লঞ্চের স্টাফরাই মেরে ফেলে সাদ্দামকে!

  বরিশাল ব্যুরো ০৪ জুন ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

বরিশালের বাবুগঞ্জ উপজেলার দক্ষিণ ভুতেরদিয়া সংলগ্ন সুগন্ধা নদী থেকে সাদ্দাম হোসেন (২২) নামে এক যুবকের লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। রোববার বিকাল ৩টার দিকে লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য বরিশাল হাসপাতাল মর্গে পাঠায় পুলিশ। সাদ্দাম মো. শাহজাহান বেপারির ছেলে। সাদ্দাম বাংলাদেশ চলচ্চিত্র উন্নয়ন সংস্থার (এফডিসি) শুটিং সহকারী হিসেবে কর্মরত ছিলেন।

নিহতের ভগ্নিপতি মাইনুল হোসেন জানান, ঈদের ছুটিতে ৩১ মে ঢাকা-ভাণ্ডারিয়া রুটে চলাচলকারী এমভি ফারহান-১০ লঞ্চযোগে ঢাকা থেকে বাড়ির উদ্দেশে বের হয় সাদ্দাম। আসার পথে লঞ্চের ভেতরে অজ্ঞান পার্টির খপ্পরে পড়ে সে। এ সময় অজ্ঞান পার্টির সদস্যদের সঙ্গে হাতাহাতি হয় সাদ্দামের। একপর্যায়ে লঞ্চের স্টাফরাও সাদ্দামের ওপর হামলা চালায়। হামলার ঘটনা শুক্রবার গভীর রাতে মোবাইল ফোনে তাকে জানায় সাদ্দাম। সাদ্দামের বন্ধু আনোয়ার হোসেন বলেন, লঞ্চের কর্মচারীরা তাকে মেরে ফেলবে এ কথা সাদ্দাম আগেই বুঝতে পেরেছিলেন। লঞ্চে নিজ এলাকার দু’জনকে পেয়েছিলেন যাদের একজন নাঈম। সাদ্দাম দুলাভাই, ভাগ্নে-ভাগ্নির জন্য কেনা নতুন জামা কাপড় নাঈমের হাতে তুলে দেন। নাঈমকে বলেন, আমি যদি কোনোভাবে বাড়িতে যেতে না পারি তাহলে এটা তুমি পৌঁছে দিও। শনিবার ভোরে বানাড়ীপাড়ার মীরেরহাট লঞ্চঘাটে লোকজন নিয়ে সাদ্দামের খোঁজ নেন ভগ্নিপতি মাইনুল হোসেন। কিন্তু লঞ্চঘাটে পৌঁছলেও সাদ্দামের কোনো সন্ধান পাওয়া যায়নি। এ ঘটনায় ওই দিন উজিরপুর থানায় সাধারণ ডায়েরি করার জন্য গেলে থানা পুলিশ অভিযোগটি আমলে নেয়নি। তার ধারণা সাদ্দামকে লঞ্চ থেকে ফেলে হত্যা করা হয়েছে। এ ঘটনায় হত্যা মামলা দায়ের করবেন বলেও জানান মাইনুল।

বাবুগঞ্জ থানার ওসি দিবাকর চন্দ্র দাস জানান, লাশটি ভাসতে দেখে এলাকাবাসী থানায় খবর দেয়। পরে পুলিশ লাশটি উদ্ধার করে। খবর পেয়ে মাইনুল হোসেন নামের এক ব্যক্তি থানায় গিয়ে লাশ শনাক্ত করেন। পরে ময়নাতদন্তের জন্য তার লাশ বরিশাল মর্গে পাঠানো হয়। এ ঘটনায় লিখিত অভিযোগ দিলে মামলা দায়েরসহ আইনগত ব্যবস্থা নেয়ার কথা বলেন ওসি। থানার এসআই নিজাম বলেন, একদিন এক রাত পানির মধ্যে ছিল এ অবস্থায় লাশের অবস্থা অনেকটা খারাপ হয়ে গিয়েছিল। এ অবস্থায় সুরতহাল রিপোর্ট দিয়ে বলা সম্ভব না যে তাকে নির্যাতন করে হত্যা করা হয়েছে নাকি এটা অন্য কোনোভাবে মৃত্যু। তবে ময়নাতদন্ত সম্পন্ন হয়ে গেছে। পরিবারের সদস্যরা লাশ নিয়ে গেছেন।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×