ইতিহাসও প্রতিকূলে

  ইশতিয়াক সজীব ১০ ফেব্রুয়ারি ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

গণক হওয়ার প্রয়োজন নেই। ক্রিকেট জ্ঞানের পরিধি টনটনে না হলেও চলবে। সাদা চোখেই পড়ে ফেলা যাচ্ছে ঢাকা টেস্টের ভাগ্যে কী লেখা আছে। ত্রিদেশীয় ওয়ানডে সিরিজের পর টেস্ট সিরিজের ট্রফিটাও ঝুলিতে ভরার অপেক্ষায় হাথুরুসিংহের শ্রীলংকা। হয়তো আজ তৃতীয়দিনেই হয়ে যেতে পারে খেল খতম! দ্বিতীয়দিন শেষে যেখানে দাঁড়িয়ে ঢাকা টেস্ট, সেখানে থেকে হার এড়াতে অলৌকিক কিছু করে দেখাতে হবে বাংলাদেশকে। প্রথম ইনিংসে দারুণ বোলিংয়ে শ্রীলংকাকে ২২২ রানে অলআউট করার পর ব্যাটিংয়ে নেমে যে ‘হরর শো’ দেখিয়েছে বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানরা, তাতে ম্যাচের চতুর্থ ইনিংসে চোয়ালবদ্ধ লড়াইয়ের আশা করাটাও হবে দুঃসাহস। একসময় যে ধরনের ব্যাটিং দৈন্য ছিল দলের নিয়মিত চিত্র, বহুদিন পর সেই ভূত তাড়া করল বাংলাদেশকে। ৫৬ রানে চার উইকেট পড়ে যাওয়ায় শঙ্কার মেঘ জমেছিল আগেরদিনই। স্বাগতিকদের আরও ছন্নছাড়া ব্যাটিংয়ে কাল সেই মেঘ ঝরল বৃষ্টি হয়ে। দায়িত্বজ্ঞানহীন ব্যাটিংয়ের চূড়ান্ত প্রদর্শনীতে ২০ বলের মধ্যে মাত্র তিন রানে শেষ পাঁচ উইকেট হারিয়ে ১১০ রানে অলআউট বাংলাদেশ। মিরপুরে এটি বাংলাদেশের তো বটেই, সব দল মিলিয়েই সর্বনিম্ন টেস্ট স্কোর। ১১২ রানে এগিয়ে থেকে দ্বিতীয় ইনিংস শুরু করা শ্রীলংকা দ্বিতীয়দিন শেষ করেছে আট উইকেটে ২০০ রান তুলে। দুই উইকেট হাতে রেখেই ৩১২ রানের লিড পেয়ে গেছে লংকানরা।

মিরপুরে যে স্পিনিং উইকেটে এই টেস্ট ম্যাচ হচ্ছে সেটা ব্যাটসম্যানদের জন্য একরকম বধ্যভূমিই। সেখানে শেষ ইনিংসে ব্যাট করতে হবে বাংলাদেশকে। শ্রীলংকা এরই মধ্যে যে লিড পেয়েছে তাতেই বাংলাদেশের সামনে এভারেস্ট জয়ের চ্যালেঞ্জ। টেস্টে সব মিলিয়ে সর্বোচ্চ ২১৫ রানের লক্ষ্য তাড়া করে জিতেছে বাংলাদেশ। সেটি ২০০৯ সালে ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরে। মিরপুরে চতুর্থ ইনিংসে বাংলাদেশের সর্বোচ্চ রান তাড়া করে জেতার রেকর্ড মাত্র ১০১ রানের! চার বছর আগে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ওই রান তাড়া করে জিততেই সাত উইকেট হারিয়েছিল বাংলাদেশ। এই মাঠে সব মিলিয়ে চতুর্থ ইনিংসে সর্বোচ্চ ৪১৩ রানের কীর্তি স্বাগতিকদেরই। কিন্তু সেটাও হার এড়ানোর জন্য যথেষ্ট ছিল না। ২০০৮ সালে এই শ্রীলংকার বিপক্ষেই ৫২১ রান তাড়া করতে নেমে শেষ পর্যন্ত ১০৭ রানে হেরেছিল বাংলাদেশ। এবার উইকেটের যে অবস্থা, তাতে আরও ভয়ঙ্কর কিছু হয়তো অপেক্ষা করছে। ব্যাটসম্যানদের আত্মহননের মিছিলে প্রথম ইনিংসে পেতে হয়েছে নিজেদের হোম অব ক্রিকেটে সর্বনিম্ন ইনিংসের তেতো স্বাদ। দেশের মাটিতে প্রায় ১০ বছর পর ১২০ রানের নিচে অলআউট হল বাংলাদেশ। মিরপুরে এর আগে স্বাগতিকদের সর্বনিম্ন টেস্ট ইনিংস ছিল ১১৮ রানের। ২০০৭ সালে ভারতের বিপক্ষে। চতুর্থ ইনিংসে লংকানদের বিপক্ষে অতীতের দুঃস্মৃতির সঙ্গেও লড়তে হবে মাহমুদউল্লাহদের। এখন পর্যন্ত টেস্টে বাংলাদেশের সর্বনিম্ন পাঁচটি স্কোরের চারটিই শ্রীলংকার বিপক্ষে! আশার জায়গা অবশ্য একটা আছে। ক্রিকেট যে গৌরবময় অনিশ্চয়তার খেলা!

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

 

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter