সুস্থ থাকুন

অ্যাকজিমা নিরাময় সম্ভব

  ডা. দিদারুল আহসান ১৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

অ্যাকজিমা নিরাময় সম্ভব
ছবি- সংগৃহীত

অনেকে মনে করেন, ত্বকে যে কোনো প্রদাহ মানেই অ্যাকজিমা। কারও মতে অ্যাকজিমার জন্য দায়ী অ্যালার্জি। প্যামলজিস্টরা মনে করে এজন্য ত্বকে ছেঁড়া ছেঁড়া ভাব হওয়া চাই।

বৈশিষ্ট্য : এক্ষেত্রে প্রথমে ত্বক লালাভ হয়, তারপর সেখানে একটু ফুলে ওঠে ও পরে ছোট ছোট গুটি বা ফোস্কা বেরোয়। ফোস্কা ফেটে গিয়ে রস ঝরতে পারে এবং জীবাণু দূষণের ফলে পুঁজ দেখা যায়। রোগীরা মনে করেন, চুলকিয়ে চুলকিয়ে চামড়া ছিঁড়ে ফেললে বুঝি আরাম পাওয়া যায়।

ভ্রান্ত ধারণা : অনেকে একে দুরারোগ্য ব্যাধি মনে করেন। আসলে চিকিৎসায় অ্যাকজিমা নিরাময় হয়। এটি কোনো ছোঁয়াচে রোগও নয়। তবে বংশে কারও হাঁপানি, বারবার হাঁচি, আমবাত ও আধ-কপালি বা মাইগ্রেনের ব্যথা থাকলে ভবিষ্যৎ প্রজন্মকে এ সমস্যার পাশাপাশি অ্যাকজিমায় ভুগতে দেখা যায়। অ্যাকজিমা ও অ্যাজমায় একই সঙ্গে ভুগছে এমন রোগী বিরল নয়।

অ্যাটোপি অ্যাকজিমা : ধুলোবালি, পোকা বা ফুলের রেণু থেকে অ্যালার্জিতে অনেকে ভোগেন। তারা হেফিভার বা হাঁপানির শিকার হন।

সেরোরিক ডার্মাটাইটিস : এদের মাথার ত্বক, মুখ, কানের পেছন দিক, বুকের মাঝে, কুঁচকিতে এ সমস্যা দেখা যায়।

অনেক কারণে অ্যাকজিমা হতে পারে। কারণ বুঝে চিকিৎসা করলে এ থেকে নিরাময় সম্ভব।

ডা. দিদারুল আহসান

ত্বক ও যৌনব্যাধি বিশেষজ্ঞ

আল-রাজী হাসপাতাল, ফার্মগেট, ঢাকা।

মোবাইল : ০১৭১৫৬১৬২০০

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter