ইউরোপের পাওয়ার ফুটবলের কাছে হার লাতিন ছন্দের

আর্জেন্টিনার হারে বাংলাদেশের সাবেক ফুটবলারদের অভিমত

  মোজাম্মেল হক চঞ্চল/ওমর ফারুক রুবেল ২৫ জুন ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

মেসি,

১৯৯০ বিশ্বকাপে কেঁদেছিলেন। ২০১৮ বিশ্বকাপে আবারও কাঁদলেন দিয়েগো ম্যারাডোনা। সেবার কেঁদেছিলেন জার্মানির কাছে হেরে শিরোপা হারানোর বেদনায়। এবার কাঁদলেন ক্রোয়েশিয়ার কাছে আর্জেন্টিনা হারার পর। মেসিদের ছন্নছাড়া খেলায় কেঁদেছে আর্জেন্টাইন সমর্থকরা। দুর্বল গোলকিপিং, রক্ষণভাগ এবং গতিহীন আক্রমণভাগের জন্য ক্রোয়েশিয়ার কাছে বিধ্বস্ত হয়েছে আর্জেন্টিনা। গ্রুপপর্বে আর্জেন্টিনার এই হার অপ্রত্যাশিত। এমনটি মনে করেন বাংলাদেশের সাবেক তারকা ফুটবলাররা। তাদের মতে, ইউরোপের পাওয়ার ফুটবলের কাছে শেষ হয়ে যাচ্ছে লাতিন আমেরিকান ফুটবলের ছন্দ।

গোলাম সারোয়ার টিপু, সাবেক তারকা ফুটবলার ও কোচ

ছন্দের খেলা ফুটবল। তা বিশ্বকে দেখিয়েছে লাতিন আমেরিকা। শিখিয়েছে। কিন্তু লাতিন আমেরিকার দেশ হলেও সেই ছন্দটা ক্রোয়েশিয়ার বিপক্ষে ছিল না আর্জেন্টিনার খেলায়। মাঠে তাদের সেই খেলা খুঁজে পাওয়া যায়নি। যাদের ওপর স্পটলাইট, তারাই ছিলেন অগোছাল। দ্যুতি ছড়াতে ব্যর্থ হয়েছেন। লক্ষ্য করেছি, জাতীয় সঙ্গীত যখন বাজছিল, তখন কপাল ঘষতে ব্যস্ত ছিলেন মেসি। মনে হচ্ছিল, মানসিক চাপে আছেন। দেখতে খারাপ লাগছিল। তখনই মনে হয়, তার ভেতরে কিছু একটা ঘটছে। প্রমাণ পাওয়া গেল ম্যাচে। গোলকিপার উইলি কাবাইয়েরো দলকে ডুবিয়েছেন। ডি মারিয়াকে বসিয়ে রাখা হয়। এবারের বিশ্বকাপে আর্জেন্টাইন কোচ হোর্হে সাম্পাওলিকে অস্থির মনে হয়েছে। ক্রোয়েশিয়ার মিডফিল্ড অসাধারণ খেলেছে বলেই আর্জেন্টিনার এই হাল।

হাসানুজ্জামান খান বাবলু, সাবেক তারকা ফুটবলার

শক্তি, গতি, শারীরিক এবং রানিংয়ে পরাভূত হয়েছে আর্জেন্টিনা। আরও দু’চারটি গোল হলে অবাক হতাম না। দলে অন্তঃকলহ রয়েছে বলে খবর। দেশের জন্য খেলেন ফুটবলাররা। দেশের জন্য যখন খেলতে নামব, তখন দেশাত্মবোধ কাজ করা উচিত। তবে গোলকিপারের ভুলে প্রথম গোল হজমের পর ভেঙে পড়েন মেসিরা। গত বিশ্বকাপে জার্মানি যা দেখিয়েছে, এবার তা করে দেখাচ্ছে ক্রোয়েশিয়া। তাদের শরীরী ভাষা ও গতির জন্যই গোল শোধের সুযোগ পায়নি আর্জেন্টিনা। ধারাবাহিকতা ধরে রাখলে অনেকদূর যাবে ক্রোটরা। এখানে একটা কথা না বললেই নয়, বিশ্বকাপের ইতিহাসে সবচেয়ে বাজে বাঁশি বাজাচ্ছেন রেফারিরা। ভিডিও অ্যাসিসটেন্ট রেফারির (ভিএআর) মতো উন্নত প্রযুক্তি চালু হলেও সৌন্দর্য হারাচ্ছে খেলা।

বাদল রায়, সাবেক তারকা ফুটবলার

আর্জেন্টিনা অতিমাত্রায় মেসিনির্ভর। একা মেসি কী করতে পারেন, এটা মাথায় রাখতে হবে আর্জেন্টিনার থিংকট্যাংকদের। যা হওয়ার তা হয়েছে। মেসি ভূমিকা না রাখতে পারায় হেরেছে আর্জেন্টিনা। পুরো দল ব্যর্থ। গোলকিপার উইলি কাবাইয়েরোর এক ভুলই আর্জেন্টিনাকে নিয়ে যায় খাদের কিনারায়।

সৈয়দ রুম্মান বিন ওয়ালী সাব্বির, সাবেক তারকা ফুটবলার

আর্জেন্টিনা তাদের ফুটবল ইতিহাসে ক্রোয়েশিয়ার বিপক্ষেই সবচেয়ে বাজে খেলেছে। সবার আগে ভুলটা কোচ হোর্হে সাম্পাওলির। দল নির্বাচনে তিনি অনভিজ্ঞতার পরিচয় দিয়েছেন। ডি মারিয়ার মতো ফুটবলারকে বসিয়ে রাখায় আক্রমণভাগ দুর্বল ছিল। আর্জেন্টিনা দলে মেসি ছাড়া ভালোমানের আর কোনো ফুটবলার নেই। গোলকিপার কাবাইয়েরোর একটি ভুলই দলটাকে শেষ করে দিয়েছে।

ছাইদ হাছান কানন, সাবেক তারকা গোলকিপার

গোলকিপারের একটি ভুলেই সব শেষ। বিশ্বকাপে এমন ভুল ক্ষমার অযোগ্য। গোলকিপার ভালো খেললে ডিফেন্স ভালো খেলে। কাবাইয়েরোর ওপর নির্ভর করে সাম্পাওলি ৩-৫-২ ফরমেশনে একাদশ সাজিয়েছিলেন। রক্ষণে তিনজন নিয়ে খেলা শুরু করে আর্জেন্টিনা। কিন্তু গোল হজমের পর দলটা ভেঙে পড়ে। ক্রোয়েশিয়া খেলেছে ৪-৪-২ ফরমেশনে। ডিফেন্সে তিনজনকে নিয়ে এমন ম্যাচ জেতা যায় না। জানি না, ডি মারিয়ার কী হয়েছিল। অনেকটাই নখদন্তহীন ছিল আর্জেন্টিনা।

আলফাজ আহমেদ, সাবেক তারকা স্ট্রাইকার

খেলা দেখে মনে হয়েছে আর্জেন্টিনার সবাই ক্লান্ত ছিলেন। দলের মধ্যে গোছানো ভাব ছিল না। ডিফেন্স, মধ্যমাঠ আর আক্রমণভাগ- আলাদা কিছু মনে হয়নি। সব একইরকম। গোছানো ফুটবল ছিল না মেসিদের খেলায়। ইউরোপের পাওয়ার ফুটবল ও প্রতিপক্ষের খেলোয়াড়দের উচ্চতার কাছে ধরাশায়ী হয়েছে লাতিন ফুটবল।

ঘটনাপ্রবাহ : বিশ্বকাপ ফুটবল ২০১৮

 

 

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter