হুমকিতে প্রস্তাবিত হাইমচর অর্থনৈতিক অঞ্চল
jugantor
মাটিখেকো চক্র বেপরোয়া
হুমকিতে প্রস্তাবিত হাইমচর অর্থনৈতিক অঞ্চল

  চাঁদপুর প্রতিনিধি  

০২ ডিসেম্বর ২০২২, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

চাঁদপুরের দক্ষিণে হাইমচরের মধ্যচর প্রধানমন্ত্রী ঘোষিত প্রস্তাবিত অর্থনৈতিক অঞ্চল। কিন্তু এখান থেকে মাটি কেটে নিয়ে যাচ্ছে একটি চক্র। তারা এই মাটি মুন্সীগঞ্জের ইটভাটায় বিক্রি করছে। এতে বিলীন হতে চলেছে নীলকমল ইউনিয়নের ‘শিকদার কান্দি’ গ্রাম।

চক্রটি ২৯ নভেম্বর সন্ধ্যায় শিকদার কান্দিতে ৪-৫টি ভেক্যু দিয়ে মাটি কাটা শুরু করে। জানা যায়, এই মাটিখেকো চক্রের মূল হোতা কল্যাণপুর ইউনিয়নের ইউপি সদস্য রনি। উপজেলার বিভিন্ন মহলের লোকজনকে টাকা দিয়ে ম্যানেজ করে তিনি মাটি বিক্রি করছেন। স্থানীয় ইউপি সদস্য রতন মাল জানান, আমি কিছুক্ষণ আগে জানতে পেরেছি সেই মাটিখেকোরা আবারও আমার ওয়ার্ড থেকে মাটি কেটে নিয়ে যাচ্ছে। আমি এ মাটি রক্ষায় প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করেছি। সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান রতন হাজী জানান, মাটি কাটার সংবাদ জানতে পেরে তা বন্ধ করে দিয়েছি। চরের মাটি কেটে নিতে দেওয়া হবে না।

নীলকমল ইউপি চেয়ারম্যান সউদ আল নাসের জানান, আমার ইউনিয়নে মাটি কাটার সংবাদ পেয়ে ইউএনওকে বিষয়টি জানিয়েছি। তিনি আমাকে মেম্বার ও চৌকিদারদের নিয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে মাটি কাটা বন্ধ করার জন্য বলেছেন। আমি প্রশাসনের সহযোগিতা নিয়ে এ মাটিখেকো চক্র প্রতিহত করব। উপজেলা নির্বাহী অফিসার চাই থোয়াইহলা চৌধুরী বলেন, সংবাদ পেয়েছি। মাটি কাটা বন্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করব।

মাটিখেকো চক্র বেপরোয়া

হুমকিতে প্রস্তাবিত হাইমচর অর্থনৈতিক অঞ্চল

 চাঁদপুর প্রতিনিধি 
০২ ডিসেম্বর ২০২২, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

চাঁদপুরের দক্ষিণে হাইমচরের মধ্যচর প্রধানমন্ত্রী ঘোষিত প্রস্তাবিত অর্থনৈতিক অঞ্চল। কিন্তু এখান থেকে মাটি কেটে নিয়ে যাচ্ছে একটি চক্র। তারা এই মাটি মুন্সীগঞ্জের ইটভাটায় বিক্রি করছে। এতে বিলীন হতে চলেছে নীলকমল ইউনিয়নের ‘শিকদার কান্দি’ গ্রাম।

চক্রটি ২৯ নভেম্বর সন্ধ্যায় শিকদার কান্দিতে ৪-৫টি ভেক্যু দিয়ে মাটি কাটা শুরু করে। জানা যায়, এই মাটিখেকো চক্রের মূল হোতা কল্যাণপুর ইউনিয়নের ইউপি সদস্য রনি। উপজেলার বিভিন্ন মহলের লোকজনকে টাকা দিয়ে ম্যানেজ করে তিনি মাটি বিক্রি করছেন। স্থানীয় ইউপি সদস্য রতন মাল জানান, আমি কিছুক্ষণ আগে জানতে পেরেছি সেই মাটিখেকোরা আবারও আমার ওয়ার্ড থেকে মাটি কেটে নিয়ে যাচ্ছে। আমি এ মাটি রক্ষায় প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করেছি। সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান রতন হাজী জানান, মাটি কাটার সংবাদ জানতে পেরে তা বন্ধ করে দিয়েছি। চরের মাটি কেটে নিতে দেওয়া হবে না।

নীলকমল ইউপি চেয়ারম্যান সউদ আল নাসের জানান, আমার ইউনিয়নে মাটি কাটার সংবাদ পেয়ে ইউএনওকে বিষয়টি জানিয়েছি। তিনি আমাকে মেম্বার ও চৌকিদারদের নিয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে মাটি কাটা বন্ধ করার জন্য বলেছেন। আমি প্রশাসনের সহযোগিতা নিয়ে এ মাটিখেকো চক্র প্রতিহত করব। উপজেলা নির্বাহী অফিসার চাই থোয়াইহলা চৌধুরী বলেন, সংবাদ পেয়েছি। মাটি কাটা বন্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করব।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন