আলোর মিছিলে ‘কালরাত’ স্মরণ বিশিষ্টজনদের

  যুগান্তর রিপোর্ট ২৬ মার্চ ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

মশাল জ্বালিয়ে ১৯৭১ সালের ২৫ মার্চের ভয়াল ‘কালরাত’কে স্মরণ করল দেশের বিভিন্ন সামাজিক-সাংস্কৃতিক সংগঠন ও বিশিষ্টজনেরা। মশাল মিছিল থেকে ২৫ মার্চকে আন্তর্জাতিক গণহত্যা দিবস হিসেবে স্বীকৃতি এবং গণহত্যাযজ্ঞে জড়িত পাকিস্তানি সেনাদের আন্তর্জাতিক আদালতে বিচারেরও দাবি ওঠে। সোমবার রাত ৯টায় স্বাধীনতার ৪৮তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে শহীদ মিনারে ৪৮টি মশাল প্রজ্বলন করা হয়। পরে মশাল নিয়ে আলোর মিছিলে নেতৃত্ব দেন মুক্তিযোদ্ধাসহ রাজনৈতিক-সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠনের শীর্ষ নেতারা। কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে এই আলোর মিছিলের আয়োজন করে একাত্তরের ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটি। অনুষ্ঠানস্থলে জাতীয় গণহত্যা দিবসের ঘোষণাপত্র পাঠ করেন সংগঠনের সহসভাপতি অধ্যাপক মুনতাসীর মামুন। সভাপতিত্ব করেন মুক্তিযুদ্ধে শহীদ ডা. আলীম চৌধুরীর সহধর্মিণী শ্যামলী নাসরিন চৌধুরী। আলোচনা সভা শেষে বিশিষ্ট মুক্তিযোদ্ধা ও শহীদ পরিবারের সদস্যরা মশাল জ্বালিয়ে আলোর মিছিলের সূচনা করেন। এটি কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার থেকে জগন্নাথ হলের বধ্যভূমিতে শ্রদ্ধা নিবেদনের মধ্য দিয়ে শেষ হয়। সংগঠনের সহসভাপতি শহীদজায়া শ্যামলী নাসরিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি, ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি রাশেদ খান মেনন, জাসদ সভাপতি হাসানুল হক ইনু, কমিউনিস্ট পার্টির সভাপতি মুজাহিদুল ইসলাম সেলিম, শিল্পী হাশেম খান, আপিল বিভাগের অবসরপ্রাপ্ত বিচারপতি এএইচএম শামসুদ্দিন চৌধুরী, সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের সভাপতি গোলাম কুদ্দুস, হিন্দু-বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের নেতা কাজল দেবনাথ, শহীদ সন্তান ডা. নুজহাত চৌধরী, মুস্তফা চৌধুরী প্রমুখ। অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন প্রজন্ম ’৭১-এর সহসভাপতি শহীদ সন্তান আসিফ মুনীর তন্ময়।

শহীদদের স্মরণ করে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্যে শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি বলেন, বিভিন্ন মাধ্যমে গণহত্যার আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি আদায়ের জন্য চেষ্টা চলছে। সরকারও স্বীকৃতি আদায়ে সবরকম কূটনৈতিক তৎপরতা চালাচ্ছে। আশা করছি আমরা গণহত্যার আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি আদায়ে সক্ষম হব। বিশ্বের আর কোথাও যাতে গণহত্যা না ঘটে, সে ব্যাপারেও সবাইকে সোচ্চার থাকার আহ্বান জানিয়েছেন তিনি। তিনি আরও বলেন, বিএনপি গণহত্যাকারীদের মদদদাতা। আর কখনও গণহত্যাকারী বিএনপি-জামায়াত জোট যাতে রাষ্ট্রীয় হ্মমতায় আসতে না পারে, সেই শপথ আমাদের নিতে হবে। তারা ক্ষমতায় না থাকলেও যড়যন্ত্র করছে। তাদের সর্বাত্মকভাবে প্রতিহত করতে হবে। রাশেদ খান মেনন বলেন, গণহত্যার আন্তর্জাতিক স্বীকৃতির জন্য আমাদের দাবি অব্যাহত রাখতে হবে। এই দাবি আদায় হলে পাকিস্তানি সেনাদের বিচারের দাবি জোরদার হবে। হাসানুল হক ইনু বলেন, বিএনপি কখনও গণহত্যা দিবস পালন করেনি। যুদ্ধাপরাধীদের দোসর হিসেবে তাদেরকে নির্বাসনে পাঠানো উচিত। ষড়যন্ত্রকারীদের সকল প্রচেষ্টা ব্যর্থ করে দেশকে এগিয়ে নিতেও আহ্বান জানান তিনি।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×