প্রতিপক্ষকে হত্যা মামলায় ফাঁসানোর অভিযোগ

নরসিংদীর চরাঞ্চলে আধিপত্যের লড়াই

  নরসিংদী প্রতিনিধি ০৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

মামলা

নরসিংদীর চরাঞ্চল শ্রীনগরে প্রতিপক্ষকে গ্রামছাড়া করতে হত্যা মামলায় ফাঁসানোর অভিযোগ উঠেছে। নৌকার মাঝি আশকর আলীর মৃত্যুকে কেন্দ্র করে উত্তেজনা বিরাজ করছে গ্রামজুড়ে।

অন্যদিকে হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুর পর আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীদের জড়িয়ে হত্যা মামলা দায়ের করায় ফুঁসে উঠেছে গ্রামবাসী।

অভিযোগ উঠেছে, এলাকার আধিপত্য নিয়ন্ত্রণে নেয়ার জন্য একটি পক্ষ নোংরা খেলায় মেতে উঠেছে। এদিকে স্বজনরা ঘটনাটি হত্যাকাণ্ড দাবি করে থানায় ৩২ জনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেছে। তবে স্থানীয় চিকিৎসক বলছেন, স্ট্রোকজনিত কারণেই তার মৃত্যু হয়েছে। আর পুলিশ বলছে, ময়নাতদন্তের প্রতিবেদনেই ঘটনাটি হত্যা না স্বাভাবিক মৃত্যু, তা উদ্ঘাটিত হবে।

এদিকে এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে নতুন করে উত্তেজনা ছড়িয়েছে চরাঞ্চল শ্রীনগরে। মুখোমুখি অবস্থানে দুই পক্ষ নিজেদের শক্তি প্রদর্শনের প্রতিযোগিতায় নেমে পড়ায় যে কোনো সময় বড় ধরনের সংঘাতের আশঙ্কা সৃষ্টি হয়েছে। এরই পরিপ্রেক্ষিতে পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে দুই পক্ষের সঙ্গে যোগাযোগ করে সতর্ক অবস্থানে রয়েছে পুলিশ।

সরেজমিন চরাঞ্চল শ্রীনগরে গিয়ে বিভিন্ন শ্রেণীপেশার মানুষের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, মেঘনা নদীবেষ্টিত চরাঞ্চল করিমপুর ইউনিয়নের শ্রীনগর গ্রামে গোষ্ঠীগত দাঙ্গা ও আধিপত্য বিস্তার নিয়ে ফজুর বাড়ি ও বদলী বাড়ির লোকজনের মধ্যে দ্বন্দ্ব দীর্ঘদিনের। এরই জেরে উভয় পরিবারের লোকদের মধ্যে দফায় দফায় সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।

এরই ধারাবাহিকতায় ২৯ আগস্ট সকালে দুই পক্ষ মুখোমুখি অবস্থান নেয়। এ সময় প্রতিপক্ষের ছোড়া ইট খণ্ডের আঘাতে আশকর আলী আহত হয়। স্বজনরা তাকে বাড়ি নিয়ে গেলে তিনি জ্ঞান হারিয়ে ফেলেন।

পরে স্থানীয় পল্লী চিকিৎসক আলমগীর সরকারের কাছে নিয়ে গেলে তাকে মৃত ঘোষণা করেন। ওই সময় স্বজনরা নিহতের লাশ বাড়িতে নিয়ে যাওয়ার পথিমধ্যে সিদ্ধান্ত পাল্টে নরসিংদী সদর হাসপাতালে নিয়ে এলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

গ্রামের পল্লী চিকিৎসক আলমগীর সরকার বলেন, চেম্বারে নিয়ে আসার পর শরীরে কোনো আঘাতের চিহ্ন দেখতে পাইনি। তবে নিহতের মেয়ে আমাকে জানিয়েছেন তার বাবা স্ট্রোক করেছে। তারপর আমি পরীক্ষা করে দেখি তিনি মৃত।

ইউপি সদস্য কামাল মিয়া বলেন, একটি স্বাভাবিক মৃত্যুকে হত্যা বানিয়ে তারা থানায় মিথ্যা মামলা করেছে। সেই মিথ্যা মামলায় আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের ফাঁসানো হয়েছে। আসলে তারা বিএনপির এজেন্ট হয়ে আওয়ামী লীগকে ধ্বংস করার পাঁয়তারা করছে। সঠিকভাবে তদন্ত করলেই সব বেরিয়ে আসবে। এ ঘটনায় ৩২ জনের নাম উল্লেখ করে নরসিংদী সদর মডেল থানায় মামলা দায়ের করেন নিহতের স্ত্রী হেলেনা আক্তার।

মামলার তদারককারী কর্মকর্তা অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সার্কেল) শাহারিয়ার আলম জানান, নিহতের শরীরে কোনো ধারালো অস্ত্রের আঘাত পাওয়া যায়নি। তবে মাথায় ও বুকে ছোড়া ইটের আঘাত ছিল। সেই আঘাতে নাকি শারীরিকভাবে অসুস্থ হয়ে তিনি মৃত্যুবরণ করেছেন, তা ময়নাতদন্তের রিপোর্টে বেরিয়ে আসবে। এলাকার পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে পুলিশকে সতর্ক রাখা হয়েছে।

 

 

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter