জাতীয় ঘাট শ্রমিক লীগের দাবি

শ্রমিকদের বদলে নেতাকর্মী দিয়ে চলছে সদরঘাট

নৌমন্ত্রীর বিরুদ্ধে যাত্রী ও ব্যবসায়ীদের জিম্মি করে অর্থ আদায়ের অভিযোগ

  যুগান্তর রিপোর্ট ০১ জুন ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

শ্রমিকদের বদলে নেতাকর্মী দিয়ে চলছে সদরঘাট

ঢাকা নদী বন্দর সদরঘাট টার্মিনাল ইজারা না দিয়ে খাস কালেকশনের নামে মধ্যস্বত্বভোগীদের হাতে তুলে দেয়া হয়েছে বলে অভিযোগ করেছে জাতীয় ঘাট শ্রমিক লীগ।

বৃহস্পতিবার জাতীয় প্রেস ক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলনে এ অভিযোগ করেন সংগঠনের নেতারা। তাদের অভিযোগ, এ বন্দরে শ্রমিকদের বদলে দলীয় নেতাকর্মীদের দিয়ে লঞ্চ থেকে মালামাল উঠানামা করা হচ্ছে।

এসব মালামাল উঠানামার ক্ষেত্রে যাত্রী ও ব্যবসায়ীদের জিম্মি করে সরকারি নির্ধারিত ভাড়ার চেয়ে অতিরিক্ত টাকা আদায় করা হচ্ছে। এতে সরকার বিপুল অঙ্কের রাজস্ব হারাচ্ছে।

এসব ঘটনার নেপথ্যে নৌমন্ত্রী শাজাহান খানের সম্পৃক্ততা রয়েছে। তার আত্মীয়-স্বজন সদরঘাট পরিচালনায় রয়েছে বলেও দাবি করেন তারা। তবে আত্মীয়-স্বজনের নাম জানাননি তারা।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য দেন জাতীয় ঘাট শ্রমিক লীগের সাধারণ সম্পাদক রফিকুল ইসলাম। তিনি বলেন, ২০০৯-১৪ সাল পর্যন্ত নৌমন্ত্রী শাজাহান খানের ব্যক্তিগত লোক বিএনপি নেতা আলমগীর ও তার সহযোগীদের নামে ঘাট ইজারা দেন।

এ নিয়ে আমরা অভিযোগ করলেও মন্ত্রী তা আমলে নেননি। পরে প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করলে নৌমন্ত্রী শাজাহান খান উন্মুক্ত খাস কালেকশনের নামে কেরানীগঞ্জ উপজেলা চেয়ারম্যান শাহীন আহমেদ ও তার ভাই শিপু আহমেদ এবং বিএনপির নেতৃত্বে সদরঘাট পরিচলানা করা হচ্ছে।

এর ফলে সরকার কোটি টাকা রাজস্ব আয় থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। আরও বলেন, প্রধানমন্ত্রী শ্রমিকদের চিহ্নিত করে সদরঘাট ইজারা দেয়ার জন্য নৌ মন্ত্রণালয়কে নির্দেশ দিলেও তা মানা হচ্ছে না। সদরঘাট পরিচালনার সঙ্গে মন্ত্রীর আত্মীয়-স্বজন রয়েছেন।

সংগঠনের সভাপতি আবদুল জলিল হাওলাদার বলেন, প্রকৃত ঘাট শ্রমিকরা কাজ না পেয়ে অনাহারে ও অর্ধাহারে মানবেতর জীবনযাপন করছে। অথচ অসত্য তথ্য দিয়ে মধ্যস্বত্বভোগীদের মাধ্যমে ঘাট পরিচালনা করা হচ্ছে।

সদরঘাটে যাত্রী হয়রানি চরমে পৌঁছেছে। যাত্রী ও ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে চাহিদা অনুযায়ী টাকা না পেলে সদরঘাট দিয়ে মালামাল বহন করতে দেয়া হচ্ছে না। এ সময় তিনি খাস কালেকশন, বিশেষ কোটা বা উন্মুক্ত যে কোনো নামে ঘাট শ্রমিক লীগকে সদরঘাটে পণ্য উঠানামার দায়িত্ব দেয়ার দাবি জানান। একই সঙ্গে ৬ জুনের মধ্যে সদরঘাট পরিচালনায় অনিয়মের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ারও দাবি জানিয়েছেন।

অন্যথায় ৭ জুন সদরঘাটের সামনে মানববন্ধনের আয়োজন করা হবে। সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন কার্যকরী সভাপতি ফরহাদ হোসেন পারু, সাংগঠনিক সম্পাদক জাভেদ হোসেন মিঠু, সহ-সভাপতি কাঞ্চন মিয়া, আবদুল মান্নান প্রমুখ।

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×