অর্থমন্ত্রীর সঙ্গে কোইকার প্রেসিডেন্টের বৈঠক

যানজট নিরসনসহ বিনিয়োগ বাড়াতে কাজ করবে কোইকা

  যুগান্তর রিপোর্ট ২২ জানুয়ারি ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

ঢাকার যানজট ব্যবস্থাপনা উন্নয়ন এবং বাংলাদেশে বিনিয়োগ বাড়াতে কাজ করবে কোরিয়া ইন্টারন্যাশনাল কো-অপারেশন এজেন্সি (কোইকা)। সংস্থাটির প্রেসিডেন্ট লি মিকিয়াং এ কথা জানিয়েছেন। তিনি বলেছেন, বাংলাদেশে বিনিয়োগের পরিবেশ ভালো। আমি দেশে ফিরে বাংলাদেশকে তুলে ধরব, যাতে বিনিয়োগকারীরা এ দেশে বিনিয়োগ করেন। অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামালের সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ শেষে সাংবাদিকদের তিনি এসব কথা বলেন। চার দিনের সফরে প্রথমবারের মতো বাংলাদেশ এসেছেন তিনি। সার্বিক উন্নয়ন সহায়তা নিয়ে আলোচনা এবং রোহিঙ্গাদের সহায়তার জন্য ২০ জানুয়ারি সফরে এসেছেন তিনি।

সফরের অংশ হিসেবে সোমবার রাজধানীর শেরেবাংলা নগরে অর্থমন্ত্রীর সম্মেলন কক্ষে অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামালের সঙ্গে এক সৌজন্য সাক্ষাৎ করেন কোইকার প্রেসিডেন্ট। এ সময় নয় সদস্যের প্রতিনিধি দলের নেতৃত্ব দেন তিনি।

সাক্ষাৎ শেষে কোইকার প্রেসিডেন্ট সাংবাদিকদের বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দিয়ে মানবতার দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন। পাকিস্তানের সঙ্গে যুদ্ধের সময় যেভাবে বাঙালিরা ভারতে আশ্রয় নিয়েছে। সেই অবস্থা বিবেচনায় রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দিয়েছে বাংলাদেশ। এজন্য সাময়িক সমস্যা হলেও আশা করছি এই সমস্যার সমাধান হবে। কোইকা সহায়তা অব্যাহত রাখবে।

অর্থমন্ত্রী বলেন, কোরিয়া ক্যাপাসিটি বিল্ডিং, স্বাস্থ্য, পরিবেশ, আইসিটি, মানবসম্পদ উন্নয়ন ইত্যাদি খাতে সহায়তা দিয়ে আসছে। আমরা এ দেশে বিনিয়োগের আহ্বান জানিয়েছি। এ সময় তিনি কোইকার প্রতিনিধি দলকে জানান, এ দেশে বিনিয়োগ করে লস করতে হলে পরিকল্পনার প্রয়োজন হবে। আর লাভ করতে চাইলে এমনিতেই হবে। তিনি জানান, ঢাকার ট্রাফিক জ্যাম দেখে বিরক্ত হয়েছেন কোইকার প্রেসিডেন্ট। তিনি বলেছেন, এক সময় তাদের দেশেও এই অবস্থা ছিল। এটা সমাধানযোগ্য সমস্যা। তাই তিনি দেশে ফিরে কোরিয়ার যারা এই সমস্যা নিয়ে কাজ করেন তাদের সঙ্গে আলাপ-আলোচনা করে বাংলাদেশ সরকারকে সহায়তা দেবেন। তিনি জানান, কোইকা ১৯৯৩ সাল থেকে বাংলাদেশের ২৪টি প্রকল্পে ৫৭ মিলিয়ন মার্কিন ডলার ঋণ দিয়েছে। এখন চলমান টি প্রকল্পে ৫৫ মিলিয়ন ডলার সহায়তা দিয়েছে। এখন পর্যন্ত মোট ১১২ মিলিয়ন ডলার সহায়তা দিয়েছে।

সভা সূত্রে জানা গেছে, সৌজন্য সাক্ষাতের সময় অর্থমন্ত্রী কোইকার প্রতিনিধি দলকে জানান, ঢাকায় আন্ডারগ্রাউন্ড সাবওয়ে তৈরি হচ্ছে। এটি হলে যানজট কমবে। তাছাড়া ঢাকা শহরকে সম্প্রসারণ করা হচ্ছে। ঢাকা-চট্টগ্রামের যাতায়াতের সময় কমাতে দ্রুতগতির ট্রেন চালু করা হবে। যাতে ১ ঘণ্টা ৫ মিনিটে যাতায়াত করা যায়। এছাড়া গ্রামগুলোকে শহরে রূপান্তরিত করা হচ্ছে, যাতে গ্রামের মানুষকে আর শহরে আসতে না হয়। কক্সবাজার সমুদ্রসৈকত উন্নয়নের কথা জানিয়ে অর্থমন্ত্রী বলেন, সমুদ্রসৈকতকে দুই ভাগে ভাগ করা হবে। একদিকে আন্তর্জাতিক পর্যটকদের জন্য আর অন্যদিকে দেশীয় পর্যটকদের জন্য উন্মুক্ত থাকবে। সূত্র জানায়, আজ কক্সবাজারের রোহিঙ্গা ক্যাম্প পরিদর্শনে যাবেন কোইকার প্রেসিডেন্ট।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×