আড়াইহাজারে তিন গ্রামের বাসিন্দাদের সংঘর্ষে আহত ২০

দেড় শতাধিক ঘর-দোকান ভাংচুর

প্রকাশ : ১২ জানুয়ারি ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

  আড়াইহাজার (না’গঞ্জ) প্রতিনিধি

তিন গ্রামের বাসিন্দাদের মধ্যে কয়েক দফা রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষে আড়াইহাজারে নারীসহ অন্তত ২০ জন আহত হয়েছেন। উপজেলার খাগকান্দা ইউনিয়নের চম্পকনগর গ্রামে শুক্রবার এ ঘটনা ঘটে। সংঘর্ষের সময় ভাংচুর ও লুটপাট করা হয় দেড় শতাধিক ঘরবাড়ি ও দোকান।

পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, কাকাইল মোড়া গ্রামের লোকজন দু’দিন আগে সিয়ামকে নামে ৯ম শ্রেণীর এক স্কুলছাত্রকে মারধর করা হয়। এ নিয়ে শুক্রবার সকাল ৯টায় চম্পকনগরের মঞ্জুরের বাড়িতে কাকাইল মোড়া ও বাহেরচর গ্রামের নেতৃস্থানীয়রা সালিশে বসে। এ সময় তর্ক-বিতর্কের একপর্যায়ে উভয় পক্ষের লোকজন দেশীয় অস্ত্র নিয়ে একে অপরের ওপর ঝাঁপিয়ে পড়ে। তিন গ্রামের বাসিন্দাদের মধ্যে সংঘর্ষ ও ধাওয়া-পাল্টাধাওয়া চলে বেলা ১১টা পর্যন্ত। সংঘর্ষে কাকাইল মোড়া ও বাহেরচরের পক্ষে নেতৃত্বে দেন লোকমান মেম্বার এবং চম্পকনগরের পক্ষে নেতৃত্ব দেন মোসলেম মেম্বার। সংঘর্ষে আহতদের আড়াইহাজারসহ বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হয়েছে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে মোসলেম মেম্বার বলেন, সংঘর্ষ চলাকালীন কাকাইল মোড়া ও বাহেরচর গ্রামের ৫-৬শ’ লোক লোকমান মেম্বার ও তোফাজ্জলের নেতৃত্বে চম্পকনগর গ্রামে এসে তাণ্ডব চালায়। এ সময় দেড় শতাধিক ঘরবাড়ি ভাংচুর করা হয়। চম্পকনগরের বাজার থেকে দোকানপাট লুট করে নিয়ে গেছে। মোসলেম মেম্বার আরও বলেন, হামলায় চম্পকনগর গ্রামবাসীর অর্ধকোটি টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। ক্ষতিগ্রস্তদের আহাজারিতে পরিবেশ ভারি হয়ে উঠেছে।

আড়াইহাজার থানার ওসি আক্তার হোসেন বলেন, পরিস্থিতি এখন শান্ত রয়েছে। ঘটনাস্থলে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। মূল হোতা লোকমান মেম্বারকে গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।