চলচ্চিত্র উৎসবের পর্দা নামল

  সাংস্কৃতিক রিপোর্টার ১৯ জানুয়ারি ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

দেশ-বিদেশের চলচ্চিত্রের সঙ্গে দেশীয় চলচ্চিত্রের মেলবন্ধন ঘটিয়ে ও রাজধানীকে ৯ দিন চলচ্চিত্রমুখর রেখে ‘ঢাকা আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসব ২০১৯’ পর্দা নামল। রেইনবো চলচ্চিত্র সংসদের নিয়মিত আয়োজনের অংশ হিসেবে এবার ছিল উৎসবের সপ্তদশ আসর। ‘নান্দনিক চলচ্চিত্র, মননশীল দর্শক, আলোকিত সমাজ’ স্লোগানে এবারের উৎসবে বিশ্বের ৭২টি দেশের ২১৮ চলচ্চিত্র প্রদর্শিত হয়েছে। এর মধ্যে পূর্ণদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র ছিল ১২২টি ও স্বল্পদৈর্ঘ্য ৯৬টি। জাতীয় জাদুঘরের প্রধান মিলনায়তন ও কবি সুফিয়া কামাল মিলনায়তন, যমুনা ব্লকবাস্টার সিনেমাস, কেন্দ্রীয় গণগ্রন্থাগারের শওকত ওসমান স্মৃতি মিলনায়তন, শিল্পকলা একাডেমির জাতীয় চিত্রশালা মিলনায়তন ও আঁলিয়স ফ্রঁসেজ এই ছয়টি মিলনায়তনে প্রদর্শিত হয়েছে উৎসবের ছবিগুলো।

শুক্রবার বিকালে জাতীয় জাদুঘরের প্রধান মিলনায়তনে ৯ দিনের এই উৎসবের সমাপনী আসরে প্রধান অতিথি ছিলেন সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী কেএম খালিদ। উৎসবের প্রধান পৃষ্ঠপোষক ও পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলমের সভাপতিত্বে এতে বিশেষ অতিথি ছিলেন তথ্য সচিব আবদুল মালেক।

সমাপনী আসরে বিভিন্ন বিভাগে সেরা চলচ্চিত্র, নির্মাতা, সিনেমাটোগ্রাফার, অভিনেতা-অভিনেত্রীদের পুরস্কার দেয়া হয়। এর মধ্যে সেরা শিশু চলচ্চিত্র বাদল রহমান পুরস্কার পেয়েছে কাজাখস্তানের তালগাট তেমেনভের ‘লিটল প্রিন্স অব আওয়ার সিটি’। সেরা অডিয়্যান্স পুরস্কার পেয়েছে ভারতের শ্রীজিত মুখার্জির ছবি ‘এক যে ছিল রাজা’, বাংলাদেশ প্যানোরমা বিভাগে পুরস্কার পেয়েছে বাংলাদেশের রফিকুজ্জামান, ভারতের রেখা দেশপান্ডে ও ফ্রান্সের পিয়েরি সিমন গুটম্যান। জুরিদের কর্তৃক বেস্ট ক্রিটিক চলচ্চিত্রের পুরস্কার পেয়েছে বাংলাদেশের মাসুম আজিজের ছবি ‘সন্তান গল্প’ (এনশোন্ট ট্র্যাপ), উইমেন ফিল্মমেকার বিভাগে সেরা শর্টফিকশন চলচ্চিত্রের পুরস্কার পেয়েছে যুক্তরাজ্যের ফাতেমা আহমাদির ‘বিটার সি’। একই বিভাগে বিশেষ ক্যাটাগরির ডকুমেন্টারির পুরস্কার অর্জন করেছে ইউএসএ, বুলগেরিয়া ও ইতালির প্রামাণ্যচিত্র ‘বারকিনেবল বাউন্টি, একই বিভাগে সেরা প্রামাণ্যচিত্রের পুরস্কার পেয়েছে বাংলাদেশ, ভারত ও যুক্তরাজ্যের যৌথ প্রামাণ্যচিত্র লিসা গাজীর ‘রাইজিং সাইলেন্স’। এছাড়া একই বিভাগে সেরা ফিচার ফিল্মের পুরস্কার পেয়েছে ফিলিপাইনের ডিনাইজ ও হারার ছবি ‘মামাং। স্পিরিচুয়াল ফিল্ম সেকশনে সেরা স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্রের পুরস্কার পেয়েছে ইরানের শাহরিয়ার পৌরসেদিয়ানের ‘রিটার্ন, একই বিভাগে সেরা প্রামাণ্যচিত্রের পুরস্কার পেয়েছে বেলজিয়াম ও ইথিওপিয়ার ‘ওয়াকিং ফর গেনা, এই বিভাগে সেরা ফিচার ফিল্মের ভারত ও ইউক্রেনের ছবি ‘নামদেব ভাউ’। এশিয়ান চলচ্চিত্র বিভাগে ‘সিগনাল রক’ ছবির জন্য সেরা চিত্রনাট্যের পুরস্কার পেয়েছে ফিলিপাইনের রচি ভেরা, এই বিভাগে ‘শাইনাউরাও’ (ডিপ ওয়েল), ছবির জন্য সেরা সিনেমাটোগ্রাফির পুরস্কার পেয়েছে কাজাখস্তানের রিফকাত ইব্রাজিমভ। এই বিভাগে ‘সোফরা সিরলারি’ (সিরিয়াল কুক), ছবিতে অনবদ্য অভিনয়ের জন্য সেরা অভিনেত্রীর পুরস্কার পেয়েছে তুর্কির ডিমেট ইভগার, এই বিভাগে ‘ব্রাদার্স অব সাইলেন্স’ ছবিতে অভিনয়ের জন্য সেরা অভিনেতার পুরস্কার পেয়েছে তুর্কির ইগিট ইগি ইয়াজার, একই বিভাগে ‘ড্রেসেজ’ ছবির জন্য সেরা নির্মাতার পুরস্কার পেয়েছে ইরানের পুয়া বাদকুবেহ ও এশিয়ার সেরা চলচ্চিত্রের পুরস্কার পেয়েছে আইরবেক দাইরবেকভ নির্মিত কিরগিস্তানের ছবি ‘দারাক ইরি (দ্য সং অব দ্য ট্রি)। পুরস্কার হিসেবে দেয়া হয় সার্টিফিকেট ও ক্রেস্ট। ৯ দিনব্যাপী জমকালো এই উৎসবে অংশ নিয়েছেন দেশ-বিদেশের ১৩০ জনেরও বেশি চলচ্চিত্র নির্মাতা ও সংশ্লিষ্টরা। চলচ্চিত্র প্রদর্শনীর পাশাপাশি এ আয়োজনে অনুষ্ঠিত হয় ‘পঞ্চম নারী নির্মাতা সম্মেলন’ আর চলচ্চিত্র নির্মাণবিষয়ক সেমিনার ‘ওয়েস্ট মিটস ওয়েস্ট’। এছাড়া, আলোচিত ছবিগুলো প্রদর্শনের আগে পরিচালককে নিয়ে অনুষ্ঠিত হয়েছে প্রেজেন্টেশন পর্ব। গত ১০ জানুয়ারি জাদুঘরের প্রধান মিলনায়তনে ৯ দিনের এই উৎসবের উদ্বোধন করেন সাবেক অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত।

শিল্পকলায় ‘পুত্র’ : সেলিম-আল দীনের গল্প অবলম্বনে ঢাকা থিয়েটার মঞ্চায়ন করেছে হৃদয় ছোঁয়া গল্পের নাটক ‘পুত্র’। সন্ধ্যায় শিল্পকলা একাডেমির জাতীয় নাট্যশালার পরীক্ষণ থিয়েটার হলে মঞ্চায়ন হয় নাটকটি। দলের ৪৭তম প্রযোজনার এই নাটকটির নির্দেশনায় ছিলেন শিমুল ইউসুফ।

পুত্র হারানো এক দম্পতির অবিশ্রান্ত বিলাপ নিয়ে রচিত হয়েছে ‘পুত্র’ নাটকটি। মাইট্যাল সিরাজ ও তার স্ত্রী যমুনা পাড়ের মেয়ে আবছা। তাদের পুত্র মানিক আমগাছে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছিল। ধর্মীয় নিয়মানুযায়ী আত্মহত্যার লাশ মাটিতে পুঁতে ফেলতে হয় এবং সেই আমগাছটিও কেটে ফেলতে হয়। এ ঘটনার দুই বছর পর এক প্রবল শীতের রাতে কিছুটা উষ্ণতা পেতে এ দম্পতি আমগাছটির শেকড় তুলে এনে আগুন জ্বালায়। একদিকে পুড়ে নিঃশেষ হয়ে আসতে থাকে আমগাছটির শেকড়, অন্যদিকে বাবা-মায়ের অন্তরে পুত্র হারানোর যন্ত্রণা যেন দ্বিগুণ তীব্রতায় জ্বলতে থাকে। মৃত পুত্রের জন্য উদ্বেগ, আশঙ্কা, ভীতি এবং কখনও কখনও ক্ষোভের মধ্য দিয়ে তারা জীবিত পুত্রের অপূর্ণ সব ইচ্ছা-আকাক্সক্ষার স্মরণ করতে করতে একসময় গাছের শেকড়কেও পুত্র ভাবতে শুরু করে। এভাবেই এগিয়ে যায় নাটকটির কাহিনী।

বিভিন্ন চরিত্রে অভিনয় করেছেন এশা ইউসুফ, মিলু চৌধুরী, আসাদুজ্জামান আমান, সামিউন জাহান দোলা, সাজ্জাদ আহমেদ রাজীব, রফিকুল ইসলাম, সউদ চৌধুরী, শাহজাদা সম্রাট চৌধুরী, তারেক আহমেদ প্রমুখ।

পদাতিকের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী : আনন্দ শোভাযাত্রা, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ও নাটক মঞ্চায়নের মধ্য দিয়ে প্রতিষ্ঠার ৪১তম বর্ষ উদযাপন করেছেন নাটকের দল পদাতিক নাট্য সংসদ।

বিকালে বেইলি রোডের মহিলা সমিতি মিলনায়তন থেকে আনন্দ শোভাযাত্রা বের করার মধ্য দিয়ে অনুষ্ঠানের সূচনা ঘটে। এরপর সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে অংশ নেন বিভিন্ন দলের শিল্পীরা। দলের নিজস্ব প্রযোজনার নাটক ‘গুনজান বিবির পালা’র মঞ্চায়নের মধ্য দিয়ে আয়োজনের সমাপ্তি ঘটে।

সায়িক সিদ্দিকী রচিত ও নির্দেশিত নাটকটির বিভিন্ন চরিত্রে অভিনয় করেছেন মমিনুল হক দীপু, মশিউর রহমান, সাঈদা শামছি আরা, জয় মণ্ডল, সালমান শুভ, ইকরাম, শরীফুল ইসলাম, মো. ইমরান, জিতু, আবু সাইদ, পৃথা, জীবন, শোভন, প্রান্ত, কনিকা প্রমুখ।

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×