সাভারে লাশের সঙ্গে চিরকুট

‘আমি ধর্ষণ মামলার মূল আসামি’

  আশুলিয়া (ঢাকা) প্রতিনিধি ১৯ জানুয়ারি ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

সাভারের খাগান এলাকা থেকে শুক্রবার রাতে গণধর্ষণ মামলার প্রধান আসামি রিপনের গুলিবিদ্ধ লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। আশুলিয়ার ইয়াগী গার্মেন্টের শ্রমিক মাহফুজাকে গত ৫ জানুয়ারি রাতে একই গার্মেন্টের লাইন চিফ রিপনসহ কয়েকজন নরপশু দলবেঁধে ধর্ষণ করে। এর দু’দিন পর মাহফুজার রহস্যজনক মৃত্যু হয়। প্রথমে তার আত্মহত্যার খবর প্রচার করা হলেও সুরতহাল রিপোর্টে মাহফুজার আত্মহত্যার কোনো আলামত মেলেনি। বরং তার ঘাড় ভাঙা পাওয়া যায়। এ নিয়ে নানা কথাবার্তা চলছিল এলাকায়। রিপন ঝিনাইদহ জেলার কালীগঞ্জ এলাকার আবদুল লতিফের ছেলে। আশুলিয়া ইয়াগী বাংলাদেশ লি. পোশাক কারখানায় লাইন চিফ হিসেবে চাকরি করতেন। এ সময় রিপনের গলায় ঝুলিয়ে রাখা একটি চিরকুট পাওয়া যায়। তাতে লেখা রয়েছে ‘আমি ধর্ষণ মামলার মূল আসামি’। রিপনের গুলিবিদ্ধ লাশ উদ্ধারের বিষয়টি ধর্ষিতার বাবা আবু হানিফ নিশ্চিত করেছেন।

মাহফুজা পাবনা জেলার সাঁথিয়া থানার কালাইচাড়া এলাকার আবু হানিফের মেয়ে। সে আশুলিয়ার জামগড়া এলাকার ইয়াগী বাংলাদেশ লি. পোশাক কারখানার সুইং অপারেটর ছিলেন। ৫ জানুয়ারি রাতে কাজ শেষে বাসায় ফেরার পথে কারখানার সুপারভাইজার রহিম, লাইন চিফ রিপন ও স্বপন ও হৃদয়সহ স্থানীয় দু-তিনজন বখাটে রূপায়ণ মাঠে তাকে গণধর্ষণ করে। ধর্ষিতা মেয়েটি ওই দিন আশুলিয়া থানায় ধর্ষণের মামলা করেন। পরে এলাকার কিছু টাউট ধর্ষিতা মাহফুজা ও পুলিশকে দেয়ার কথা বলে সালিশ ডেকে ধর্ষকদের কাছ থেকে ২০ হাজার টাকা আদায় করে। এই পুরো টাকাটি মাহফুজার পরিবারকে না দিয়ে সালিশকারীরা ভাগ-বাটোয়ারা করে নিয়ে যায়।

সাভার মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবদুল আওয়াল জানান, নিহতের লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য ঢাকা মেডিকেল কলেজ অ্যান্ড হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে। কে বা কারা তাকে হত্যার পর ফেলে রেখে গেছে এ বিষয়ে তিনি কিছুই জানেন বলে জানান। আশুলিয়া থানার পুলিশ পরিদর্শক (ওসি তদন্ত) জাবেদ মাসুদ বলেন, গণধর্ষণের একদিন পর ওই নারী শ্রমিকের মৃত্যু হয়েছে। ওই ঘটনায় নিহত শ্রমিকের বাবার দায়ের করা মামলার মূল আসমি রিপন।

ওই মামলায় রহিম নামের একজনকে গত ৭ জানুয়ারি রাতে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। বাকিরা পলাতক রয়েছে।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×