কর্মকর্তাদের সতর্ক করে মিশন প্রধানদের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর চিঠি

  যুগান্তর রিপোর্ট ২৪ মে ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

বিশ্বের বিভিন্ন দেশে থাকা বাংলাদেশ মিশনের দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তাদের সতর্ক করে চিঠি পাঠিয়েছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. একে আবদুল মোমেন। ২০ মে এ চিঠি দেয়া হয়। বাংলাদেশ মিশনের কার্যক্রম ও সেবা প্রত্যাশীদের সঙ্গে কর্মকর্তা-কর্মচারীদের আচরণে বিব্রত পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। বিষয়টি নিয়ে সংসদীয় কমিটির সভায়ও বিস্তর আলোচনা হয়েছে। পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বিষয়ক সংসদীয় কমিটি প্রবাসী বাংলাদেশি এবং নন রেসিডেন্ট বাংলাদেশিসহ বিভিন্ন পর্যায়ের অভিযোগের বিষয়ে উদ্বিগ্ন। এ অবস্থার পরিপ্রেক্ষিতেই মিশন প্রধানদের সতর্ক করে চিঠি দেয়া হয়।

২০ মে মিশন প্রধানদের লেখা জরুরি চিঠিতে মন্ত্রী আশা প্রকাশ করেন, আসন্ন দূত সম্মেলনের আগে মিশনগুলো তাদের নিজ নিজ অভিযোগ নিষ্পত্তির উদ্যোগ নেবে এবং সম্মেলনে এ ব্যাপারে ইতিবাচক প্রতিবেদন দেবে। চিঠিতে মন্ত্রী লেখেন, ১৫ মে’র সর্বশেষ পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভায় অন্য বিষয়ের মধ্যে বিভিন্ন দেশে অবস্থিত দূতাবাসগুলোতে প্রদত্ত সেবা সংক্রান্ত বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনা হয়। আলোচনায় কমিটির সভাপতিসহ অন্য সেবা প্রত্যাশীদের সঙ্গে মিশন কর্মকর্তা-কর্মচারীদের আচরণের ব্যাপারে অসন্তুষ্টি প্রকাশ করেন।

মিশন প্রধানদের উদ্দেশে মন্ত্রী বলেন, আপনি একমত হবেন যে, মিশনগুলো পরিচালনার দায়িত্বপ্রাপ্ত মন্ত্রণালয় হিসেবে এ ধরনের অভিযোগ পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জন্য অত্যন্ত বিব্রতকর। শুধু সংসদীয় কমিটি নয়, বিভিন্ন সূত্র থেকে প্রায়শই এ ধরনের অভিযোগ পাওয়া যাচ্ছে। সব অভিযোগের যে ভিত্তি আছে তা নয়, তবে এ প্রসঙ্গে আমি মনে করি, কনস্যুলার সেবা দ্রুততম সময়ে আন্তরিকতা ও নিষ্ঠার সঙ্গে প্রদান করলে এ ধরনের অভিযোগের সংখ্যা অনেক কম হতো। মন্ত্রী বলেন, আপনারা নিশ্চয়ই আপনাদের দীর্ঘ চাকরি জীবনের অভিজ্ঞতার আলোকে এটি উপলব্ধি করেন যে, আমাদের মিশনগুলো আন্তরিকতাপূর্ণ ব্যবহারের যথেষ্ট ঘাটতি রয়েছে। মিশনের কিছু কিছু কর্মকর্তা-কর্মচারী ভদ্র ও মার্জিত ভাষায় সেবাগ্রহীতাদের সঙ্গে কথোপকথনে অনাগ্রহী অথবা অক্ষম। এছাড়াও আপনারা আমার সঙ্গে আরও একমত হবেন বলে মনে করি যে, হাসিমুখে এবং আন্তরিকতা ও দক্ষতার সঙ্গে সেবাপ্রত্যাশীদের সেবা প্রদান করলে মিশনগুলো সম্পর্কে প্রবাসী বাংলাদেশিদের বিদ্যমান ধারণায় সম্যক পরিবর্তন আনা খুব সহজেই সম্ভব হবে। মন্ত্রী তাদের সতর্ক করে বলেন, মনে রাখতে হবে যে, নাগরিকদের প্রবাসে সেবা দানে আমরা প্রতিজ্ঞাবদ্ধ ও আমাদের অন্যতম দায়িত্ব। পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সেবা প্রত্যাশীদের সঙ্গে দূতাবাসের দায়িত্বশীল আচরণ নিশ্চিত করতে অঙ্গীকারাবদ্ধ উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, এ ধারাবাহিকতায় সেবা সহজীকরণের নিমিত্তে সম্প্রতি বিদেশে বাংলাদেশি মিশনগুলোতে ২৪ ঘণ্টা ‘হটলাইন’ চালু করার নির্দেশনা প্রদান করা হয়েছে। শ্রমঘন মিশনগুলোর কনস্যুলার তথ্য প্রদানের জন্য বাংলায় পারদর্শী কোনো ব্যক্তিকে নিয়োজিত করে তাকে প্রতিটি টেলিফোন কলের জবাব দানের সার্বক্ষণিক দায়িত্ব প্রদান করতে হবে।

এটি বাস্তবায়নের সঙ্গে সঙ্গে প্রতিটি মিশনে অভিযোগ বাক্স স্থাপনের উদ্যোগ নিতে হবে। সেবার মানোন্নয়নে রাষ্ট্রদূতরা ব্যক্তিগতভাবে উদ্যোগ গ্রহণ করবেন এমন আশা করে মন্ত্রী বলেন- কনস্যুলার সেবা কক্ষের আমূল পরিবর্তন যেমন- শীতাতপ নিয়ন্ত্রণ ও সবার বসার জন্য উপযুক্ত ব্যবস্থা করা, প্রতিটি অপেক্ষা কক্ষে মন্ত্রণালয় কর্তৃক সরবরাহকৃত আইপি বক্স স্থাপনের মাধ্যমে দেশি টিভি চ্যানেল দেখার ব্যবস্থা করা, ভেন্ডিং মেশিন ও কিউ ম্যানেজমেন্ট মেশিন স্থাপন, ফটোকপি, ওয়াইফাই সুবিধা প্রদান এবং ক্রেডিট-ডেবিট কার্ডের মাধ্যমে ফি গ্রহণের ব্যবস্থা গ্রহণ করলে সেবাগ্রহীতারা উপকৃত হবেন তা বলাই বাহুল্য। চিঠির সমাপনী অংশে মন্ত্রী বলেন- ‘জননেত্রী শেখ হাসিনার অধীনে উন্নয়নের ধাপগুলো একটির পর একটি অতিক্রমের সঙ্গে সঙ্গে সরকার সাধারণ সেবাপ্রার্থীদের উন্নততর সেবা প্রদানে বদ্ধপরিকর। ইতিমধ্যেই বহু অফিসে সেবার মানের যুগান্তকারী পরিবর্তন হয়েছে। পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সেবার মান উন্নত করার জন্য সম্প্রতি সব দূতাবাসে ‘দূতাবাস’ অ্যাপস চালু করার উদ্যোগ নিয়েছে। যার মাধ্যমে প্রায় ৩০০ ধরনের তাৎক্ষণিক সেবাদান সম্ভব হবে। আপনার মিশনকেও এ ডিজিটাল পদ্ধতির আওতায় নিয়ে আসতে হবে। আমি আশা করব আপনার নেতৃত্বে আপনার অধীনে নিযুক্ত কর্মকর্তা-কর্মচারীদের মধ্যে সেবা প্রদানের বিষয়ে প্রচলিত দৃষ্টিভঙ্গির ইতিবাচক পরিবর্তন ঘটবে। আগামী কয়েক মাসের মধ্য ঢাকায় রাষ্ট্রদূতদের একটি সম্মেলন অনুষ্ঠিত হবে। যাতে আপনাদের প্রত্যেকের কাছ থেকে সেবার মানোন্নয়নে গৃহীত পদক্ষেপ সম্পর্কে জানার জন্য আমরা অপেক্ষায় থাকব।’

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×