দুই রোহিঙ্গা নেতা হত্যায় গ্রেফতার ৩
jugantor
দুই রোহিঙ্গা নেতা হত্যায় গ্রেফতার ৩

  কক্সবাজার প্রতিনিধি  

১২ আগস্ট ২০২২, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

কক্সবাজারে উখিয়ার বালুখালির জামতলী রোহিঙ্গা শিবিরে সন্ত্রাসীদের গুলিতে দুই রোহিঙ্গা নিহত হওয়ার ঘটনায় উখিয়া থানায় হত্যা মামলা করেছেন নিহত আবু তালেবের স্ত্রী তৈয়বা খাতুন। বুধবার রাত ১টায় পাঁচজনের নাম উল্লেখ করে সাত-আটজনকে অজ্ঞাতনামা দেখিয়ে এ মামলাটি করা হয়েছে। এ ঘটনায় এজাহারভুক্ত তিন আসামিকে বৃহস্পতিবার ভোরে অভিযান চালিয়ে গ্রেফতার করেছে এপিবিএন।

উখিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শেখ মোহাম্মদ আলী বলেন, জামতলি এফডিএমএন ক্যাম্প-১৫ এর সি ব্লকের হেড মাঝি (ব্লকের নেতা) আবু তালেব ও সাবমাঝি সৈয়দ হোসেন নিহত হওয়ার ঘটনায় বাদীর করা এজাহারটি মামলা হিসাবে নথিভুক্ত করা হয়েছে। এজাহারনামীয় আসামিরা হলেন-জাফর আলমের ছেলে মাহামুদুল হাসান, সোনা আলীর ছেলে সাহ মিয়া ও তার ভাই আবুল কালাম ওরফে জাহিদ আলম, রশিদ আহম্মেদের ছেলে জাফর আলম ও তার ছেলে মো. সোয়াইব।

পূর্বশত্রুতার জেরে এ জোড়া খুনের সঙ্গে আবুল কাশেমের ছেলে সাবমাঝি রেজাউল আলম, জাফর হোসেনের ছেলে সাবমাঝি মো. ইয়াছিন ও ইসমাঈলের ছেলে (ভলান্টিয়ার) নুর মোহাম্মদ জড়িত থাকার সন্দেহ রয়েছে বলে এজাহারে উল্লেখ করা হয়েছে।

৮ আর্মড পুলিশ ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক মোহাম্মদ শিহাব কায়সার বলেন, অভিযুক্তদের গ্রেফতারে পুলিশের একাধিক টিম কাজ করছে। এরই মধ্যে রোহিঙ্গা শিবিরে বিশেষ অভিযান চালিয়ে তিনজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। নিরাপত্তা জোরদার করা হয়েছে ক্যাম্পে।

দুই রোহিঙ্গা নেতা হত্যায় গ্রেফতার ৩

 কক্সবাজার প্রতিনিধি 
১২ আগস্ট ২০২২, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

কক্সবাজারে উখিয়ার বালুখালির জামতলী রোহিঙ্গা শিবিরে সন্ত্রাসীদের গুলিতে দুই রোহিঙ্গা নিহত হওয়ার ঘটনায় উখিয়া থানায় হত্যা মামলা করেছেন নিহত আবু তালেবের স্ত্রী তৈয়বা খাতুন। বুধবার রাত ১টায় পাঁচজনের নাম উল্লেখ করে সাত-আটজনকে অজ্ঞাতনামা দেখিয়ে এ মামলাটি করা হয়েছে। এ ঘটনায় এজাহারভুক্ত তিন আসামিকে বৃহস্পতিবার ভোরে অভিযান চালিয়ে গ্রেফতার করেছে এপিবিএন।

উখিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শেখ মোহাম্মদ আলী বলেন, জামতলি এফডিএমএন ক্যাম্প-১৫ এর সি ব্লকের হেড মাঝি (ব্লকের নেতা) আবু তালেব ও সাবমাঝি সৈয়দ হোসেন নিহত হওয়ার ঘটনায় বাদীর করা এজাহারটি মামলা হিসাবে নথিভুক্ত করা হয়েছে। এজাহারনামীয় আসামিরা হলেন-জাফর আলমের ছেলে মাহামুদুল হাসান, সোনা আলীর ছেলে সাহ মিয়া ও তার ভাই আবুল কালাম ওরফে জাহিদ আলম, রশিদ আহম্মেদের ছেলে জাফর আলম ও তার ছেলে মো. সোয়াইব।

পূর্বশত্রুতার জেরে এ জোড়া খুনের সঙ্গে আবুল কাশেমের ছেলে সাবমাঝি রেজাউল আলম, জাফর হোসেনের ছেলে সাবমাঝি মো. ইয়াছিন ও ইসমাঈলের ছেলে (ভলান্টিয়ার) নুর মোহাম্মদ জড়িত থাকার সন্দেহ রয়েছে বলে এজাহারে উল্লেখ করা হয়েছে।

৮ আর্মড পুলিশ ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক মোহাম্মদ শিহাব কায়সার বলেন, অভিযুক্তদের গ্রেফতারে পুলিশের একাধিক টিম কাজ করছে। এরই মধ্যে রোহিঙ্গা শিবিরে বিশেষ অভিযান চালিয়ে তিনজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। নিরাপত্তা জোরদার করা হয়েছে ক্যাম্পে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন