপ্ত ঘোষণা করে সাংগঠনিক কার্যক্রম স্থগিত ঘোষণা করা হয়। একই সঙ্গে শেরপুর-২ (নকলা-নালিতাবাড়ী) আসনের সংসদ সদস্য কৃষিমন্ত্রী মতিয়া চৌধুরীকে শেরপুর থেকে প্রত্যাহার, দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গের অভিযোগে শেরপুর-৩ (শ্রীবরদী-ঝিনাইগাতী) আসনের সংসদ সদস্য ফজলুল হক চাঁনসহ পাঁচজনকে জেলা আওয়ামী লীগের কমিটি থেকে বহিষ্কার এবং নকলা উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শফিকুল ইসলাম জিন্নাহকে অব্যাহতি দিয়ে তার স্থলে সাধারণ সম্পাদক হিসেবে ১ নম্বর যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক শাহ মো. বুরহান উদ্দিনকে ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব দেয়ার সিদ্ধান্ত ঘোষণা করা হয়।

মতিয়া চৌধুরীকে বহিষ্কারের বিষয়টি গণমাধ্যমে ফলাও হলে জেলা আওয়ামী লীগের একাংশের নেতাকর্মীরা সংবাদ সম্মেলন করে প্রতিবাদ জানান। এমনকি হুইপ আতিকের বিরুদ্ধে ঝাড়ু মিছিলও করেন। ওই জেলার উদ্ভূত পরিস্থিতির সমাধান করতে কেন্দ্রীয় নেতারা জেলা নেতাদের সঙ্গে বৈঠক করেন।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter
×