৫৮ নম্বর ওয়ার্ড

কালো ধোঁয়ামুক্ত করতে চান কাউন্সিলর প্রার্থীরা

  খোরশেদ আলম শিকদার ১১ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

নির্বাচন

ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের (ডিএসসিসি) নব সম্পৃক্ত ৫৮ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থীরা বিষাক্ত কালো ধোঁয়ামুক্ত করতে চান। ওয়ার্ডে পরিচ্ছন্ন পরিবেশ, জলাবদ্ধতা নিরসন, খেলার মাঠ নির্মাণ, কমিউনিটি সেন্টার স্থাপন, এলইডি লাইট স্থাপন, সিসি ক্যামেরা স্থাপন, কবরস্থান, মসজিদ, মাদ্রাসার উন্নয়নের প্রতিশ্রুতি দিচ্ছেন তারা।

এছাড়া দরিদ্রদের পুনর্বাসন, সরকারি হাসপাতাল স্থাপনসহ বাসিন্দাদের সব সমস্যা দূর করে বাসযোগ্য একটি আদর্শ ওয়ার্ড উপহার দেয়ার প্রতিশ্রতি দিয়ে ভোটার ও সমর্থকদের মন জোগাতে ব্যস্ত প্রার্থীরা।

কাউন্সিলর প্রার্থীদের গণসংযোগে পাড়া মহল্লা এখন সরগরম। নির্বাচন কমিশন (ইসি) ২৮ ফেব্রুয়ারি নির্বাচনের তারিখ ঘোষণার পর মাঠে নেমে পড়েছেন প্রার্থীরা।

ওয়ার্ডে সাধারণ আসনের কাউন্সিলর পদে ৬ জন প্রার্থী রয়েছেন। তারা সবাই স্থানীয় আওয়ামী লীগের বিভিন্ন কমিটিতে রয়েছেন।

প্রার্থীরা হলেন : কদমতলী থানা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি ও শ্যামপুর ইউপির চেয়ারম্যান সফিকুর রহমান সাইজুল (ঠেলাগাড়ি), কদমতলী থানা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি মো. তাজুল ইসলাম (ঘুড়ি), শ্যামপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সহসভাপতি মো. ফজলুর রহমান (ব্যাডমিন্টন), কদমতলী থানা আওয়ামী লীগের তথ্য ও গবেষণাবিষয়ক সম্পাদক হাজী মো. রাসেল ইকবাল (লাটিম), শ্যামপুর ইউনিয়ন ৪নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি মো. খায়রুল বাশার (রেডিও), একমাত্র নারী কাউন্সিলর প্রার্থী কদমতলী থানা মহিলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মোসা. সাহিদা বেগম (কাঁটা চামচ)।

৫৮ নম্বর ওয়ার্ড সাবেক শ্যামপুর ইউপির ১, ৩, ৪, ৫ ও ৬ নম্বর ওয়ার্ড নিয়ে গঠন করা হয়েছে। পুনর্বিন্যাসকৃত ভোটার এলাকা অনুযায়ী নতুন কদমতলী, কদমতলী, কদমতলী শিল্প এলাকা-১, নতুন শ্যামপুর, আফসার করিম রোড, নতুন ওয়াসা রোড, বাগানবাড়ী বাগিচা, বৌবাজার, গ্যাসপাইপ, নামা শ্যামপুর-১, নামা শ্যামপুর-২, রাজাবাড়ী, আলীবহর, নতুন আলীবহর (বিক্রমপুর হাউস) এ ওয়ার্ডে পড়েছে।

ডিএসসিসি ৫৮ নম্বর ওয়ার্ডে ভোটার সংখ্যা-৪১ হাজার ২৫২ জন। এর মধ্যে পুরুষ ভোটার ২২ হাজার ৪৩৭, নারী ভোটার-১৮ হাজার ৮১৫ জন। ভোট কেন্দ্র ২১টি, বুথ সংখ্যা ১০৩টি।

ওয়ার্ডের শ্যামপুর লাল মসজিদ রোড ও শ্যামপুর সরকারি মডেল স্কুল অ্যান্ড কলেজ রোডে রয়েছে কলকারখানার বিষাক্ত বর্জ্য। এ দুই সড়ক পয়ঃনিষ্কাশনের কালো দুর্গন্ধযুক্ত হাঁটুসম পানিতে ডুবে আছে। ওয়ার্ডে রয়েছে কলকারখানার বিষাক্ত কালো ধোঁয়া, ধুলাবালি, নোংরা পরিবেশ ও যত্রতত্র ময়লার ভাগাড়।

এছাড়া সরকারি খাস সম্পত্তি অবৈধ দখল, সরু ও অপ্রতুল রাস্তা, গ্যাস সংকট, ওয়াসার দুর্গন্ধময় পানি, মশার উপদ্রব। শ্যামপুর সরকারি মডেল স্কুল অ্যান্ড কলেজের মাঠ থাকা সত্ত্বেও ভরাটের অভাবে জলাবদ্ধতায় পরে আছে ৩ বছর ধরে। ওয়ার্ডে নেই কমিউনিটি সেন্টার ও সরকারি হাসপাতাল। মাদকের করাল গ্রাসসহ সীমাহীন সমস্যায় জর্জরিত বাসিন্দারা। বাসিন্দারা চায় শিক্ষিত, সৎ ও সাহসী একজন কাউন্সিলর নির্বাচিত করতে। কদমতলী থানা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি ও শ্যামপুর ইউপির চেয়ারম্যান সফিকুর রহমান (সাইজুল) যুগান্তরকে বলেন, নির্বাচিত হলে মেয়রের সহযোগিতায় ও জনগণকে সঙ্গে নিয়ে মাদক এবং কালো ধোঁয়ামুক্ত একটি আদর্শ ওয়ার্ড উপহার দেব।

কদমতলী থানা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি মো. তাজুল ইসলাম যুগান্তরকে বলেন, আমি আশাবাদী ওয়ার্ডের বাসিন্দারা আমাকে কাউন্সিলর নির্বাচিত করবেন। আমি নির্বাচিত হলে বাসিন্দাদের দুঃখ লাঘবে কাজ করে যাব।

শ্যামপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সহসভাপতি মো. ফজলুর রহমান যুগান্তরকে বলেন, নির্বাচিত হলে জলাবদ্ধতা নিরসনে প্রয়োজীয় ব্যবস্থা গ্রহন করব। খেলাধুলার জন্য খেলার মাঠের ব্যবস্থা করব। কদমতলী থানা আওয়ামী লীগের তথ্য ও গবেষণাবিষয়ক সম্পাদক হাজী মো. রাসেল ইকবাল যুগান্তরকে বলেন, কাউন্সিলর নির্বাচিত হলে যুবকদের কল্যাণে কাজ করব। একটি মাদক ও কালো ধোঁয়ামুক্ত ওয়ার্ড উপহার দেব।

শ্যামপুর ইউনিয়ন ৪নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি মো. খায়রুল বাশার যুগান্তরকে বলেন, ওয়ার্ডে কলকারখানার বিষাক্ত কালো ধোঁয়ায় বাসিন্দারা অতিষ্ঠ হয়ে পড়েছে। রয়েছে নানা নাগরিক সমস্যা। আমি কাউন্সিলর নির্বাচিত হলে বাসিন্দাদের কল্যাণে কাজ করে যাব। কদমতলী থানা মহিলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মোসা. সাহিদা বেগম যুগান্তরকে বলেন, আমি কাউন্সিলর নির্বাচিত হলে মেয়েদের নির্বিঘেœ চলাচলের ব্যবস্থা করব। তাছাড়া জলাবদ্ধতা নিরসন, কমিউনিটি সেন্টার স্থাপনসহ বাসিন্দাদের কল্যাণে কাজ করব।

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×